1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

সবুজ হারিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল থেকে

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে৷ সবুজ হারিয়ে যেতে বসেছে সেখানে৷ কেন এমন হলো?

The Haors Region in North-east Bangladesh

একদিকে তীব্র তাপপ্রবাহ অন্যদিকে অতিবৃষ্টিতে উত্তরাঞ্চলের প্রকৃতি এখন বিপর্যস্ত

উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে এখন মাঝে মধ্যেই থাকে দেশের সর্বোচ্চ আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা৷ সেই সঙ্গে বৃষ্টিপাতও দেশের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় গেছে কমে৷ তীব্র তাপপ্রবাহ ও কম বৃষ্টিপাতের কারণে জনমনে একটি প্রশ্নই ঘুরে-ফিরে আসছে, আর তা হলো বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে কি মরুকরণ শুরু হয়ে গেছে?

একটা সময় উত্তরের জেলাগুলোতে ছিল ঘন বন৷ ছিল সবুজের খেলা৷ নদী বয়ে যেতো আপন মনে৷ সেই নদীগুলোর অনেকগুলোই এখন প্রাণহীন৷ তারপরেও সেখানকার মানুষ স্বপ্ন দেখছেন সুন্দর এক আবাসভূমির৷ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের করা এক সমীক্ষা প্রতিবেদনে বিগত প্রায় ৫০ বছরের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে নানা তথ্য৷ সেগুলো প্রমাণ করছে শুকিয়ে খাক হতে থাকা উত্তরের জনপদের ভিন্ন চিত্র৷ জলবায়ুর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান তাপমাত্রা৷ ১৯৬২ সালে রাজশাহীতে জানুয়ারি মাসে গড় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস৷ অন্যদিকে ২০০১-০৫ সালের এপ্রিলের গড় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৫.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস৷ সামান্য বৃদ্ধি ঘটেছে৷

আগেই বলছিলাম নদীর কথা৷ বিভিন্ন স্থানে দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন৷ আর এই ভাঙনের কবলে পড়ছেন সিরাজগঞ্জের হাসিনা বেগম৷ জানালেন, নদী ভাঙন তীব্র থেকে তীব্র হচ্ছে৷ এই নদীই কেড়ে নিচ্ছে তাদের সহায় সম্বল৷ নদী যদি কেড়ে নেয় তাদের সব কিছু তাহলে আর কিছুই রইলো না৷ হয়তো সব হারিয়ে তারা হয়ে যাবেন নিঃস্ব৷

হাসিনা বেগমের গ্রামের অধিকাংশ হারিয়ে গেছে নদীতে৷ অনেকে হয়েছে বাস্তুচ্যুত৷ এক কথায় যাদের বলা হয় জলবায়ু শরণার্থী৷ তবুও তারা স্বপ্ন দেখছেন৷ কিছু বেসরকারি সংগঠন এই সকল মানুষকে দিচ্ছে সহায়তা৷ হাসিনা বেগমের কথায়, ‘‘সহযোগিতা পেয়ে হয়তো আমরা একটু নিজ পায়ে দাঁড়াতে পারবে৷ কিন্তু নদী যেভাবে ভূমি খেঁকো হয়ে পড়েছে তাতে আমরা চিন্তিত৷ তারপরেও নদী যদি থেমে যায়, শান্ত হয়, তাহলে আমাদের মুখে হাসি ফুটবে৷ আমার বাচ্চারা যেতে পারবে স্কুলে৷''

ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে বছরের প্রায় অর্ধেক সময় মাঝে মধ্যেই শুষ্ক প্রায় অবস্থা বিরাজ করে৷ নিবিড় চাষাবাদের বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় ভূমি অবক্ষয়ের মাধ্যমে মাটির উর্বরতা হারিয়ে মরুকরণের মতো ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি হতে পারে, এ কথাও বলছেন বিশেষজ্ঞরা৷

আজ তাই বাংলাদেশের অন্যান্য জেলার মতো উত্তরের জেলাগুলোতেও গড়ে উঠেছে দুর্যোগ মোকাবিলা কমিটি৷ গ্রাম পর্যায়ে এই সব কমিটির প্রধান করা হয়েছে নারীদের৷ এমনই একজন পাবনার মোসাম্মৎ হুরমতি৷ বাড়ির কাজের পাশাপাশি স্থানীয় এক এনজিওর হয়ে তিনি রাস্তাঘাট মেরামতের কাজ করেন৷ হুরমতির কথায়, এখন সজাগ থাকার সময় সকলের৷

জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবের কারণে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের শস্যভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত বিশাল বরেন্দ্র অঞ্চলে আশঙ্কাজনক হারে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে গেছে৷ রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও নওগাঁ জেলার ২৫টি উপজেলা নিয়ে গঠিত বিশাল বরেন্দ্র অঞ্চলে মাত্র পাঁচ বছরের ব্যবধানে বৃষ্টিপাত কমে গেছে হাজার মিলিমিটারেরও বেশি৷ ফলে মরুপ্রক্রিয়ার দিকে এগিয়ে যাওয়া বরেন্দ্র অঞ্চলে বর্ষার ভরা মৌসুমেও স্বাভাবিক বৃষ্টি না হওয়ায় সেচনির্ভর হয়ে পড়েছে চাষাবাদ৷ এক সময় বরেন্দ্র অঞ্চল ছিল পর্যাপ্ত গাছপালা ও ঝোপঝাড় সমৃদ্ধ৷ এগুলো এখন প্রায় নিঃশেষ৷ দিন দিন বিপর্যয়ের মুখে পড়ছে এ অঞ্চলের জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ৷ তাই এখনই সময় এই পরিবেশ, এই পৃথিবী, এই মানব সম্প্রদায়ের জন্য কিছু একটা করার৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন