1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সরকারি দমননীতি সত্ত্বেও সিরিয়ায় আগামীকাল সমাবেশের ঘোষণা

সিরিয়ায় নিরাপত্তা বাহিনী কমপক্ষে ৫০০ সাধারণ মানুষকে হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে দেশটির একটি মানবাধিকার সংগঠন৷ তা সত্ত্বেও আগামীকাল শুক্রবার বড় ধরণের বিক্ষোভের ডাক দেয়া হয়েছে৷

default

সিরিয়ায় বিক্ষোভ (ফাইল ছবি)

সিরিয়া শাসন করছে বাথ পার্টি৷ সেই দলের ২৩৩ জন সদস্য সরকারের দমন পীড়নের প্রতিবাদে পদত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে৷ একই ইস্যুতে সেনাবাহিনীর মধ্যেও বিভেদ দেখা দিয়েছে বলে কূটনীতিকরা বলছেন৷

এদিকে আগামীকাল শুক্রবার দেশব্যাপী বড় ধরণের বিক্ষোভ করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ফেসবুকের একটি গ্রুপ৷ সেখানে বলা হয়েছে, ‘‘আমরা দারা'কে একা ছেড়ে চলে যাব না৷'' উল্লেখ্য, দারা হচ্ছে সেই শহর যেখান থেকে মূলত বিক্ষোভের শুরু৷ তবে গত সোমবার নিরাপত্তা বাহিনী অভিযান চালিয়ে শহরটি দখল করে নেয়৷ অভিযানে প্রায় ৩০ জন সাধারণ নাগরিক মারা যায়৷

বিভিন্ন দেশ আলাদাভাবে এই ঘটনার সমালোচনা করেছে৷ কিন্তু জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ সিরিয়া সরকারের অব্যাহত দলনের সমালোচনা জানিয়ে একটি বিবৃতি দেয়ার ব্যাপারে একমত হতে পারে নি৷ রাশিয়া ও চীনের বিরোধিতার কারণে সেটা সম্ভব হয় নি৷

তবে ঐ ঘটনার জন্য যারা দায়ী, তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেয়ার উদ্যোগ নিতে সিরিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে রাশিয়া৷ তারা বলছে, বাইরে থেকে সিরিয়ার বিষয়ে হস্তক্ষেপ করলে গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে৷ এদিকে চীন বলছে, সিরিয়ার উচিত নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান করা৷

ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানি ও পর্তুগাল সমালোচনামূলক একটি বিবৃতির প্রস্তাব করেছিল৷

এদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সিরিয়ায় নিষেধাজ্ঞা আরোপের চিন্তা করছে৷ আর জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা একটি বিশেষ অধিবেশনের ডাক দিয়েছে৷ ব্রিটেন উইলিয়াম ও কেটের বিয়েতে সিরিয়ার রাষ্ট্রদূতকে দেয়া আমন্ত্রণপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছে৷

এদিকে দারা'র পর নিরাপত্তা বাহিনীর নজর পড়েছে আরেক শহর ‘তাল কালাখ'এর ওপর৷ বুধবার রাতে তারা পুরো শহর ঘিরে ফেলে বলে সেখানকার বাসিন্দারা বার্তা সংস্থা এএফপি'কে জানিয়েছে৷ ভয়ে তারা সীমানা পাড়ি দিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ লেবাননে আশ্রয় নিচ্ছে বলে জানা গেছে৷ পালিয়ে গেছে যারা তাদের অধিকাংশই নারী ও শিশু৷

বুধবার বিকেলে সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করার কারণে নিরাপত্তা বাহিনী এই পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানা গেছে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়