1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

সাদা বাঘকে রাগাবেন না!

একশ' বছরের বেশি আগে রেওয়ার মহারাজা একটি সাদা বাঘের বাচ্চা খুঁজে পেয়েছিলেন, নাম রেখেছিলেন মোহন৷ কিন্তু সাদা বাঘও যে বাঘ, তা বোঝা যায় এই রক্ত জল করা ভিডিওটি দেখলে৷

২০১৩ সালের অক্টোবর মাসে প্রকাশিত হয় এই ভিডিও৷ তারপর ৩৭ লাখের বেশি মানুষ দেখেছেন দুই সাদা বাঘের লড়াই; ভারতের বেঙ্গালুরুর জাতীয় উদ্যানে, খাঁচার মধ্যে৷

বেশ তো ছিল দু'টিতে, হঠাৎ যে কী হলো, ব্যাঘ্রপুঙ্গবদের মধ্যে গর্জানো আর দাঁত দেখানো আর থাবা বসানো শুরু হয়ে গেল৷ গর্জন শুনলেই প্রাণ ঠান্ডা হয়ে আসে, কিন্তু যেভাবে একজন আরেকজনকে উপড়ে ফেলে চিৎ হওয়া অবস্থায় তার উপর দাঁড়িয়ে নিজের শক্তিমত্তা প্রদর্শন করছে, তা-তে এই জীবটি যে জঙ্গলের জীব এবং চিরকাল তা-ই থাকবে, এ বিষয়ে সন্দেহ থাকার কোনো উপায় নেই৷

বাঘের মারামারিতে একটু আধটু কাটবেই ও রক্ত পড়বে, সেটা বাঘেদের কাছে আঁচড় ছাড়া কিছু নয়৷ এই ভিডিওটি দেখলে মনে হবে, এই যুদ্ধ থেকে ওদের দু'জনের একজন জীবন্ত বেরিয়ে আসতে পারবে বটে, কিন্তু অন্যজনকে...

অথচ পশুজগতের অনেকটাই হলো লোক-দেখানো – এক্ষেত্রে বাঘ-দেখানো ‘শো', প্রতিপক্ষকে ‘ইম্প্রেস' করার জন্য৷ বাঘেরা তা-তে কী ভাবে জানি না, তবে বনের অন্য প্রাণীদের যে কাপড়ে-চোপড়ে হয়ে যায়, তা আমি নিঃসন্দেহে বলতে পারি৷ অথচ জীবটা তো বেড়ালের বোনপো ছাড়া আর কিছু নয়, না হয় কথায় বলে ‘বিগ ক্যাট'৷ আমার ছোটবেলায় আমাদের বাড়িতে সব মিলিয়ে সাকুল্যে ন'টা বাঘের মাসি ছিল: ভাগ্যিস তারা সুন্দরবন থেকে তাদের জনা কয়েক বোনপোকে নিমন্ত্রণ করেনি!

শেষমেষ বেঙ্গালুরুর ন্যাশনাল পার্কের কর্মীরা গাড়িতে করে একেবারে খাঁচার মধ্যে ঢুকে দুই মস্তানকে আলাদা করলেন৷ বাঘে ছুঁলে আঠেরো ঘা, তার বেশ ক'টা এই দুই লড়াকুর কনুই, কাঁধ ইত্যাদিতে দেখা গেল৷ তবে কেউ কাউকে কামড়ায়নি৷ কামড়াবেই বা কী করে, বাঘের তিন ইঞ্চি দাঁতগুলো হলো বিশ্বের মার্জার শ্রেণিভুক্ত সব জীবের মধ্যে সবচেয়ে লম্বা ও সবচেয়ে মারাত্মক৷ ‘পাড়ার' মারামারিতে সে অস্ত্র দেখানো যায় বটে, কিন্তু ব্যবহার করা চলে না...৷

এসি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন