1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সংকট নিরসনে সিপিবি-বাসদের উদ্যোগ

বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি, সিপিবি এবং বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল, বাসদ চায় সবার মতামতের ভিত্তিতে চলমান রাজনৈতিক সংকটের সমাধান খোঁজা হোক৷ এজন্য দল দুটির উদ্যোগে একটি সংলাপ শুরু হয়েছে৷

দুই দল মনে করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ছাড়াও দেশে আরো অনেক দল আছে যারা দেশের জন্য কাজ করছে৷ তাই তাদের বাদ দিয়ে দুই বড় দলকে নিয়ে সংকট নিরসনের পথ অর্থবহ হবে না বলে মনে করেন তারা৷

সংলাপের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করবেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম এবং বাসদ সাধারণ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামানের নেতৃত্বে দলের নেতারা৷ বুধবার বৈঠক হতে পারে বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে৷

সিপিবির কেন্দ্রীয় নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স ডয়চে ভেলেকে জানান, তাঁরা গত রবিবার গণফোরামের সঙ্গে বেঠক করেছেন৷ পর্যায়ক্রমে জামায়াতে ইসলামী ছাড়া আরো অনেক রাজনৈতিক দলের সঙ্গে বৈঠক করবেন৷

তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দিয়েছেন৷ আর বিরোধী দলীয় নেত্রী নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের প্রস্তাব করেছেন৷ নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে একটি সংলাপের আশাও জেগে উঠেছে৷ কিন্তু দেশে শুধু এই দুই দল নয়, আরো অনেক দল আছে৷ তাদেরও মতামত আছে৷ সেইসব দলের মতামত নিয়ে একটি সর্বদলীয় সমাধান খোঁজা উচিত৷ কারণ দেশটি শুধু বড় দুই দলের, এমন ভাবা ঠিক নয়৷

রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, সিপিবির প্রস্তাব হলো সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী আরো দুটি নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে করা৷ তবে তা কেমন হবে সে নিয়ে তাদের সুনির্দিষ্ট মতামত আছে৷

তাঁরা মনে করেন জামায়ত-শিবির ও যুদ্ধাপরাধীরা দেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে৷ সরকারকে যেমন তাদের আইন করে নিষিদ্ধ করতে হবে৷ তেমনি বিরোধী দল বিএনপিকে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে হবে৷ আলোচনায় এই বিষয়টিও প্রাধান্য পাবে৷

সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন দেশে আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে চরম রাজনৈতিক সংকট আসন্ন৷ এ নিয়ে দেশের মানুষ উদ্বেগ উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে৷ একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে কোনোভাবেই এই সংকট এড়ান যাবেনা৷ তাই সবার অংশগ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের ফর্মুলাই পারে সংকট থেকে দেশ ও দেশের মানুষকে বাঁচাতে৷ সেই সমাধান পাওয়া যাবে সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন