1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

সব উদ্বাস্তুর আঙুলের ছাপ নেওয়ার প্রস্তাব

জার্মানির অভিবাসন সংস্থা আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষগুলোর প্রতি সব উদ্বাস্তুর আঙুলের ছাপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে৷ উদ্দেশ্য হলো, একাধিক পরিচয় ব্যবহার করে বাড়তি সুযোগ-সুবিধা নেওয়ার প্রচেষ্টা রোখা৷

জার্মানির অভিবাসন ও উদ্বাস্তু সংক্রান্ত ফেডারাল কার্যালয় মঙ্গলবার জানায় যে, বর্তমানে জার্মানিতে যত উদ্বাস্তু অবস্থান করছেন, তাঁদের সকলের আঙুলের ছাপ নেওয়ার ডাক দিয়েছে বিএএমএফ৷ এর ফলে ভুয়া পরিচয় দিয়ে আর কেউ বিভিন্ন সরকারি দপ্তর থেকে বাড়তি সুযোগ-সুবিধা আদায় করতে পারবে না৷

এখন থেকে জার্মানির আঞ্চলিক অভিবাসন কার্যালয়গুলিকে উদ্বাস্তুদের আঙুলের ছাপ নিতে হবে বলে বিএএমএফ-এর নতুন প্রধান ইয়ুটা কর্ড এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন৷ ‘‘যাঁরা (এই সব আঞ্চলিক অভিবাসন কার্যালয়ে) নাম লেখাবেন, তাঁদের আঙুলের ছাপ নিয়ে তা একটি কেন্দ্রীয় ডাটাবেস-এর সঙ্গে মিলিয়ে দেখতে হবে,’’ বলেছেন কর্ড৷

গতবছরের হেমন্ত থেকে বিএএমএফ নিজেই নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে উদ্বাস্তুদের আঙুলের ছাপ মিলিয়ে দেখছে এবং ‘‘রাজনৈতিক আশ্রয়ের প্রক্রিয়ায় একাধিক আইডি-র সম্ভাবনা নির্মূল করতে’’ পেরেছে৷ বিএএমএফ-এর কাছে আপাতত প্রায় চার লাখ ত্রিশ হাজার রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন জমেছে৷

গত সোমবার হানোফারের এক ২৫ বছর বয়সি রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীকে ২১ মাসের সাস্পেন্ডেড কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে ২০০ ঘণ্টা সমাজ সেবাও আছে৷ তার বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগ ছিল৷ অভিযুক্ত স্বীকার করেছে যে, সে সাতটি ভিন্ন ভিন্ন নাম নিয়ে জার্মানির একাধিক শহরে সামাজিক সুযোগ-সুবিধা নিয়েছে৷

গত জানুয়ারি মাসে উত্তর জার্মানির ব্রাউনশোয়াইগ শহরে একটি বিশেষ তদন্ত কমিশন বসানো হয়েছে, যার কাজ হবে রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীরা যেভাবে ভুয়া পরিচয় দিয়ে সামাজিক সুযোগ-সুবিধা নিয়ে থাকে, সে ধরনের ৩০০টির বেশি ঘটনার তদন্ত করা৷ শুধুমাত্র লোয়ার স্যাক্সনি রাজ্যেই ৩০ থেকে ৫০ লাখ ইউরো এভাবে জুয়াচুরি করে নেয়া হয়েছে বলে প্রকাশ৷

আরএস/এসি/এসিবি (এএফপি, এনডিআর)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়