1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সবার প্রিয় মিকি মাউস

টেলিভিশন দেখেন অথচ মিকি মাউস কোনোদিন দেখেননি এমন মানুষ কি আছে কোথাও? তাঁরা কি প্রাণ খুলে হাসতে পারেন? নির্মল আনন্দের জন্য ছেলে-বুড়ো সবার কাছে মিকি মাউসের চেয়ে বেশি প্রিয় বেশি কিছু কি আছে পৃথিবীতে?

ওয়াল্ট ডিজনির কালোত্তীর্ণ সৃষ্টি ‘মিকি মাউস'৷ ১৯২৮ সালে প্রথম আত্মপ্রকাশ কার্টুন জগতের এই নায়কের৷ ৮৭ বছরে জনপ্রিয়তা একটুও কমেনি৷ পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তে প্রতি দিন এখনো কোটি কোটি মানুষ মিকি মাউস দেখে প্রাণ খুলে হাসে, অপার আনন্দে ভাসে৷

মিকি মাউস নিয়ে কেন এত হাসাহাসি? ওয়াল্ট ডিজনি বলেছিলেন, মিকিও স্বভাবে মানুষের মতো আর তাই নাকি সবাই মিকি মাউস দেখে এত হাসে৷ ডিজনির মতে, মানুষের মতো হয়ে মানুষের মনে মিশে যায় বলেই মিকি মাউস এত জনপ্রিয়৷

ইউটিউবের এই ভিডিওটি মিকি মাউসের তুমুল জনপ্রিয়তারই ছোট্ট একটা নিদর্শন৷ তিন বছর আগে আপলোড করা হয় ‘মিকি মাউস ক্লাব হাউস'-এর ৪ মিনিট ১৮ সেকেণ্ডের এই এই ভিডিও৷ এ পর্যন্ত ৬ কোটি ৮৮ লক্ষ ৪১ হাজার ১৫৩ বার দেখা হয়্ছেে ভিডিওটি৷

সবাই যে শুধু মজা করার জন্য দেখেছেন বা ঘরের ছোটমনিদের দেখিয়েছেন তা-ও কিন্তু নয়৷ মিকি মাউস এখন শিশুর বিকাশ এবং শিক্ষার ক্ষেত্রেও খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে৷ মিকি মাউস ক্লাবহাউসে তো প্রতিটি পর্বে শিশুদের বিভিন্ন বয়সের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সমাধানে সহায়তা করা হয়৷ ইঁদুর মহানায়ক মিকি, ইঁদুর নায়িকা মিনি, হাঁসরাজ ডোনাল্ড ডাক আর তাঁর প্রেমিকা ডেইজি ডাক-এর নানান কাণ্ডকীর্তির পরতে পরতেই তো থাকে হাসি৷ হাসতে হাসতে অনেক কিছু শিখেও নেয় শিশুরা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন