1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সংসদে ফেরা যাবে না এখন: খালেদা

মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে বিরোধী নেত্রী জানালেন, সংসদে ফেরার মত পরিবেশ তৈরি হয়নি৷ এদিকে ঈদের বোনাস নতুন বেতন কাঠামোয় মিলবে না বলে জানিয়ে দিল বিজিএমইএ৷ আজকের পত্রপত্রিকার খবর৷

খালেদা জিয়া, বাংলাদেশ,সংসদ, বিএনপি, মার্কিন, অ্যামেরিকা, রাষ্ট্রদূত,USA, Bangladesh, US Ambassafor, Khaleda Zia, Bangladesh

মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠক করলেন খালেদা জিয়া (ফাইল ছবি)

‘সংসদে ফেরার মত পরিবেশ তৈরি হয়নি', বললেন খালেদা

সংসদে বিরোধী দলের ফেরার পরিবেশ এখনো সৃষ্টি হয়নি বলে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত জেমস এফ মরিয়ার্টিকে বলেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া৷ মরিয়ার্টি মঙ্গলবার বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের কার্যালয়ে গিয়ে খালেদার সঙ্গে বৈঠক করেন৷ দুদিন আগেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন যুক্তরাষ্ট্রের দূত৷ বৈঠকের পর জেমস এফ মরিয়ার্টি সাংবাদিকদের বলেন, বিরোধী দলীয় নেত্রী বলেছেন, সংসদে সরকার ও বিরোধী দলের এক সঙ্গে কাজ করা উচিৎ বলে তিনি মনে করেন৷ আগামীতে সংসদে তিনি তাঁর ভূমিকা রাখবেন৷ সংসদ কার্যকর করতে সরকার ও বিরোধী দলের এক সঙ্গে কাজ করা উচিৎ বলে মন্তব্য করেন রাষ্ট্রদূত৷ সন্ধ্যা ৭টা থেকে ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে খালেদা আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক ও দ্বি-পাক্ষিক বিষয় নিয়ে মরিয়ার্টির সঙ্গে আলোচনা করেন৷

ঈদের বোনাস পুরানো বেতন কাঠামোতেই

চলতি নভেম্বর মাস থেকে শ্রমিকদের নতুন মজুরি কাঠামো বাস্তবায়নের কথা থাকলেও নতুন কাঠামো মেনে এই ঈদের বোনাস দেওয়া হবে না বলে জানালেন পোশাক শিল্প মালিকরা৷ তৈরি পোশাক রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ-র সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বলেন, নভেম্বর থেকে পোশাক শ্রমিকদের নতুন বেতন কাঠামো চালুর কথা রয়েছে৷ সে অনুযায়ী ডিসেম্বর মাসেই নতুন কাঠামো অনুসরণ করে নভেম্বর মাসের বেতন ও অন্যান্য পাওনা পাবেন শ্রমিকরা৷ তবে বিদ্যমান পুরনো বেতন কাঠামোতেই যাবতীয় পাওনা পাবে আসন্ন ঈদে, বলেন মুর্শেদী৷ পোশাক শ্রমিকরা নতুন কাঠামোয় আসন্ন ঈদুল আজহার বোনাস দাবি করে আসছে৷ এ নিয়ে গাজীপুরের কয়েকটি কারখানায় গত এক সপ্তাহে বিক্ষোভ-ভাঙচুর হয়৷

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতি

দৈনিক কালের কন্ঠ তাদের বিশেষ অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের দুর্নীতির খবর ছেপেছে৷ বলা হয়েছে, রাজস্ব বোর্ড বা এনবিআর-এ দ্বিতীয় শ্রেণীর গেজেটেড কর্মকর্তা পদ বা কর পরিদর্শকের দায়িত্ব পালন করছেন ৯৩ জন তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী৷ অথচ তাঁদের নিয়োগের ক্ষেত্রে অনুসরণ করা হয়নি নিয়োগ বিধিমালা৷ অনুমোদন নেওয়া হয়নি পাবলিক সার্ভিস কমিশনেরও (পিএসসি)৷ নিয়োগসংক্রান্ত বিজ্ঞাপনে অস্থায়ী ভিত্তিতে চলতি দায়িত্বের কথা উল্লেখ করে কৌশলে এসব নিয়োগকে বৈধতা দেওয়ার চেষ্টা করেছে কর্তৃপক্ষ৷ অভিযোগ উঠেছে, এই নিয়োগের পেছনে অন্তত দুই কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে৷ এই অবৈধ নিয়োগের পর প্রায় পাঁচ মাস চলে গেলেও এসব পদে স্থায়ী নিয়োগের কোনো উদ্যোগ না নেওয়ায় ফাঁস হয়ে যায় কর্তৃপক্ষের অসৎ উদ্দেশ্য৷ কর পরিদর্শক পদের চলতি দায়িত্বে রেখেই কর্মচারীদের অবসরোত্তর ছুটি পর্যন্ত টেনে নেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে জানা গেছে৷

গ্রন্থনা : সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা: ফাহমিদা সুলতানা