1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সহিংসতার মধ্যে মিশরে নতুন সংবিধানের জন্য গণভোট

বাংলাদেশের মতো মিশরেও সহিংসতার মধ্যেই চলছে নতুন সংবিধানের জন্য গণভোট৷ প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির পতনের পর এই প্রথম ভোট হচ্ছে সেদেশে৷ সারা দেশে কঠোর নিরাপত্তা মোতায়েন থাকলেও বিভিন্ন স্থানে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে৷

ভোটগ্রহণ শুরুর মাত্র দুই ঘণ্টা আগে কায়রো আদালতের সামনে বিস্ফোরণ হয়েছে৷ তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি৷ ফলে ভোটাররা কতটা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দেবেন, তা নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়৷

ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির দল মুসলিম ব্রাদারহুডের নেতৃত্বাধীন ইসলামিস্ট জোট ভোট বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে৷ তারা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে জনগণ যাতে না ভোট দেন৷ ওদিকে ভোটকেন্দ্রগুলোতে সহিংসতা ঠেকাতে দেশ জুড়ে কয়েক লাখ পুলিশ ও সেনা মোতায়েন করা হয়েছে৷

Ägypten Wahlen

পুলিশ ও সেনা মোতায়েন করা হয়েছে সারা দেশে...

একটি ভোটকেন্দ্রের চিত্র তুলে ধরতে গিয়ে সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, সেখানে মহিলারা মিশরের জাতীয় পতাকা হাতে সেনা সমর্থিত স্লোগান দিচ্ছিল৷ তবে ভোট যাই পড়ুক না কেন, সংবিধান যে পাশ হবে এ ব্যাপারটি মোটামুটি নিশ্চিত বলে জানাচ্ছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো৷

নতুন সংবিধানের পক্ষে ভোট দিয়েছেন এমন একজন নারী জানিয়েছেন, এই সংবিধানে নারীর অধিকার বাড়ানো এবং তাঁদের মতামত দেয়ার অধিকারের কথা বলা হয়েছে৷

বিশ্লেষকদের ধারণা, সেনাপ্রধান আব্দেল ফাত্তাহ আল-সিসি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়ালে বিজয়ী হবেন৷ ওদিকে সিসি জানিয়েছেন, জনগণের কাছে তাঁর যথেষ্ট গ্রহণযোগ্যতা আছে৷ তাই প্রয়োজন হলে তিনিই নির্বাচনে দাঁড়াবেন৷

অন্যদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, কর্তৃপক্ষের মনে এ সন্দেহ রয়েছে যে, ভোট বেশি না পড়লে ইসলামপন্থি দল মুসলিম ব্রাদারহুড এবং সমর্থকরা তাদের দাবির পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করতে পারবে৷

গত বছরের জুন মাসে মুরসির পতনের পর তুমুল সংঘর্ষে নিহত হয়েছে এক হাজারেরও বেশি মানুষ৷ আটক করা হয়েছে কয়েক হাজারকে৷

এপিবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন