1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সাগর পাড়ি দিয়ে বারবার সে আসে বন্ধুর কাছে

পেঙ্গুইন আর মানুষের ভালোবাসার অসাধারণ এক দৃষ্টান্ত৷ একটি পেঙ্গুইনের প্রাণ বাঁচিয়েছিলেন ব্রাজিলের এক জেলে৷ এখন প্রতি বছর সাগর থেকে এসে প্রাণরক্ষাকারীর সঙ্গে দেখা করে যায় সেই পেঙ্গুইন, ভালোবাসায় সিক্ত হয় দু'জন৷

চার বছর আগে মাছ ধরতে গিয়েই ‘জিনজিং'-এর দেখা পেয়েছিলেন হোয়াও পেরেরা ডি সুজা৷ জিনজিং-ই সেই পেঙ্গুইন, যাকে দেখতে প্রতিদিন ইউটিউবে হুমড়ি খায় হাজার হাজার মানুষ৷

২০১১ সালে সাগরের জলে ভাসমান তেলে আটকে মরতে বসেছিল জিনজিং৷ দেখে বড় মায়া হয় ডি সুজার৷ কোলে করে নিয়ে যান ঘরে৷ সেবা দিয়ে বাঁচিয়েও তোলেন৷ বেঁচে উঠে কিন্তু সাগরে ফেরার জন্য অস্থির হয়ে ওঠেনি জিনজিং৷ গতিবিধি দেখে ডি সুজার মনে হয়েছিল, সাউথ অ্যামেরিকান ম্যাগেলানিক পেঙ্গুইনটি বুঝি সাগরে আর ফিরবেই না৷

কিন্তু একদিন ঠিকই সাগরে উধাও হলো জিনজিং৷ ডি সুজা তো ধরে নিয়েছিলেন, জিনজিং এবার তাকে ভুলেই যাবে৷

৭১ বছর বয়সি ডি সুজার এই ভুলও ভাঙে এক বছর না পেরোতেই৷ প্রাণ বাঁচানো প্রিয় মানুষটির কাছে একদিন ঠিকই ফিরে এলো জিনজিং৷

সেই থেকে প্রতিবছরই চলছে যাওয়া-আসা৷ প্রতিবছর একবার ডি সুজার বাড়িতে বেড়াতে আসে জিনজিং৷ এসেই উঠে পড়ে কোলে৷ খিদে পেলে হা করে থাকে৷ মুখে তখন একটা একটা করে সার্ডিন মাছ তুলে দেন ডি সুজা৷ গোসলের সময়ে আদুরে সন্তানের মতো চোখ বুঁজে থাকে৷ ডি সুজা যেন তার পরম বন্ধু বা পিতা৷

অন্যের বেলায় জিনজিং একেবারে অন্যরকম৷ কেউ আদর করতে গেলেই ঠুকরে দেয়৷ তা দেখে ডি সুজা বলেন, ‘‘আমি এই পেঙ্গুইনকে আমার সন্তানের মতো ভালোবাসি৷ আমার ধারণা পেঙ্গুইনটিও ভালোবাসে আমাকে৷ অন্য কাউকে ও কাছেই ঘেঁষতে দেয় না, কাছে গেলেই ঠুকরে দেয়৷ অথচ দেখুন কীভাবে ও আমার কোলে এসে বসে থাকে, গোসল করাতে দেয়, সার্ডিন খাওয়ানোর সময় চুপ করে হা করে থাকে৷''

ডি সুজা আর জিনজিংয়ের এই ভালোবাসা দেখে মুগ্ধ হচ্ছেন লাখো মানুষ৷ তাদের নিয়ে তৈরি একটি ভিডিওই চার মাসে দেখা হয়েছে ২১ লক্ষ ৭৫ হাজার ৮৫৭ বার৷

এসিবি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়