1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সরকারি হাসপাতালের ওষুধ চুরি

বাংলাদেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে এখন আর ওষুধের আকাল নেই৷ সব ওষুধ রোগীরা বিনামূল্যে না পেলেও স্বাস্থ্য মহাপরিচালকের দাবি, চাহিদার শতকরা ৯৬ ভাগ ওষুধ এখন হাসপাতালগুলোই সরবরাহ করে৷

ঢাকার আগারগাঁও এলাকায় সরকারি পঙ্গু হাসপাতালের এক কিলোমিটার এলাকার মধ্যেই গড়ে উঠেছে ১০/১২টি বেসরকারি ক্লিনিক৷ তারাও হাত-পা ভাঙার চিকিত্‍সা দেয়৷ ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখানকারই মরিয়ম ক্লিনিকে অভিযান চালায়৷ আর ক্লিনিকের স্টোর রুমে পাওয়া যায় বিপুল পরিমাণ সরকারি ওষুধ৷ যার গায়ে লেখা আছে ‘বিক্রির জন্য নয়, বিনামূল্যে বিতরণের জন্য'৷ এই ওষুধের মধ্যে আছে ট্যাবলেট, সিরাপ, ইনজেকশন থেকে শুরু করে তুলা ও ব্যান্ডেজ সবকিছু৷

ক্লিনিকের ম্যানেজার আকরাম হোসেন জানান, পঙ্গু হাসপাতালের কিছু কর্মচারী তাদের নিয়মিত টাকার বিনিময়ে ওষুধ দিয়ে যায়৷ তিনি তার খাতা খুলে তাদের নাম, ফোন নাম্বার এবং কোন মাসে কত টাকার ওষুধ তাদের কাছ থেকে কিনেছেন, তাও দেখান৷ ম্যানেজারের দেয়া নাম এবং ফোন নাম্বার ধরে পঙ্গু হাসপাতালে গিয়ে পাওয়া যায় রফিকুল ইসলাম নামে একজনকে৷ তিনি হাসপাতালের অপারেশন ওয়ার্ডের ওয়ার্ড বয়৷ হাসপাতালের ওষুধ বাইরে বিক্রির অভিযোগ তিনি অস্বীকার করলেও মরিয়ম ক্লিনিকে নিয়মিত আসা যাওয়ার কথা স্বীকার করেন৷ স্বীকার করেন ম্যানেজার আকারামের সঙ্গে পরিচয় থাকার কথা৷ তাহলে ওষুধ বিক্রেতাদের তালিকায় তার নাম কীভাবে এলো জানতে চাইলে বলেন, কেউ শত্রুতা করে তালিকায় তার নাম দিয়ে থাকতে পারেন৷

Krankenschwestern arbeitet am Donnerstag (23.06.2011) in einer Krankenstation in Tongi, einem Vorort von Dhakar in Bangladesh, die von der Bundesregierung unterstützt wird. Das ehemalige Ost-Pakistan, das 1971 seine Unabhängigkeit von Pakistan erkämpfte, gehört zu den ärmsten Ländern der Welt. Foto: Tim Brakemeier dpa

হাসপাতালের কিছু কর্মচারী নিয়মিত ওষুধ বিক্রি করে

বিষয়টি নিয়ে পঙ্গু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. খন্দকার আব্দুল আউয়ালের কাছে জানতে চাইলে তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, হাসপাতালের ওষুধ চুরির অভিযোগ মাঝেমধ্যেই পান৷ কিন্তু তথ্য প্রমাণের অভাবে ব্যবস্থা নেয়া যায়না৷ তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি৷ তবে তিনি বলেন, বড় আকারের নয় ছোট খাট চুরির ঘটনা ঘটে৷

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. সেফায়েত উল্লাহ ডয়চে ভেলেকে জানান, শুধু পঙ্গু হাসপাতাল নয় – দেশের আরো অনেক বড় বড় সরকারি হাসপাতালের ওষুধ চুরির অভিযোগ আছে তার কাছে৷ কিছু ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেয়া হয়েছে৷ তবে তিনি মনে করেন হাসপাতালের কর্মচারীরা সত্‍ না হলে এই ওষুধ চুরি পুরোপুরি বন্ধ করা সম্ভব নয়৷ তিনি বলেন, বড় বড় সরকারি হাসপাতালের চারপাশে বেসরকারি ক্লিনিকগুলো গড়েই ওঠে সরকারি হাসপাতালের রোগী আর ওষুধের ওপর নির্ভর করে৷ আর এ জন্য সরকারি হাসপাতালের ভেতরে এবং বাইরে অসত্‍ চক্র কাজ করে৷

আর ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এইচ এম আনোয়ার পাশা জানান তারা গত এক বছরে এরকম অন্তত ১০টি সরকারি ওষুধের চালান বিভিন্ন ক্লিনিক থেকে আটক করেছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়