1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

সন্ত্রাসের দায়ে জার্মানির ‘নাৎসি ওঝা'

কিংবদন্তির রাজা আর্থারের জাদুকর মার্লিন নাকি তাঁর মামা, এমন দাবি করতেও শোনা গেছে ৬২ বছর বয়সের বুর্গহার্ড বি.-কে৷ পুলিশকর্মীদের উপর আক্রমণের পরিকল্পনার দায়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাঁকে৷

৬২ বছর বয়স্ক বুর্গহার্ড বি.

বুরহার্ড বি.

বুর্গহার্ডের লম্বা দাড়ি, আলখাল্লা, হাতের লাঠি আর সাজগোজ সত্যিই জাদুকর মার্লিনের কথা মনে পড়িয়ে দেয়৷ বুর্গহার্ড নিজেকে বলেন ‘ড্রুইড', অর্থাৎ প্রাচীন গল, আইরিশ ও কেল্ট-দের সেই সব পুরোহিত, যাদের নানা ধরনের যাদুকরি ক্ষমতা ছিল, বলে লোকে ধরে নিতো৷

জার্মানিতে প্রাক-খ্রিষ্টীয় প্রথা-প্রকরণ, আচার-আচরণ সম্পর্কে আগ্রহ, এমনকি উৎসাহ নতুন কিছু নয়৷ কাজেই নব্য ড্রুইডিজমে আশ্চর্য হবার কিছু নেই৷ নতুন হলো এই ‘পাগান' বা অখ্রিষ্টীয়, আধিভৌতিক ধ্যান-ধারণার সঙ্গে নব্য নাৎসিবাদের যোগ৷

তাঁর নিজের ড্রুইড নাম হলো বুর্গোস ফন বুকোনিয়া, বলেন বুর্গহার্ড৷ গত বুধবার পুলিশ জার্মানি জুড়ে মোট ১২টি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে যে সাতজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে, তাদের মধ্যে এই বুর্গোস ফন বুকোনিয়াও ছিলেন৷ ধৃত ব্যক্তিরা পুলিশ কর্মকর্তা, রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী এবং ইহুদিদের উপর আক্রমণ চালানোর পরিকল্পনা করছিল, বলে দৃশ্যত পুলিশের কাছে খবর ছিল৷ তল্লাসিতে বেশ কিছু আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলিবারুদ পাওয়া গিয়েছে, বলে বিভিন্ন মিডিয়া জানিয়েছে৷

ড্রুইডের ফেসবুক পেজ

নব্য ড্রুইডবাদ একটি অখ্রিষ্টীয় আধ্যাত্মিক গোষ্ঠী যারা প্রকৃতির উপাসনা করে ও যাবতীয় প্রাণীকে শ্রদ্ধা করে, বলে শোনা যায়৷ বুর্গহার্ডের ফেসবুক পেজ দেখলে কিন্তু তা মনে হবে না৷ তিনি যে ইহুদি, মুসলিম, উদ্বাস্তু ও ‘‘নোংরা বামপন্থি, যাদের মগজ কাজ করে না'', এমন সব মানুষদের পছন্দ করেন না, তার স্পষ্ট আভাস পাওয়া যায়৷

‘‘কবে সব নাগরিকরা বুঝতে পারবেন, যে ইইউ-এর পতাকায় ইসরায়েলের ১২টি তারার অর্থ তাদের (ইইউ নাগরিকদের) ধ্বংস?'' বুর্গহার্ড এই পোস্টটি করেছেন ২০১৫ সালের ১০ই আগস্ট তারিখে৷ এক বছর পরের একটি পোস্টে বলা হয়েছে: ‘‘ইহুদি-বিদ্বেষী হলো সে, যে তার চিন্তাকে নিষিদ্ধ হতে দিতে চায় না''৷

শুধু ফেসবুক নয়, রুশ সোশ্যাল মিডিয়া সাইট ভিকে-তে বুর্গহার্ডের বিভিন্ন ঘোষণা থেকে বোঝা যায় যে, তিনি তথাকথিত ‘‘রাইখসবুর্গার'' বা হিটলারের তৃতীয় রাইখ বা সাম্রাজ্যের ‘নাগরিকদের' মতোই বর্তমান জার্মান রাষ্ট্রের কর্তৃত্বে বিশ্বাস করেন না৷

জাদুকর থেকে নাৎসি ড্রুইড

গোড়া থেকেই চরম দক্ষিণপন্থি মতাদর্শের অনুগামী ছিলেন না বু্র্গহার্ড৷ ২০০৮ সালে বাভেরিয়ার সরকারি টেলিভিশনে তাঁকে বলতে শোনা গেছে যে, তাঁর জন্ম ২,৫০০ বছর আগের এক ‘‘অতীব ঠান্ডা শীতের রাত্রে''৷ তাঁর মা নাকি বুর্গহার্ডকে জন্ম দেবার সময়েই প্রাণত্যাগ করেন, তাই বুর্গহার্ডের মামা মার্লিন – অর্থাৎ রাজা আর্থারের জাদুকর মার্লিন বুর্গহার্ডকে মানুষ করেছেন৷

২০১২ সালে বুর্গহার্ডকে একটি ‘‘প্রস্তরবৃত্ত সমিতি'' থেকে বহিষ্কার করা হয়: জার্মানির পশ্চিমাঞ্চলের ব্র্যুল শহরের এই সংঘটির সভাপতি চিলেন বুর্গহার্ড৷ কিন্তু তিনি একটি মসজিদ পোড়ানোর ঘটনায় উল্লাস প্রকাশ করায়, এবং ইউরোপে যে ‘‘তিনটি প্রধান ধর্মমতের'' স্থান আছে, তা অস্বীকার করার দরুণ বুর্গহার্ডকে সমিতি থেকে বহিষ্কার করা হয়৷ একটি প্রেস রিলিজে প্রদত্ত উদ্ধৃতি অনুযায়ী বুর্গহার্ড সে-সময় বলেছিলেন যে, ‘‘মরুভূমির ধর্মমতগুলির মরুভূমিতেই থাকা উচিত''৷ ২০১৩ সালে বুর্গহার্ড ফ্রাংকফুর্টে ‘‘ব্লকুপাই'' আন্দোলনকারীদের ছবি তুলে পরে তা ফেসবুকে পোস্ট করেন৷ ২০১৫ সালে তিনি ফ্রাংকফুর্টে পেগিডা আন্দোলনের একটি মিছিলে অংশগ্রহণ করেন৷

বুর্গহার্ড বি.-র দৃষ্টান্ত আরো একটি প্রমাণ যে, জার্মানিতে সহিংসতাপ্রবণ চরম দক্ষিণপন্থি বলতেই যে শুধু কিছু স্কিনহেড আর নিও-নাৎসিকে বোঝাবে, তার কোনো মানে নেই৷ জার্মানিতে চরম দক্ষিণপন্থি মনোভাব আরো অনেক বিস্তৃত এবং বহু মানুষের মনে গভীরভাবে গাঁথা – যেমন আমাদেউ আন্তোনিও ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা মারিয়ুস হেলভিগ ডয়চে ভেলেকে বলেছেন৷ নব্য নাৎসিদের বহিরাগত বিদ্বেষের শিকার এক আফ্রিকান তরুণের নামে সৃষ্ট এই নিধি জার্মানিতে চরম দক্ষিণপন্থি কার্যকলাপের উপর নজর রাখে৷

বেন নাইট/এসি

জার্মানির ‘নাৎসি ওঝা'-র এ গল্প আপনাদের কেমন লাগলো? লিখুন নীচে, মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন