1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মান নির্বাচন

সমকামী বিবাহ সম্পর্কে মত বদলাবেন ম্যার্কেল?

বার্লিনে এক সাক্ষাৎকারে জার্মান চ্যান্সেলর বলেন যে, তিনি সমকামী বিবাহের বিষয়টিতে ‘বিবেকের সিদ্ধান্ত’ চান৷ সংসদীয় নির্বাচনের তিন মাস আগে এ মন্তব্য করলেন তিনি৷

বার্লিনের গোর্কি থিয়েটারের ঘরোয়া পরিবেশে মঞ্চে বসে জার্মানির সর্বাধিক বিক্রীত নারী বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘ব্রিগিটে’-র দুই সম্পাদিকার প্রশ্নের উত্তর দেন ম্যার্কেল৷ নিজের বাসভবন থেকে গোর্কি থিয়েটার পায়ে হেঁটে মাত্র পাঁচ মিনিটের পথ৷

সাধারণত আঙ্গেলা ম্যার্কেলকে এত খোলাখুলি কথা বলতে দেখা যায় না৷ ফুকুশিমার পর ম্যার্কেল যে রাতারাতি জার্মানিতে পরমাণু শক্তির অবসান ঘটানোর সিদ্ধান্ত নেন, সেটা ছিল তাঁর সবচেয়ে সাহসী সিদ্ধান্ত – বলেন ম্যার্কেল৷ অপরদিকে মিডিয়া যে আজ তাঁর চুলের কেয়ারির চেয়ে তাঁর রাজনীতির প্রতি বেশি মনোযোগী, তাতে সুখি ম্যার্কেল৷

ম্যার্কেল যে রসালো মন্তব্য করতে পারেন, তাঁর যে ‘সেন্স অফ হিউমার’ আছে, তাঁকে যারা ভালোভাবে চেনেন, তারা এ কথা আগেও বলেছেন৷ সোমবারের ৯০ মিনিটের টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে সাধারণ জার্মানরাও ম্যার্কেলের এই দিকটিকে দেখতে ও চিনতে শিখলেন৷ গত ১২ বছর ধরে যিনি জার্মানির চ্যান্সেলর, তাঁকে এরকম অকপটে ও খোলামনে কথা বলতে দেখার সৌভাগ্য সচরাচর এ দেশের মানুষদের হয় না৷

‘‘রাজনীতিতে রস-রসিকতা থাকাটা জরুরি৷ আমি দিনে অন্তত একবার হাসি, নয়তো এ কাজ করতে পারতাম না,’’ বলেন ম্যার্কেল৷ অপরদিকে তিনি কাউকে ‘‘তাঁর ছুটি কেড়ে নিতে দেবেন না,’’ জানান ম্যার্কেল৷

বিশ্বনেতার স্বীকারোক্তি

স্বামীর সঙ্গে কিভাবে প্রথম দেখা হয়েছিল– এ প্রশ্নের উত্তরে ম্যার্কেল বলেন, ‘‘কাজের জায়গায়৷’’ অর্থাৎ এখানে তাঁর কাছ থেকে কোনো রোম্যান্টিক আখ্যান আশা করে লাভ নেই৷ ফিট থাকার জন্য ওয়ার্কআউটের ক্ষেত্রে ম্যার্কেল স্বীকার করেন যে, জগিংয়ের চেয়ে যোগব্যায়ামই তাঁর স্বভাবের সঙ্গে মেলে৷ সাজপোশাক নিয়ে কি তিনি মাথা ঘামান? ম্যার্কেলের উত্তর, ‘‘স্বভাবতই আমি কী পরছি, তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করি, কেননা, আমি আমার সঙ্গীকে লজ্জায় ফেলতে চাই না৷’’

আরো অনেক অজানা বা কম-জানা খুঁটিনাটি তথ্যও জানান ম্যার্কেল৷ তাঁর নিজের কোনো টুইটার অ্যাকাউন্ট নেই, তাঁর মোবাইল ফোনে মাত্র ১০০টি নম্বর স্টোর করা আছে৷ এছাড়া বাড়িতে অতিথি আসার আগে নিজে ওয়াইনের গ্লাসগুলো পরীক্ষা করে দেখেন কোথাও ধুলো লেগে রয়েছে কিনা৷

ভাবলেশহীন?

