1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শুরু হয়ে গেছে বিজেপি সরকার গঠনের তোড়জোড়

ভারতে ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচন শেষ হবার সঙ্গে সঙ্গেই বিভিন্ন বুথ ফেরত সমীক্ষার পূর্বাভাষকে সামনে রেখে শুরু হয়ে গেছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট সরকার গঠনের তোড়জোড়৷ দিল্লির বিজেপি শিবিরে তাই এখন চরম ব্যস্ততা৷

গত সোমবার ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের নবম তথা অন্তিম দফার ভোট গ্রহণ শেষ হবার সঙ্গে সঙ্গেই বুথ ফেরত সমীক্ষার বেশির ভাগই ইঙ্গিত দিয়েছে যে ভঙ্গুর বা ত্রিশঙ্কু সংসদ নয়৷ এবার দিল্লির মসনদে বসতে চলেছে ভারতীয় জনতা পার্টি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট সরকার৷ বিভিন্ন সমীক্ষায় আসন সংখ্যায় কিছু তারতম্য থাকলেও, সবকটি সমীক্ষায় সংসদের ৫৪৩টি আসনের মধ্যে বিজেপি-জোটকে দিয়েছে ২৫০ থেকে ৩৪০টি আসন৷ আর কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোটকে দিয়েছে ৭০ থেকে ১৪৮টি আসন৷

অর্থাৎ, আসন সংখ্যার দিক থেকে বিজেপি আগেকার সব রেকর্ড ছাপিয়ে যাবে৷ অন্যদিকে কংগ্রেস এত কম আসন আগে কখনও পায়নি৷ বুথ ফেরত সমীক্ষায় বলা হয়, বিজেপি তামিলনাড়ু ও কেরালায় ধরাশায়ী হলেও উত্তর ভারতের হিন্দি বলয়ে বিজেপির মোদী ঢেউ অপ্রতিহত৷ উত্তর প্রদেশে ৮০টি আসনের মধ্যে বিজেপি পাবে ৪৫ থেকে ৫০টির মতো আসন৷

Indien Wahlen 2014 10.04.2014 Jhunjhunu Rahul Gandhi

কংগ্রেস এত কম আসন আগে কখনও পায়নি

বিহারে পেতে চলেছে ৪০টির মধ্যে ২৮টি৷ লালু প্রসাদের রাষ্ট্রীয় জনতা দল আর মাথা তুলতে পারেনি৷ আম আদমি পার্টির অবস্থাও সুবিধাজনক নয়৷ এই পূর্বাভাসে সরকারি শিলমোহর পড়ার জন্য অবশ্য অপেক্ষা করতে হবে ১৬ই মে ভোট গণনার দিন পর্যন্ত৷

কংগ্রেস অবশ্য এই পূর্বাভাসকে তেমন আমল দিতে নারাজ৷ কংগ্রেসের মতে, ২০০৪ সালের বুথ ফেরত সমীক্ষায় বলা হয়েছিল বিজেপি-জোট সরকার গড়বে এবং ২০০৯ সালের পূর্বাভাষে বলা হয়েছিল যে, ত্রিশঙ্কু সংসদ হবে৷ কিন্ত কোনোটাই হয়নি৷ এবার রেকর্ড সংখ্যক ৬৬.৪৮ শতাংশ ভোট পড়েছে যা ১৯৮৪-এর হার ছাড়িয়ে গেছে৷ গত সোমবার শেষ দফার ভোটের পর কংগ্রেসের ‘কোর' কমিটির বৈঠক বসে৷ তাতে রাজনৈতিক ছুঁতমার্গ সরিয়ে তৃণমূল, এআইএডিএমকে ও বিএসপিকে নিয়ে তৃতীয় ফ্রন্ট গঠনে কংগ্রেসের সমর্থনের দরজা খোলা রাখা হয়েছে৷ তৃণমূল ও এআইএডিএমকে তাদের আসন সংখ্যা আগের চেয়ে ভালো করেছে বলে সমীক্ষায় বলা হয়েছে৷ নির্বাচনি বিপর্যয়ের জন্য রাহুল গান্ধীকে আড়াল করার চেষ্টা করা হচ্ছে দলের পক্ষ থেকে৷

এদিকে বুথ ফেরত সমীক্ষার ছবি সামনে রেখে দিল্লি বিজেপি হেড-কোয়াটার্সে এবং গুজরাটের গান্ধী নগরে এখন সরকার গঠনের প্রস্তুতির তুমুল ব্যস্ততা৷ মোদী প্রধানমন্ত্রী হয়ে দিল্লি এলে গুজরাটে তাঁর জায়গায় মুখ্যমন্ত্রী কে হবেন, তাই নিয়ে রাজ্যে সাংসদ ও বিধায়কদের এক বেঠকে বর্তমান রাজস্বমন্ত্রী এবং মোদীর ঘনিষ্ট আনন্দিবেন প্যাটেলের নাম প্রস্তাব করেন মোদী৷ দিল্লির বিজেপি অফিসে দলের প্রাক্তন সভাপতি নীতীন গডকড়িকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় নেবার কথা শোনা যাচ্ছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে আনা আয়কর মামলা খারিজ হয়ে যাবার পর গডকড়ি দেখা করেন মোদীর সঙ্গে৷ গডকড়ি ছাড়াও দেখা করেন মানেকা গান্ধী, সংসদের প্রাক্তন স্পিকার পি.এ সাংমা প্রমুখ৷ বর্তমান সভাপতি রাজনাথ সিং তাঁর পদেই থাকতে চান৷ মোদী এবং রাজনাথ সিং হিন্দুত্ববাদী সংগঠন তথা বিজেপির পথনির্দেশক রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের (আরএসএস) প্রধান মোহন ভগবতীর সঙ্গে মন্ত্রিসভা গঠন নিয়ে এক প্রস্ত আলোচনা সেরে ফেলেছেন৷ জানা গেছে, দলের প্রবীণ সদস্যদের সম্মানজনক স্থান দিয়ে মন্ত্রিসভায় তরুণ প্রজন্মকে বেশিগুরুত্ব দিতে চান মোদী৷ প্রধানমন্ত্রী পদে মোদীর অভিষেক প্রায় নিশ্চিত আশা করে শেয়ার বাজার হয়ে ওঠে তেজি৷

এদিকে প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং তাঁর দপ্তরের নিজস্ব ১১০ জন কর্মচারীর কাছ থেকে বিদায় নেন৷ আগামী শনিবার তাঁর মন্ত্রিসভার শেষ বৈঠক করে তিনি যাবেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে৷ আর তারপর দেবেন জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ৷ বিকেলের দিকে তাঁর মন্ত্রিসভার সদস্যদের চা-পানে আপ্যায়িত করবেন৷ রাষ্ট্রপতি দেবেন নৈশভোজ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়