1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘‘সাতক্ষীরায় হাসিনার প্রতীকী কবরও খুঁড়েছে জামায়াত-শিবির’’

কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরকে ঘিরে বাংলাদেশের অনেক জায়গায় ব্যাপক সহিংসতা চালিয়েছে জামায়াত-শিবির৷ ‘রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ’ নামের একটি সংগঠনের হয়ে সেসব এলাকা ঘুরে এসে বর্বরতার অবিশ্বাস্য বর্ণনা দিয়েছেন রোকেয়া প্রাচী৷

Anschlag in Bangladesch EINSCHRÄNKUNG

ফাইল ফটো

অভিনেত্রী, সংস্কৃতি কর্মী রোকেয়া প্রাচী ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে গিয়েছিলেন সাতক্ষীরায়৷ সাংবাদিক আবেদ খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সানজিদা আক্তার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক কাবেরী গায়েনের সঙ্গে ‘রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ'-এর হয়ে তিনিও গিয়েছিলেন সাতক্ষীরায়৷ কলারোয়া, দেবহাটা, কালিগঞ্জ ও আশাশুনি এলাকা ঘুরে তিনি দেখেছেন পোড়া ঘর, পোড়া দোকানপাট, খুঁড়ে ফেলা রাস্তা, কেটে ফেলা শত শত গাছ আর শুনেছেন যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির রায়ের প্রতিবাদের নামে মানুষ মারার রোমহর্ষক সব বর্ণনা৷

অডিও শুনুন 36:30

সাক্ষাৎকারটি শুনতে ক্লিক করুন

ডয়চে ভেলেকে দেয়া রোকেয়া প্রাচীর এই সাক্ষাৎকারে উঠে এসেছে নয় বছরের এক শিশুকে পানিতে চুবিয়ে মেরে ফেলার কথা৷ রিয়াদ নামের শিশুটির অপরাধ তার পরিবারের লোকজন আওয়ামী লীগ করে৷ বাড়ির উঠোনে শুয়ে থাকা অবস্থায় ৭০ বছর বয়সি এক মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে মেরেছে জামায়াত-শিবির৷ একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্তদের দল হিসেবে পরিচিত জামায়াতে ইসলামী কলারোয়ার আওয়ামী লীগ নেতা আজহারুল ইসলাম আজুকে তাঁর বাবার কবর থেকে টেনেহিঁচড়ে এনে কুপিয়ে মেরেছে৷ পিতার কবরে লুকিয়েও প্রাণ রক্ষা হয়নি তাঁর৷ শুধু আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী বা মুক্তিযোদ্ধা নয়, বরাবরের মতো হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের ওপরও নির্বিচারে হামলা চালানো হয়েছে৷ পত্রপত্রিকায় কি সাতক্ষীরার চিত্রটা পুরোপুরি উঠে এসেছে? রোকেয়া প্রাচী স্বীকার করেছেন, মাত্র দু-দিনে অনেক এলাকাই তাঁদের দেখা হয়নি, শোনা হয়নি অজস্র মানুষের আতঙ্কের জগতে বাস করার গল্প৷

অনেকে নাকি সাতক্ষীরায় আর বসবাস করছেন না৷ আওয়ামী লীগের অনেক নেতা-কর্মী এখনো দূরের কোনো নিকটজনের বাড়িতেই যাপন করছেন আশ্রিতের জীবন৷ অনেকে আবার দেশ ত্যাগ করেছেন, কেউ কেউ দেশ ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন, এসব তথ্য জানিয়ে প্রাচী বলেছেন, দেশত্যাগী এবং দেশ ত্যাগে ইচ্ছুকদের বেশিরভাগই হিন্দু৷

রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে মানুষ হত্যা এবং জীবিতদের মনে আতঙ্কের জন্ম দেয়া জামায়াত-শিবিরের আক্রমণের কৌশল এখন পাল্টেছে বলে জানিয়েছেন রোকেয়া প্রাচী৷ চোরাগুপ্তা হামলায় এখনো যে অনেক আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী নিহত হচ্ছেন সে খবর গণমাধ্যমেও অবশ্য নিয়মিতই আসছে৷ বিজিবি এবং পুলিশের তৎপরতায় সাতক্ষীরায় সহিংসতা আগের চেয়ে কমেছে৷ সে খবরও পত্র-পত্রিকা কিংবা টেলিভিশন-রেডিও থেকে জানা যাচ্ছে৷ রোকেয়া প্রাচী মনে করেন, জামায়াত-শিবির এসব করছে শুধুই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকাতে৷ তিনি মনে করিয়ে দিলেন, জামায়াতের এ তাণ্ডব শুরু হয়েছিল গত ফেব্রুয়ারিতে৷ দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর যুদ্ধাপরাধ মামলার রায় ঘোষণার পর থেকেই মূলত এই বিভৎতার শুরু৷ বিএনপির সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে নির্বাচনের কথা বললেও জামায়াত আসলে যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর জন্যই দেশজুড়ে সুযোগ পেলেই চালাচ্ছে ব্যাপক সহিংসতা৷ সাতক্ষীরায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তাঁর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রতীকী কবরও নাকি খুঁড়েছে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা!

রোকেয়া প্রাচী মনে করেন, সম্ভব সব উপায়েই রাষ্ট্র, প্রধানমন্ত্রী, প্রশাসন এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছে জামায়াত শিবির৷ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা নিজেদের এলাকা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার কারণেই সাতক্ষীরায় বর্বরোচিত হামলা চালানো জামায়াতের পক্ষে সম্ভব হয়েছে বলে তিনি মনে করেন৷ তবে রোকেয়া প্রাচীর দৃঢ়বিশ্বাস সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন বাংলাদেশের মানুষ একতাবদ্ধ হবে এবং জামায়াতের এই বিভৎস এবং নোংরা রাজনীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে অশুভ শক্তিকে বিতাড়িত করবে৷

সাক্ষাৎকার: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও