1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

সত্যিই কি বহিরাগতদের স্বর্গ জার্মানি?

ওইসিডি-র সর্বাধুনিক জরিপ অনুযায়ী জার্মানি যেভাবে বিদেশি-বহিরাগতদের টানছে, শিল্পোন্নত দেশগুলির মধ্যে আর কোনো দেশ একেবারেই সেইভাবে টানছে না৷ কিন্তু অবাক করার বিষয়, তাদের মধ্যে অনেকেরই স্বপ্নভঙ্গ হতে খুব বেশি দেরি হচ্ছে না৷

ইউরোপীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংগঠন ওইসিডি গত সপ্তাহে বার্লিনে যে রিপোর্ট পেশ করে, তার বিষয়বস্তু হলো ২০১১ সালে জার্মানিতে বহিরাগতদের আগমন৷ দেখা যাচ্ছে, সেই অভিবাসন ২০১১ সালে ২০১০ সালের তুলনায় লক্ষণীয়ভাবে বাড়ে, বিশেষত দক্ষিণ ইউরোপের সংকটপীড়িত দেশগুলি থেকে৷ আবার এ-ও দেখা যাচ্ছে যে, হবু অভিবাসীদের অনেকেই স্বল্পসময়ের মধ্যেই জার্মানি থেকে বাস তুলে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেছেন৷

কোনো দেশে উদ্বাস্তু-বহিরাগতদের স্রোত বহু উপাদানের উপর নির্ভর করে, যার মধ্যে দেশটির ভৌগোলিক অবস্থান থেকে শুরু করে তার অভিবাসন সংক্রান্ত নিয়মাবলী, অনেক কিছু পড়ে৷ কাজেই অভিবাসনের ক্ষেত্রে ২০১১ সালে জার্মানি যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, ব্রিটেন ও ইটালির পরেই পঞ্চম স্থানে ছিল, তার কিছুটা টিকার প্রয়োজন৷

Indische Studenten auf dem Weg nach Deutschland Archivbild 2012

বহিরাগতদের স্বর্গ জার্মানি?

সংকট ও সমৃদ্ধি

২০১১ সালে জার্মানিতে আসেন প্রায় তিন লাখ বহিরাগত৷ কিন্তু ইউরোপের সংকটপীড়িত দেশগুলি থেকে যে দু'লাখ পঁচাত্তর হাজার মানুষ অন্যত্র জীবিকার সন্ধানে যান, তাদের এক-তৃতীয়াংশ ব্রিটেনে যান বটে, কিন্তু তার পরেই জার্মানিতে আসেন মোট ৭৮ হাজার ভাগ্যসন্ধানী৷ এই সব মানুষেরা আসেন দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলি এবং সেই সঙ্গে আইসল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ড থেকে৷

কার্য-কারণ

২০০৭ সাল থেকে ২০১১ সালের মধ্যে গ্রিস ও স্পেন থেকে জার্মানিতে অভিবাসনের পরিমাণ বাড়ে যথাক্রমে ৭৩ শতাংশ এবং ৫০ শতাংশ৷ পর্তুগাল ও ইটালি থেকে জার্মানিতে অভিবাসন বাড়ে গড়ে ৩৫ শতাংশ৷ কিন্তু কাহিনির এখানেই শেষ নয়: ওইসিডি-র সমীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছে যে সংকটপীড়িত দেশগুলি থেকে আগত অনেকেই কিছুদিনের মধ্যেই আবার জার্মানি পরিত্যাগ করেন৷ বিগত কয়েক বছরে গ্রিকদের অর্ধেক এবং স্পেনীয়দের দুই-তৃতীয়াংশ এক বছরের বেশি জার্মানিতে টিঁকতে পারেননি৷

জার্মান কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এ বিষয়ে কোনো লুকোছাপা করা হয়নি যে, তারা উচ্চশিক্ষিত, বিশেষ যোগ্যতাসম্পন্ন ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বহিরাগতদের এদেশে আনতে ইচ্ছুক, এমনকি উদগ্রীব৷ তার একটা কারণ সম্ভবত এই যে, বহির্বিশ্বে জার্মান কনস্যুলেটগুলিতে অভিবাসন সংক্রান্ত কোনো বিশেষজ্ঞ নেই৷ অপরদিকে জার্মানিতে তাদের সুদূর ভবিষ্যতে অবসরভাতা বেশি হবে কি কম হবে, তা নিয়ে বহিরাগতরা সূচনায় স্বভাবতই চিন্তিত নন, যেমন তারা চিন্তিত তারা কম বেকার ভাতা পাবেন বলে৷ কিন্তু সেটাও তাদের পুনরায় জার্মানি পরিত্যাগ করার মূল কারণ নয় বলে ধরে নেওয়া যায়৷

আসলে আন্তঃ-ইউরোপীয় অভিবাসনকে শুধু দু'টি দেশের মধ্যে আর্থ-সামাজিক ফারাক দিয়েই নয়, সাংস্কৃতিক পার্থক্য দিয়েও বিচার করতে হবে৷ ইউরোপ অ্যামেরিকা নয়৷ ইউরোপ আজও জাতিভিত্তিক৷ এখানে প্রতিটি দেশের নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি, জীবনধারা আছে৷ একদিকে যেমন পাওয়ার মতো জীবিকা, নিরাপত্তা, অন্যদিকে তেমন হারানোর মতোও অনেক কিছু আছে৷ আর বার্লিন থেকে এথেন্স অথবা মাদ্রিদ তো খুব বেশি দূরে নয়!

এসি/ডিজি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়