আবার ট্রাম্পের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের কাহিনি উঠে পড়ে৷ বিশেষ করে সেই অস্বস্তিকর মুহূর্তটি, যখন ম্যার্কেল – ফটোগ্রাফারদের কল্যাণে আরো একবার করমর্দন করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন৷ চ্যান্সেলরের প্রস্তাবে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কোনো প্রতিক্রিয়াই দেখা যায়নি৷ ম্যার্কেল যখন পরে ট্রাম্পকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করেন, তখন ট্রাম্প বলেন যে, তিনি ‘‘এর আগেই বার দুয়েক আমার সঙ্গে করমর্দন করেছেন, বলে তাঁর ধারণা, যা কিনা সত্যি,’’ গোর্কি থিয়েটারে জানান ম্যার্কেল৷

ট্রাম্প কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখানোয় ম্যার্কেলের মুখের ভাব যা হয়েছিল, সেই প্রসঙ্গ উঠলে জার্মান চ্যান্সেলর জানান, তিনি ঐ ধরনের পরিস্থিতিতে নির্বিকার থাকার চেষ্টা ‘ত্যাগ করেছেন’৷ ‘‘আমি ওটা করতে পারি না – স্কুলেও আমার ঐ সমস্যা ছিল,’’ বলেন ম্যার্কেল৷

মিত্র, অমিত্র

ম্যার্কেলকে প্রশ্ন করা হয়, তিনি রাশিয়ার পুটিন বা যুক্তরাষ্ট্রের ট্রাম্পের চেয়ে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ বা ক্যানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সংসর্গে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন কিনা৷ ম্যার্কেল উত্তর দেন, তিনি কারো সঙ্গেই সাক্ষাৎ করতে বা না করতে বেশি বা কম পছন্দ করেন না, বরং সকলের সঙ্গেই যোগাযোগ রেখে চলেন৷

‘‘আমার উল্টোতরফে যিনি রয়েছেন, তিনি কী ভাবছেন বা না ভাবছেন, সেটা বোঝা আমার কাজ,’’ বলেন ম্যার্কেল৷ তবে তিনি স্বীকার করেন যে, ‘উল্টোতরফের’ মানুষজনের ক্ষেত্রেও কিছু কিছু মানুষের সঙ্গ বেশি প্রীতিকর৷

Berlin Brigitte Live Talk mit Angela Merkel

জার্মানির সর্বাধিক বিক্রীত নারী বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘ব্রিগিটে’-কে দেয়া সাক্ষাৎকারে ম্যার্কেল এসব কথা বলেন

‘বিবেকের সিদ্ধান্ত’

সাক্ষাৎকারের শেষে প্রেক্ষাগৃহের দর্শকদের তরফ থেকে প্রশ্নের জন্য মাত্র কয়েক মিনিট সময় ছিল৷ এই সময়ে একজন সমকামী ম্যার্কেলকে সমকামী বিবাহ সম্পর্কে প্রশ্ন করেন৷ তিনি কবে তাঁর রেজিস্টার্ড বা নথিভুক্ত জীবনসঙ্গীকে ‘আমার স্বামী’ বলে সম্বোধন করতে পারবেন? জানতে চান ঐ পুরুষ সমকামী৷

উত্তরে ম্যার্কেল বলেন যে, জার্মান সংসদের বাকি সব দল যে লিঙ্গনির্বিশেষে বিবাহের সপক্ষে, তা তাঁর অজ্ঞাত নয়৷ জার্মান ভোটারদের মধ্যেও সমকামী বিবাহের ব্যাপক সমর্থন আছে৷ রাজনৈতিক বিচারে এরপর একটি বোমা ফাটান ম্যার্কেল, সমকামী বিবাহ নিয়ে বিতর্ক ‘‘বিবেকের সিদ্ধান্তের দিকে এগোবে’’, বলে তাঁর ‘আশা’, বলেন ম্যার্কেল৷

সংসদীয় প্রক্রিয়ার পরিভাষায় এর অর্থ দাঁড়ায়, সমকামী বিবাহ নিয়ে বুন্ডেসটাগে যখন ভোট হবে, তখন কোনো পার্টি হুইপ থাকবে না – অর্থাৎ সংসদসদস্যরা তাঁদের নিজেদের বিবেক অনুযায়ী ভোট দিতে পারবেন৷ সেক্ষেত্রে আর কয়েক মাসের মধ্যেই জার্মানিতে নারী ও নারী, বা পুরুষ ও পুরুষের মধ্যে বিবাহ অনুমোদিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকছে৷

মিশায়েল ক্যুফনার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়