1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘সম্পর্ক হবে দুই দেশের জনগণের মধ্যে'

বাংলাদেশ সফররত ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজকে বাংলাদেশে গণতন্ত্রহীনতার কথা বলেছেন বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া৷ সুষমা স্বরাজ বলেছেন, এই সম্পর্ক হবে দুই দেশের মানুষের মধ্যে, কোনো বিশেষ দলের সঙ্গে নয়৷

সুষমা স্বরাজের সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠক হয় শুক্রবার সকালে ঢাকার একটি হোটেলে৷ খালেদার সঙ্গে বিএনপির সিনিয়র নেতারা ছিলেন৷ এ সময় ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিং ও বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণও উপস্থিত ছিলেন৷ ৪০ মিনিটের এই বৈঠকে খালেদা-সুষমা একান্তে কথা বলেন ১০ মিনিট৷

দুই বছর আগে ২০১২ সালে নতুন দিল্লি সফরের সময়ে সুষমা স্বরাজের সঙ্গে বৈঠক হয়েছিল খালেদার৷ তখন সুষমা ছিলেন লোকসভায় বিরোধী দলীয় নেতা৷

শুক্রবারে ঢাকায় বৈঠকের পর বিএনপি-র দুইজন সিনিয়র নেতা বৈঠকের বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন৷

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘যে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খালেদা জিয়া উল্লেখ করেছেন, তা হলো বাংলাদেশে গণতন্ত্র অনুপস্থিত৷ তথাকথিত সংসদ জনগণের ইচ্ছা প্রতিফলিত করে না৷ বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের দেশ তার প্রতিবেশী দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ দেখতে চায় কিনা, তা আলোচনায় উল্লেখ করা হয়েছে৷''

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী বলেছেন, ‘‘ভারতের নতুন সরকার বাংলাদেশের বিশেষ কোনো দল নয়, জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় বলে দেশটির পররাষ্ট্র খালেদা জিয়াকে জানিয়েছেন৷''

তিনি বলেন, ‘‘বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে৷ খালেদা জিয়া দ্বিপক্ষীয় অমীমাংসিত বিষয়গুলো দ্রুত আলোচনার ভিত্তিতে সমাধান করার ওপর গুরুত্ব দেন৷ জবাবে সুষমা স্বরাজ আশ্বস্ত করেছেন, এ বিষয়ে তাঁদের অগ্রগতি হয়েছে৷ ভারতের ভেতরে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার কাজ চলছে৷''

Sushma Swaraj

সুষমা স্বরাজ (ফাইল ফটো)

তিনি জানান, ‘‘খালেদা জিয়া বৈঠকে সুষমা স্বরাজকে বলেন, ভারতের নির্বাচনের ফলাফলে মানুষের মনে আশা জেগেছে যে, ভারত-বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে নতুন অধ্যায় তারা দেখতে পাবে৷ পারস্পরিক লাভ ও সমমর্যাদার ভিত্তিতে এ সম্পর্ক গড়ে উঠবে৷''

দেশে নতুন নির্বাচন ও সংলাপ নিয়ে কোনো কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে শমসের মবিন বলেন, ‘‘এ বিষয়ে কোনো কথা হয়নি৷ এসব আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়৷ দেশে জনগণই এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে৷''

তিনি বলেন, গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে যে, ‘‘সুষমার সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠকের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার আপত্তি করেছিল৷ এসব আপত্তি অতিক্রম করেও বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ ভারত যে কোনো দল নয়, বাংলাদেশের মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক করতে চায়, এই বৈঠক তারই প্রতিফলন৷''

বৈঠকে বিএনপির চেয়ারপার্সনের সঙ্গে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিন ও রিয়াজ রহমান উপস্থিত ছিলেন৷

বুধবার রাতে তিনদিনের ঢাকা সফরে এসে এর আগে বৃহস্পতিবার সুষমা স্বরাজ রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন৷ আনুষ্ঠানিক বৈঠক হয়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গেও৷

শুক্রবার দুপুরে ঢাকা ছাড়ার আগে সুষমা স্বরাজ সংসদ ভবনে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন৷ তিনি রওশনকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বলে জানা গেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়