1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে

সংসদ নির্বাচনের পর বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র৷ দেশটি হামলা বন্ধে বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতাদের উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে৷

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র জেন সাকি নিয়মিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এই উদ্বেগের কথা জানান৷ তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশে নির্বাচনের পর সংখ্যালঘু, বিশেষ করে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলায় আমরা হতাশ৷ আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি৷'' হামলা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘যারা ক্ষমতায় আছেন এবং যারা ক্ষমতা প্রত্যাশী – দুই দলের পক্ষেই সম্ভাব্য সবকিছু করতে হবে হামলা ঠেকাতে, বিশেষ করে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর আক্রমণ প্রতিরোধে৷''

অন্যদিকে ‘রুখে দাড়াও বাংলাদেশ'এর ব্যানারে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা সংখ্যালঘু নির্যাতনের এলাকা পরিদর্শন করে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করছেন৷ তাঁরা নির্যাতিতদের সঙ্গে কথা বলছেন, কথা বলছেন সাধারণ মানুষের সঙ্গে৷ এই নাগরিক সমাজের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মানবাধিকার নেত্রী অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল৷ তাঁর সঙ্গে আছেন শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, সাংবাদিক আবেদ খান সহ আরো অনেকে৷ আবেদ খান ডয়চে ভেলেকে জানান, তাঁরা ইতিমধ্যেই সাতক্ষীরা, যশোর, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, মাগুরা, নাটোরসহ আরো কয়েকটি এলাকায় গিয়েছেন৷

সর্বশেষ তাঁরা বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের কর্ণাই গ্রামে যান৷ সেখানে তাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দেখেন, কথা বলেন নির্যাতিত ও ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে৷

তিনি জানান, তাঁরা দেখেছেন সংখ্যালঘুরা হামলার পরও চরম আতঙ্কের মধ্যে আছেন৷ শত শত পরিবার সব হারিয়ে বলতে গেলে এখন নিঃস্ব৷ আর নির্বাচন বিরোধীরাই অধিকাংশ জায়গায় তাদের ওপর হামলা চালিয়েছে৷ পরিস্থিতি এমন যে তাদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দেয়া না হলে তারা তাদের এলাকায় থাকতে সাহস পাবেন না৷

আবেদ খান জানান, কোনো কোনো এলাকায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সংখ্যালঘুদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন৷ তবে পুলিশ বা প্রশাসনিক নিরাপত্তা পর্যাপ্ত নয়৷ নির্যাতিত সংখ্যালঘুদের এখন সবধরণের নিরাপত্তা দেয়ার দাবি জানান তিনি৷

সুলতানা কামাল বলেন, ‘‘রাজনৈতিক ঘটনার আড়ালে হিন্দুদের নিশ্চিহ্ন করার প্রক্রিয়া চলছে৷ এই প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে৷''

আবেদ খান জানান, তাঁরা আক্রান্ত সংখ্যালঘুদের সব এলাকা ঘুরে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে তা প্রকাশ করবেন৷ এই প্রতিবেদন সরকারকেও দেয়া হবে৷ প্রতিবেদনে হামলার জন্য কারা দায়ী, কেন হামলা করা হলো, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এবং সুপারিশ থাকবে৷ তিনি বলেন, তবে সরকারের এখন অবিলম্বে আক্রান্তদের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয়া উচিত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়