1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

‘সরল মানুষদের ক্লাব'

কেউ হয়তো আবার বাগানের ঝোপ কেটে কেয়ারি করা নিয়ে বই লিখে ফেলেছেন: অর্থাৎ দৈনন্দিন জীবনের সহজ, সরল, সাধারণ জিনিসগুলোকে যারা গুরুত্ব দেন., তারাই হলেন ‘ডাল মেন'৷

কেউ হয়তো আবার বাগানের ঝোপ কেটে কেয়ারি করা নিয়ে বই লিখে ফেলেছেন: অর্থাৎ দৈনন্দিন জীবনের সহজ, সরল, সাধারণ জিনিসগুলোকে যারা গুরুত্ব দেন., তারাই হলেন ‘ডাল মেন'৷

কেভিন বেরেসফোর্ড-কে ‘‘সরল মানুষদের ক্লাব''-এর একজন মার্কামারা সদস্য বলা চলতে পারে৷ তিনি হলেন ‘‘ইউকে রাউন্ডঅ্যাবাউট অ্যাপ্রিসিয়েশন সোসাইটি'' বা যুক্তরাজ্যের গোলচক্কর ভক্ত সমিতির সভাপতি৷ কেভিন বলেন, ‘‘গোলচক্করের মতো অভিব্যক্তিপূর্ণ আর কিছু নেই৷ তার উপর যা খুশি বসানো যায়: ফোয়ারা, স্ট্যাচু, ট্রেন, নৌকো, এরোপ্লেন, বিয়ার পাব, গির্জা, এমনকি সত্যিকারের উইন্ডমিল; গোলচক্করের ওপর আমি সব কিছু দেখেছি৷ যা প্রাণ চায়৷ সেটাই গোলচক্করের বিশেষত্ব বলে আমার ধারণা৷''

Borsigplatz in Dortmund

গোলচক্করের শোভা

ঝোপেঝাড়ে

হিউ বার্কার-এর ভালোবাসার বস্তু সম্পূর্ণ আলাদা: তাঁর ভালো লাগে বাগানের কেয়ারি করা ঝোপঝাড়৷ বিষয়টি নিয়ে তিনি একটি বইও লিখে ফেলেছেন, ‘হেজ ব্রিটানিয়া' বা ‘ব্রিটেনের ঝোপ'৷ হিউ বলেন, ‘‘হেজ বা কেয়ারি করা ঝোপ ব্রিটেনে প্রকৃতির অঙ্গ৷ এ ধরনের ঝোপের একটা প্রতীকী দিক আছে, যে বিষয়ে আমি আগ্রহী৷ লোকজন তাদের বাগানের ঝোপঝাড় নানা অদ্ভুত আকারে কাটেন-ছাঁটেন৷ আপনি কী আকারে আপনার ঝোপগুলো কাটছেন, তা থেকে আপনার সম্বন্ধে অনেক কিছু জানা যায়৷ তার খানিকটা একটু বোকা বোকা হলেও, তলায় কিন্তু বেশ গুরুগম্ভীর তথ্য থাকে৷''

ব্রিটিশ মিডিয়া হিউ বার্কার-কে লন্ডনের ‘‘সবচেয়ে বোরিং বাসিন্দা'' আখ্যা দিয়েছে৷ হিউ-এর অবশ্য তাতে কোনো আপত্তি নেই৷ তিনি বলেন, ‘‘মানুষজন যে সব বিষয়ে ইন্টারেস্টেড, তার অনেকটাই আজগুবি মনে হতে পারে৷ কিন্তু লোকজনের এ ধরনের উদ্ভট ইন্টারেস্ট থাকে, বিশেষ করে পুরুষদের৷ তাতে দোষের কিছু আছে বলে আমি মনে করি না৷ ওটা গর্ব করার ব্যাপার, লজ্জা করার মতো নয়৷''

‘সবচেয়ে বোরিং লোক'

ক্লাবের কর্মকর্তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন লেল্যান্ড কার্লসন৷ জন্মসূত্রে অ্যামেরিকান; ত্রিশ বছর আগে নিউ ইয়র্কে ‘‘ডাল মেন্স ক্লাব'' বা ‘‘সরল মানুষদের ক্লাব'' প্রতিষ্ঠা করেছিলেন – পরে আইডিয়াটাকে লন্ডনে নিয়ে আসেন৷ আজ তাঁর ক্লাবের সদস্যসংখ্যা পাঁচ হাজার৷

ক্লাবের নীতি ব্যাখ্যা করলেন কার্লসন, ‘‘মিডিয়া আমাদের বানিয়েছে ‘ডালেস্ট মেন' বা সবচেয়ে বোরিং লোক৷ আমরা মোটেই সবচেয়ে বোরিং নই৷ সেটা হল বড্ড বোরিং৷ আমরা হলাম শুধু বোরিং৷ আমাদের মধ্যে অনেকে অন্যদের চেয়ে কম বোরিং হবার চেষ্টা পর্যন্ত করেন না৷ জীবনে যা কিছু সাধারণ, তাই নিয়ে খুশি থাকাটা ধরুন স্কাই ডাইভিং-এর চেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ৷ ওর চেয়ে আমাদের অনেকে দিবানিদ্রাই পছন্দ করবেন৷''

যাবতীয় ব্রিটিশ ‘হিউমার' সত্ত্বেও তথাকথিত সরল মানুষেরা দৃশ্যত মানুষের মন – এবং কল্পনা জয় করে নিয়েছেন! বর্তমানের শশব্যস্ত, ঊর্ধ্বশ্বাস সমাজজীবনে তারা যেন শান্তির ছোঁয়া এনে দিয়েছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক