1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

সাগরের কেল্লা যখন হোটেল

ইংল্যান্ডের দক্ষিণ উপকূলে পোর্টসমথ বন্দরের মুখেই সাগরের পানির মধ্যে একটি প্রতিরক্ষা দুর্গ, যার নাম স্পিটব্যাংক ফোর্ট৷ আজ সেই দুর্গ একটি লাক্সারি হোটেল; সৈন্যদের কামান দাগার বদলে শ্যাম্পেনের গ্লাস৷

স্পিটব্যাংক ফোর্ট

স্পিটব্যাংক ফোর্ট

সাগরের মাঝখানে হোটেল, নাম আবার স্পিটব্যাংক ফোর্ট৷ দক্ষিণ ইংল্যান্ডের উপকূল থেকে এক সামুদ্রিক মাইল দূরত্বে৷ ব্রিটেনের লাক্সারি হোটেলগুলির মধ্যে এ এক বিশেষ ধরনের বিলাস!

অতীতে স্পিটব্যাংক ছিল সত্যিই একটি ফোর্ট বা দুর্গ, যার কাজ ছিল পোর্টসমথ বন্দরে ঢোকার মুখটি সুরক্ষিত করা৷ আজ সেই ফোর্ট পরিণত হয়েছে একটি লাক্সারি হোটেলে৷

তীর থেকে হোটেল পর্যন্ত আসাটাই একটা অ্যাডভেঞ্চার৷ তবে সাগরের স্রোত এখানে কম নয়, কাজেই বোটের ওঠানামায় সি-সিক হয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে৷

ফোর্ট ম্যানেজার ডমিনিক হোন্স বলেন, ‘‘আমরা এখন স্পিটব্যাংক ফোর্টের দিকে চলেছি৷ আমি হলাম ডমিনিক, ফোর্ট ম্যানেজার৷ মাত্র দশ থেকে ১৫ মিনিটের যাত্রা৷ ঐ তো, সামনেই দেখতে পাচ্ছেন স্পিটব্যাংক ফোর্ট৷''

হেদার-এর একটি বহুদিনের স্বপ্ন পূরণ হলো৷ স্বামী গ্র্যাহামের সত্তরতম জন্মদিন উপলক্ষ্যে তিনি এই ট্রিপটি কামনা করেছিলেন৷ হেদার বলেন, ‘‘খুব রোমাঞ্চকর, তাই না? বাতাস যে আরো জোরালো নয়, সাগর যে আরো উত্তাল নয়, সেটাই সৌভাগ্য৷''

কেল্লা তো নয়, লাক্সারি হোটেল

১৩৮ বছরের পুরনো ফোর্টটি দেখলে মনে হবে না যে, এটি একটি লাক্সারি হোটেল৷ পৌঁছনোর পর অতিথিদের খাড়া সিঁড়ি বেয়ে উঠতে হয়৷ তারপর শুরু হয় শ্যাম্পেনের গ্লাস দিয়ে অতিথিদের অভ্যর্থনা৷ হেদার বললেন, ‘‘আমি যা ভেবেছিলাম, তা থেকে সম্পূর্ণ আলাদা৷ কিন্তু এরকম সব দেয়াল, কোণায় কোণায় ছোট ছোট ঘর, এ সব এখনও আছে বলে ভাবিনি৷ আমার দারুণ লাগে৷''

আগে যেখানে গোলাগুলি আর বারুদ রাখা হতো, আজ সেখানে অতিথিদের স্বাগত জানানো হয়৷

দিন কয়েকের ছুটি কাটানোর জন্য স্পিটব্যাংক ফোর্টের জুড়ি নেই৷ ব্রিটিশ কোটিপতি মাইক ক্লেয়ার ফোর্টটি কেনেন ২০০৯ সালে মাত্র ১৩ লাখ ইউরো মূল্যে, পরে আরো ৪০ লাখ ইউরো ব্যয় করে ফোর্টের খোলনলচে পালটে দেওয়া হয়৷

ভিডিও দেখুন 04:27

সাগরের মাঝে রাত্রিবাস?

ফোর্ট ম্যানেজার ডমিনিক হোন্স ঘোষণা করলেন, ‘‘আপনারা থাকবেন অ্যাডমিরাল চার্চিল সুইটে৷''

হেদারের প্রতিক্রিয়া হল, ‘‘ও মা, দেখো, দেখো৷ এতো বড় হবে, ভাবতে পেরেছিলে? বাকি ফোর্টের তুলনায়৷ অবিশ্বাস্য৷''

ফোর্ট ম্যানেজার ডমিনিক হোন্স বললেন, ‘‘এটা হল সমুদ্রের দিকে মুখ করা কামানের ঘরগুলোর একটি৷ আগে এখানে সাড়ে বারো ইঞ্চি ব্যাসের একটা কামান গোটা ঘরটা জুড়ে থাকত৷''

স্পিটব্যাংক ফোর্টে এরকম ন'টি সুইট আছে৷ প্রত্যেকটি সুইটের স্টাইল আলাদা৷ গ্র্যাহাম পর্যন্ত খুশি৷

গ্র্যাহাম মনে করেন, ‘‘হ্যাঁ, আমাদের দু'জনের জায়গা হয়ে যাবে৷ তারপরও জায়গা থাকবে৷''

সৈন্যদের বদলে হোটেল গেস্ট

দিনে ছ'হাজার তিনশ' ইউরো খরচ করতে পারলে গোটা স্পিটব্যাংক ফোর্টটাই বুক করা যায়৷ আগে জলের নীচের ঘরগুলোতে শ'দুয়েক সৈন্যের শোয়ার ব্যবস্থা ছিল৷ আজ সেখানে হোটেল গেস্টদের জন্য বার৷

স্পিটব্যাংক ফোর্টের ইতিহাস না শুনলে অযাত্রা হয়৷ ডমিনিক হোন্স সেই ইতিহাস শোনালেন, ‘‘মাটিতে কামানের চাকা ঠেলার যে দাগগুলো ছিল, তা এখনও দেখতে পাওয়া যায়৷ এছাড়া কামানগুলো নাড়াচাড়া করার জন্য ছাদ থেকে দড়ি ঝোলানোর আংটাগুলোও দেখতে পাবেন৷''

একটি ছোট মিউজিয়ামে গেলে দেখা যাবে, পাথরের দুর্গে মানুষ আগে কীভাবে থাকত ও কাজকর্ম করত৷

ডমিনিক হোন্স জানালেন, ‘‘এখানে দু'শ সৈন্যের খাবার তৈরি হতো৷ আমরা এখানে নানারকমের সামরিক জিনিসপত্র রেখেছি, যার ফলে হোটেলের শেফ-রা কখনোসখনো চমকে যান, যখন তারা শোনেন যে, এটাই হবে তাঁদের রান্নাঘর৷''

আগে সৈন্যরা ঝোলানো হ্যামকে শুতেন৷ আজ ফোর্টের ন'টি লাক্সারি সুইটে ১৮ জন অতিথি রাত কাটান৷ তাদের অধিকাংশ এক কিংবা দু'রাত্রির বেশি থাকেন না৷ তবে অতীতের সেই কঠিন বাস্তবের কথা ভেবে তাঁদের রোমাঞ্চ হয় বৈকি৷৷

আপনিও কি এই স্পিটব্যাংক ফোর্ট হোটেলে রাত্রিযাপন করতে চান? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও