1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

সময় আর অবহেলার ধুলায় মলিন রবীন্দ্রনাথ

কালিম্পংয়ের অদূরে মংপুতে মনমোহন সেন-মৈত্রেয়ী দেবীর বাসভবন ও কালিম্পংয়ে রায়চৌধুরি পরিবারের গ্রীষ্মকালীন আবাস গৌরীপুর হাউস, এই দুটি বাড়িই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিধন্য৷ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সেই স্মৃতি আজ ধুলাচ্ছন্ন৷

Häuser in Mungpo

কালিম্পংয়ের ঐতিহাসিক গৌরীপুর হাউস

আত্মবিস্মৃত বাঙালি৷ নিজের ইতিহাস, নিজের ঐতিহ্য আর গর্বকে তারা যথাযোগ্য মর্যাদায় রক্ষণাবেক্ষণ করতে জানে না৷ নয়ত কালিম্পংয়ের ঐতিহাসিক গৌরীপুর হাউস আজ পোড়ো বাড়ির চেহারা নিত না! এবং সে নিয়ে কারও কোনো দায় নেই, দায়িত্বও নেই৷ গৌরীপুর হাউসের যাঁরা মালিক, কলকাতার সেই রায়চৌধুরী পরিবার কিন্তু বহুবার জানিয়েছেন, আজকের দিনে কালিম্পংয়ের মতো জায়গায় প্রায় প্রাসাদতুল্য ওই দোতলা বাংলো বাড়ির সংস্কার বা রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নিতে তাঁরা অপারগ৷ সরকার যদি চায়, অথবা অন্য কোনো সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান যদি আগ্রহী থাকে গৌরীপুর হাউসকে একটি রবীন্দ্র সংগ্রহশালায় পরিণত করতে, তা হলে তাঁরা সাগ্রহে রাজি আছেন৷ অথবা বাড়িটি একটি হেরিটেজ হোটেলেও রূপান্তরিত করা যায়৷ তা হলেও অন্তত রবীন্দ্রনাথের স্মৃতি বিজড়িত ইমারতটি রক্ষা পায়!

কিন্তু কিছুই হয়নি৷ বিশাল এলাকাজুড়ে বাগান এবং তার গাছগাছালির মাঝে অপরূপ বাড়িটিকে দূর থেকে পুরো ভূতের বাড়ির মতো মনে হয়৷ পিচ বাঁধানো পাকা রাস্তা থেকে গৌরিপুর হাউস পর্যন্ত পৌঁছানোর রাস্তাটিও এবড়োখেবড়ো, রাশি রাশি শুকনো পাতায় ঢাকা৷ চতুর্দিকে এমন আগাছা যে দিনের বেলাতেও সে রাস্তায় হাঁটতে গা ছমছম করে৷ আর বাড়ির সামনে পৌঁছে তার চেহারা দেখলে চোখে জল আসার উপক্রম হয়৷ সদর দরজা বন্ধ কিন্তু বাড়ির প্রায় সব জানালা হয় ভাঙা, নয় দুহাট করে খোলা৷ তার ফাঁক দিয়ে ভিতরে উঁকি মারলে দেখা যায় একেবারে বেবাক খালি, আসবাবহীন, ধুলোয় ঢাকা ঘর৷ রবীন্দ্রনাথের স্মৃতিবিজড়িত কোনো সামগ্রী, কোনো আসবাবপত্র সেখানে থাকার স্রেফ কোনো সম্ভাবনাই নেই!

Häuser in Mungpo

এই বাড়িতে কয়েকবার এসেছিলেন রবীন্দ্রনাথ

ইতিহাসের নির্মম রসিকতাই বলতে হবে, গৌরীপুর হাউসের গায়ে এক খণ্ড মর্মর ফলকে বলা আছে – ‘‘এই ভবনে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাস করিতেন এবং ২৫শে বৈশাখ ১৩৪৫ সনে জন্মদিন কবিতা আকাশবাণীর মাধ্যমে আবৃত্তি করিয়াছিলেন৷'' অর্থাৎ রবীন্দ্রনাথ তাঁর ৮০তম জন্মদিন কাটিয়েছিলেন এই বাড়িতে! এবং তথ্য বলছে, নিজের লেখা জন্মদিন কবিতাটি তিনি টেলিফোনে আবৃত্তি করেছিলেন, যা সরাসরি সম্প্রচার করে অল ইন্ডিয়া রেডিও-র কলকাতা দপ্তর ‘‘আকাশবাণী''৷ কালিম্পংয়ের সঙ্গে কলকাতার টেলিফোন যোগাযোগেরও নাকি সূচনা হয়েছিল সেই সঙ্গে৷ সেই ইতিহাস, সেই গুরুত্ব স্বীকৃতি পেয়েছে ধূলামলিন এক মর্মর ফলকে৷ দায়িত্ববোধের সেখানেই ইতি৷

