1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সবচেয়ে বেশি ‘ক্রীতদাস' ভারতে, বাংলাদেশ চতুর্থ স্থানে

বিশ্বের প্রায় ৪ কোটি ৬০ লক্ষ মানুষ এখনো দাসত্বের শৃঙ্খলে৷ ‘আধুনিক ক্রীতদাস' সবচেয়ে বেশি ভারতে৷ তবে জনসংখ্যার আনুপাতে সবচেয়ে বেশি উত্তর কোরিয়ায়৷ বাংলাদেশেও এমন মানুষ আছে প্রায় ১৫ লাখ৷ এক গবেষণা জানাচ্ছে এসব তথ্য৷

অস্ট্রেলিয়া-ভিত্তিক ‘ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশন' জানিয়েছে, গোটা বিশ্বে ৪৬ মিলিয়ন মানুষকে জোর করে শ্রমিক, যৌনকর্মী কিংবা দাসের মতো কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে৷ ‘২০১৬ বৈশ্বিক দাসত্ব ইনডেক্স' প্রকাশ করা হয় মঙ্গলবার, সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, আগে যতটা ধারণা করা হয়েছিল, তারচেয়ে অনেক বেশি মানুষ এখনো দাসত্বের শিকার, আর তাদের দুই-তৃতীয়াংশের বাস এশিয়াতে৷

ইনডেক্সে ‘আধুনিক দাসত্ব' বলতে বোঝানো হয়েছে মানব পাচার, জোরপূর্বক শ্রম, ঋন দাসত্ব, ‘সেক্স ট্রাফিকিং', জোরপূর্বক বিবাহ এবং এধরনের অন্যান্য কর্মকাণ্ডকে৷

ইনডেক্স অনুযায়ী, ভারতে সংখ্যার হিসেবে সবচেয়ে বেশি, প্রায় ঊনিশ মিলিয়ন মানুষ এখনো‘আধুনিক দাসত্বের' শিকলে বন্দি৷ তারপরে রয়েছে যথাক্রমে চীন, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং উজবেকিস্তানের নাম৷ বাংলাদেশে দাসত্বের শিকার দেড় মিলিয়নের মতো মানুষ৷

ভিডিও দেখুন 04:10

তবে জনসংখ্যার আনুপাতিক হারে সবার উপরে রয়েছে উত্তর কোরিয়া৷ দেশটির ৪.৩৭ শতাংশ মানুষ এ যুগেও প্রায় ‘দাস' হিসেবে কাজ করছেন৷ ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশনের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, উত্তর কোরিয়া আধুনিক দাসত্ব প্রতিরোধে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না, বরং রাষ্ট্র এ ধরনের কাজকে একরকম অনুমোদনই দিচ্ছে৷

তালিকায় থাকা ১৬৭টি দেশের সবকটিতে আধুনিক দাসত্বের প্রমাণ পাওয়া গেছে৷ তবে ইউরোপের অবস্থান তালিকার একেবারে নীচের দিকে৷ প্রতিবেদনে অবশ্য জানানো হয়েছে, জোরপূর্বক কাজ এবং যৌনশোষণের উৎস ও গন্তব্য ছিল ইউরোপ৷

উল্লেখ্য, ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশনের প্রতিবেদনের সঙ্গে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংগঠনের হিসেব ঠিক মিলছে না৷ তাদের হিসেবে, বিশ্বে দাসত্বের শিকার মানুষের সংখ্যা ২১ মিলিয়ন৷

এআই / এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন