1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে নির্বাচনের সময় সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব করেছেন৷ তিনি বলেছেন সর্বদলীয় সরকারের মন্ত্রিপরিষদে বিরোধী দলের প্রতিনিধিও থাকবে৷ এছাড়া আলোচনার দরজা খোলা থাকার কথা জানান তিনি৷

বিএনপি তাৎক্ষণিকভাবে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া না জানালেও দলের চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে নতুন কোনো কথা বলেননি৷ পুরনো কথাই আবার বলেছেন৷ তাঁরা নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার চান৷ আর তা আদায়ে তাঁদের আন্দোলন চলবে৷

শুক্রবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন ২৫শে অক্টোবর থেকে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে দেশে সাধারণ নির্বাচন হবে৷ আর এই নির্বাচন হবে সংবিধানের অধীনে৷ দেশে আর কখনো অনির্বাচিত সরকার ফিরে আসবেনা৷ তিনি বলেন রাজনৈতিক সংকট নিয়ে এর আগে তিনি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন৷ কিন্তু বিরোধী দলীয় নেত্রী তা প্রত্যাখ্যান করে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সরকার পতনের ঘোষণা দিয়েছিলেন৷ তারপরও তিনি আলোচনার দরজা খোলা রেখেছেন৷ যে-কোনো সময় আলোচনা হতে পারে৷

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে নির্বাচনকালীন সরকার হিসেবে সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব করেন৷ তিনি বলেন সেই সরকারের মন্ত্রিসভায় প্রধান বিরোধী দলের প্রতিনিধিত্বও থাকবে৷ তিনি এজন্য বিরোধী দলকে নাম দেয়ার আহ্বান জানান৷ প্রধানমন্ত্রী বলেন এই সর্বদলীয় সরকার নিয়ে বিরোধী দলসহ সব দলের সঙ্গে আলোচনা হবে৷ শেখ হাসিনা বলেন তাঁর সরকারের সময় মোট ৫,৭৭৭টি নির্বাচন হয়েছে৷ কোনো নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠেনি৷ আর বর্তমান নির্বাচন কমিশন সব দলের সঙ্গে আলোচনা করে সার্চ কমিটির মাধ্যমে গঠন করা হয়েছে৷ তিনি বলেন তাঁর সরকার সব দলকে সঙ্গে নিয়ে নির্বাচন করতে চায়৷

The Bangladesh army has said on 19,01.2012 it has foiled a plot by some hardline officers to topple the Sheikh Hasina government and that the process to bring the culprits to justice has begun. unser Korrespondent in Dhaka, Herr Harun Ur Rashid Swapan hat die angehängten Bilder am 19.01.12 aufgenommen, und stellt sie der DW zur Verfügung.

ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন ২৫শে অক্টোবর থেকে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে দেশে সাধারণ নির্বাচন হবে

প্রধানমন্ত্রী বিরোধী দলকে দা-কুড়াল দিয়ে মানুষ হত্যার নির্দেশ প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়ে বোমা মেরে, আগুন জ্বালিয়ে, পবিত্র কোরান ও মসজিদ পুড়িয়ে এবং মাদ্রাসায় বোমা বানিয়ে মানুষের ক্ষতি না করার অনুরোধ করেন৷

প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের পর প্রধান বিরোধী দল বিএনপি তাৎক্ষণিকভাবে আনুষ্ঠানিক কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি৷ তবে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু কথা বলেন ডয়চে ভেলের সঙ্গে৷ তিনি বলেন দেশে যে সাংবিধানিক এবং রাজনৈতিক সংকট চলছে তা থেকে বেরিয়ে আসার কোনো দিক নির্দেশনা নেই প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতায়৷ তিনি পুরনো কথাই বলেছেন৷ কিন্তু জাতির আশা ছিল তিনি সংকট নিরসনে নতুন এবং গ্রহণযোগ্য কিছু বলবেন৷ তিনি জাতিকে হতাশ করেছেন৷ দুদু বলেন সর্বদলীয় সরকারের কথা এর আগেও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন৷ তিনি এর আগেও আলোচনার জন্য চিঠি দেয়ার কথা বলেছেন৷ আর সেই কথাই আবার বললেন৷ এর মাধ্যমে তিনি দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চাইছেন৷

শামসুজ্জামান দুদু বলেন প্রধামন্ত্রীর ভাষণ সংকট আরো বাড়াবে৷ বিএনপি নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচনে যাবেনা৷ আর একতরফা নির্বাচন হতে দেবেনা৷ তাই ২৫শে অক্টোবর থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে আনার জন্য চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়