1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সমীক্ষার ফলাফল: দারিদ্র্যই হিংসার মূল কারণ

গোটা বিশ্বে কেন এত হিংসা? এর কারণ নিয়ে কী ভাবছে বিশ্বের কিশোর-কিশোরীরা? বিশ্বের ১২টি এনজিও-র এক সংঘ গোটা বিশ্বে এক সমীক্ষা চালিয়ে দেখেছেন যে, ৫০ শতাংশ ভারতীয় বাচ্চা মনে করে দারিদ্র্যই হিংসার মূল কারণ৷

default

ভারতের দিল্লির ছবি এটি

৪৭টি দেশের ১০ থেকে ১২ বছরের ৬,৫০০ কিশোর-কিশোরীদের ওপর এক সমীক্ষা চালিয়ে তাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়, হিংসার কারণ কী? জানতে চাওয়া হয় অন্যান্য আর্থ-সামাজিক ইস্যু সম্পর্কে তাদের মত৷ ভারতের ৫০ শতাংশ বালক-বালিকার মতে, দারিদ্র্য হলো হিংসার উৎসমুখ৷ এছাড়া শিক্ষার অভাব, পারিবারিক নির্যাতন এবং সামাজিক সংঘাতই নাকি সেই হিংসায় ইন্ধন জোগায়, মত এই প্রজন্মের৷ সমীক্ষাটি চালায় ১২টি উন্নয়ন সংস্থার সংঘ ‘দ্য চাইল্ড ফান্ড অ্যালায়েন্স'

বাচ্চাদের সামনে বিভিন্ন বিষয়ে বেশ কিছু প্রশ্ন রাখা হয়৷ যেমন, তারা যদি কখনও সরকারের প্রধান হন তাহলে কীভাবে হিংসার মোকাবিলা করবেন? তাদের উত্তর হিংসা-বিরোধী আইন আরো কঠোর করতে হবে হিংসা দমনে৷

দেখা যায়, ভারতের প্রায় ৪১ শতাংশ কিশোর-কিশোরী হিংসা দমনে কড়া আইনের পক্ষপাতি৷ বিশ্বের ১২ শতাংশ বাচ্চার মত, সরকার প্রধান হলে শিক্ষাকেই তারা দেবে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার৷

Obdachlos Neu Delhi Indien

দিল্লিতে ফুটপাতে ঘুমাচ্ছেন একদল মানুষ

জিজ্ঞাসা করা হয়, কোথায় তারা সবথেকে সুখি ও নিরাপদ বোধ করে? ৪৮ শতাংশ ভারতীয় বাচ্চার উত্তর, স্কুলে তারা সব থেকে বেশি আনন্দবোধ করে ও নিরাপদে থাকে৷ আর ৩৮ শতাংশ মনে করে বাড়িতে৷

তাদের জীবনে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু কী? প্রায় ৮৫ শতাংশ ভারতীয় বাচ্চা একবাক্যে বলে শিক্ষা৷ ভালো শিক্ষাব্যবস্থাই তাদের কাম্য৷ লিঙ্গ-বৈষম্য সম্পর্কে তাদের জোরালো মত, ছেলে-মেয়ের মধ্যে কোনোরকম বৈষম্য মেনে নেয়া যায় না৷ প্রায় ৫২ শতাংশ কিশোর-কিশোরীর মতে, সড়ক পরিবহন ব্যবস্থা উন্নত হওয়া দরকার৷ স্কুলে যাবার পথে যারা মেয়েদের উত্তক্ত করে, দরকার তাদের সঙ্গে সঙ্গে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো৷ সেজন্য দরকার হলে আইন সংশোধনও করতে হবে৷

মধ্য প্রদেশের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ১১ বছরের শ্রাবণ জানায়, সে সরকার প্রধান হলে শিশু নির্যাতনের অপরাধিদের কঠোরতম শাস্তি দিত৷ শ্রাবণ জানায়, তার পরিবারের সাতজন সদস্য কৃষিজীবী৷ তার মতে, হিংসা নিবারণে মদ ও মাদক দ্রব্য বিক্রি নিষিদ্ধ করতে হবে৷ ঐ সব নেশা থেকেই ভারতের মতো দেশে হিংসা জন্ম নেয়৷ ভারতে নিরক্ষরতা এবং নেশা করা হিংসার হাত ধরে চলে৷

India Mahatma Gandhi

ভারতীয় কিশোর-কিশোরীদের অনেকেই মহাত্মা গান্ধীকে হিরো মনে করে

উত্তর প্রদেশের কৌশম্বির ১২ বছরের বালিকা রচনা মনে করে, স্কুলশিক্ষা যেন আনন্দদায়ক হয়৷ তার কথায়, ‘‘আমি যদি দেশের নেত্রী হতাম, তাহলে সব মেয়েদের সাইকেলে চড়ে স্কুলে যাবার ব্যবস্থা করতাম৷ স্কুলে শাস্তি দেবার প্রথা তুলে দিয়ে স্কুলশিক্ষাকে করে তুলতাম আরো আনন্দদায়ক৷ সামাজিক ইস্যুতে রচনা বলে, শিশু শ্রমিক প্রথা একেবারে নিষিদ্ধ করতে হবে৷ নিষিদ্ধ করতে হবে জাতপাত প্রথা৷ এক শ্রেণির ছেলেরা নিজেদের ভাবে সমাজের উঁচু তলার বাসিন্দা৷ নীচু জাতের ছেলে-মেয়েদের দেখে ঘৃণা বা অবজ্ঞার চোখে৷ তাতে সমাজ হয়ে ওঠে বিষাক্ত৷ সেটাই জন্ম দেয় হিংসার৷''

ভারতীয় কিশোর-কিশোরীরা কোন নেতাকে হিরো মনে করে? উত্তরে অনেকেই বলে মহাত্মা গান্ধী আর নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর নাম৷ ভারতে চাইল্ড ফান্ডের কানট্রি ডিরেক্টর ক্যাথারিন মানিক বলেন, এ বছর বিশ্বের বালক-বালিকাদের কাছে সমীক্ষার জিজ্ঞাস্য ছিল, হিংসার কারণ, শান্তি, সুখ, আনন্দ কোথায় পাওয়া যায় এবং তাদের চোখে হিরো কে? উত্তরে উঠে আসে তাদের ছোট্ট জীবনবৃত্তের বাইরে তারা কী ভাবছে, কীভাবে দেখছে সমাজকে৷ কীভাবে চাইছে পৃথিবীটাকে আরো বাসযোগ্য করে তুলতে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়