প্রায় একই অবস্থা হতো কালিম্পংয়ের অদূরে মংপুতে রবীন্দ্রনাথের স্মৃতিধন্য বাড়িটির, যদি না দু'জন মানুষ থাকতেন৷ প্রথমজন হলেন মংপুর শতাব্দীপ্রাচীন সিঙ্কোনা কারখানার এক কর্মী শিশির রাউথ, যিনি প্রায় স্বেচ্ছায় বাড়িটির দেখভাল এবং পাহারার দায়িত্ব নিয়ে রেখেছেন৷ যিনি স্রেফ রবীন্দ্রনাথের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধা এবং আত্মীয়তা থেকে একা হাতে আগলে রেখেছেন এখনও সযত্নে রক্ষিত যাবতীয় রবীন্দ্রস্মৃতি৷

রবীন্দ্রনাথের ঘনিষ্ঠজন অধ্যাপক সুরেন্দ্রনাথ দাশগুপ্তের কন্যা মৈত্রেয়ী দেবী থাকতেন মংপুর এই বাংলো বাড়িতে৷ তাঁর স্বামী মনমোহন সেন ছিলেন মংপুর সিঙ্কোনা কারখানার প্রধান ‘কেমিস্ট'৷ রবীন্দ্রনাথের একান্ত অনুরক্ত এবং গুণগ্রাহী মৈত্রেয়ী দেবীর অনুরোধেই রবীন্দ্রনাথ মংপুর এই বাড়িতে থাকতে আসেন৷ ১৯৩৮ সাল থেকে ১৯৪০ সালের মধ্যে চার বার, প্রতিবার অন্তত মাস দেড়েক-দুয়েকের জন্য রবীন্দ্রনাথ এসে এখানে থাকতেন৷ এখানে তিনি বহু কবিতা-গান লিখেছেন৷ তাঁর বহু স্মৃতি আছে এই বাড়িতে, যা মৈত্রেয়ী দেবী লিখে গিয়েছেন তাঁর ‘‘মংপুতে রবীন্দ্রনাথ'' বইতে৷ এছাড়া আছে রবীন্দ্রনাথের ব্যবহৃত শোওয়ার খাট, লেখার ডেস্ক, রংয়ের প্যালেট, বায়োকেমিক ওযুধের শিশি এবং দুষ্প্রাপ্য বহু ছবি৷ শিশির রাউথ প্রায় একক চেষ্টায় সযত্নে গুছিয়ে রেখেছেন সব, কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ছবিগুলি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে৷ তাদের পুনরুদ্ধারের দায়িত্ব নেওয়ার কেউ নেই!

Häuser in Mungpo

রবীন্দ্রনাথ তাঁর ৮০তম জন্মদিন কাটিয়েছিলেন এই বাড়িতে!

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর উদ্যোগী হয়েছিলেন মংপুর এই ঐতিহাসিক বাংলো বাড়িটি সংস্কারের৷ তাঁর নির্দেশেই বাড়িটির মেরামতি এবং নতুন রং হয়েছিল, বিদ্যুৎ সংযোগ ফিরে এসেছিল৷ এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্ভুল বুঝেছিলেন যে এই বাড়িটি যদি ফের ব্যবহারযোগ্য করে না তোলা যায়, তা হলে আবার এটি জীর্ণ হয়ে পড়বে৷ তিনিই সেই দ্বিতীয় মানুষ, যিনি রবীন্দ্রনাথের স্মৃতিধন্য বাড়িটির রক্ষায় আন্তরিকতা দেখিয়েছেন৷ বছর তিনেক আগে কথা হয়েছিল, রবীন্দ্র গবেষণা কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে বাড়িটিকে৷ স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীরই পরামর্শ ছিল সেটা৷ কিন্তু যথারীতি সরকারি দীর্ঘসূত্রিতায় আটকে গিয়েছে সেই সদিচ্ছা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়