1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সন্ত্রাসের আশঙ্কায় আংকারায় জার্মান দূতাবাস বন্ধ

বৃহস্পতিবার ইস্তানবুলের জার্মান কনস্যুলেট ও স্কুলও বন্ধ রাখা হয় একই কারণে৷ অপরদিকে এদিন ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষবৈঠকে তুরস্কের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা৷ বিষয়: উদ্বাস্তু সংকট৷

ইস্তানবুল কনস্যুলেট থেকে প্রকাশিত একটি ই-মেলে জার্মান নাগরিকদের সংশ্লিষ্ট এলাকা থেকে দূরে থাকতে বলা হয়েছে৷ কনস্যুলেটটি ইস্তানবুলের টাকসিম চত্বরের কাছে; জার্মান স্কুলটি তার প্রায় এক মাইল দূরে৷

অপরদিকে জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে যে, আংকারায় জার্মান দূতাবাস নিরাপত্তাজনিত সাবধানতার কারণে বন্ধ থাকছে৷ কী ধরনের সাবধান বার্তা পাওয়া গেছে, সে বিষয়ে দূতাবাস কিছু জানায়নি৷ দৃশ্যত তা নিয়ে এখনও খোঁজখবর ও তদন্ত চলেছে৷

যে জার্মান স্কুলটা বন্ধ

হামলার আশঙ্কায় বন্ধ ঘোষণার পর সবাই ইস্তানবুলের জার্মান স্কুল ছেড়ে যাচ্ছেন

আংকারার গাড়িবোমা

অপরদিকে গত রবিবার আংকারায় যে গাড়িবোমা আক্রমণে ৩৭ জন প্রাণ হারায়, ‘কুর্দিস্তানের স্বাধীনতার বাজপাখি' বা টিএকে নামধারী একটি জঙ্গিগোষ্ঠী তার জন্য নিজেদের দায়ী বলে ঘোষণা করেছে৷ একটি অনলাইন পোস্টিংও টিএকে বলেছে যে, তাদের বেসামরিক ব্যক্তিদের হত্যা করার অভিপ্রায় ছিল না; বরং তারা তুর্কি নিরাপত্তা বাহিনীর উপর আক্রণ চালাতে চেয়েছিল৷ পুলিশ হস্তক্ষেপ করার পরে নাকি বহু বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হন, যদিও টিএকে-র বিবৃতিতে যোগাযোগটা স্পষ্ট করে দেওয়া হয়নি৷ টিএকে বলে থাকে যে, তারা নিষিদ্ধ কুর্দিস্তান শ্রমিক দল পিকেকে থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছে, কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে উভয় গোষ্ঠীর মধ্যে পূর্বাপর সংযোগ আছে৷

Infografik Karte Türkei Anschläge seit 2015 ENGLISCH

২০১৫ সালের পর থেকে যে সব হামলা হয়েছে তুরস্কে

‘ডের স্পিগেল' পত্রিকার তুরস্ক প্রতিনিধি

জার্মানির প্রখ্যাত সংবাদ-সাপ্তাহিকী ‘ডের স্পিগেল'-এর প্রতিনিধি হাসনাইন কাজিম তিন মাস ধরে তাঁর প্রেস আইডি-র মেয়াদ বাড়ানোর জন্য অপেক্ষা করার পর অবশেষে বৃহস্পতিবার তুরস্ক পরিত্যাগ করেছেন৷ জার্মান কূটনীতিকরা কাজিম ও তাঁর পরিবারকে বিমানবন্দর অবধি নিয়ে যান, যাতে তিনি বিনা বিপত্তিতে যাত্রা করতে পারেন৷

এর্দোয়ানের কাছে সন্ত্রাস রোখা গণতন্ত্রের চেয়ে বেশি জরুরি

ওদিকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়িপ এর্দোয়ান ঘোষণা করেছেন যে, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম এখন তুরস্কের কাছে সবচেয়ে জরুরি; এর স্থান গণতন্ত্র, ব্যক্তিস্বাধীনতা বা আইনের শাসনেরও ওপরে৷ তুরস্ক সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ‘‘লৌহমুষ্টি'' প্রয়োগ করবে বলে এর্দোয়ান বুধবার প্রাদেশিক জেলা পর্যায়ের নেতাদের একটি সম্মেলনে মন্তব্য করেন৷ এ নিয়ে লন্ডনের ‘দ্য ইকনমিস্ট' পত্রিকায় সঙ্গে সঙ্গে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশিত হয়েছে: সেখানে এর্দোয়ান ডাক্তারকে বলছেন, ‘এই লৌহমুষ্টি আরো বড় করা যায় না?'

যুগপৎ তিনি কুর্দি-সমর্থক পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি বা এইচডিপি দলেরও সমালোচনা করেন - যাদের সংসদে ৮০টি আসন আছে৷ মিডিয়ায় যারা ‘সহিংস কার্যকলাপের সমর্থন বা প্রশংসা করেন', তাদেরও ‘সন্ত্রাসী অপরাধের' আওতায় আনার কথা ভাবছে এর্দোয়ানের একেপি দল৷

অথচ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল ইউরোপীয় পর্যায়ে চলতি উদ্বাস্তু সংকট সমাধানের যে পন্থার কথা ভাবছেন, তা তুরস্কের সহযোগিতা ছাড়া সম্ভব নয়৷ যুগপৎ এর্দোয়ানের দমন নীতি ম্যার্কেলের পক্ষে বিড়ম্বনা হয়ে দাঁড়াচ্ছে৷ ম্যার্কেল সম্প্রতি সংসদে বলেছেন যে, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হলো এমন একটি বিষয় যা নিয়ে জার্মানির তুরস্কের সঙ্গে আলোচনা করা প্রয়োজন৷

এসি/এসিবি (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন