1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শুভ জন্মদিন নীল আর্মস্ট্রং

চাঁদ নিয়ে বাঙালীর কল্পনা, কবিতা এবং রোম্যান্টিকতার শেষ নেই৷ চাঁদ কখনও আপনার অন্তরঙ্গ বন্ধু, কখনও প্রিয়ার মুখ, আবার কখনও বা শুধুই চাঁদ-মামা৷ কিন্তু একদিন, সেই অধরা চাঁদেই পৌঁছে গেলেন কল্পবিজ্ঞানের এক বাস্তব নায়ক৷

default

চাঁদের মাটিতে মানবজাতির প্রথম পদচিহ্ন এঁকেছিলেন আর্মস্ট্রং

তাঁর নাম নীল আর্মস্ট্রং৷ তাঁর আজ ৮০তম জন্মদিন৷

১৯৬৯ সালের ২০শে জুলাই সত্যি সত্যি চাঁদে গিয়ে ইতিহাস গড়েছিলেন তিনি৷ এখনও মনে আছে, সেদিন শুধু বাঙালীরা নয়, সারা বিশ্ব চোখ রেখেছিল টেলিভিশনের পর্দায়৷ সাদা-কালো ছবিতে দেখেছিল রবোটের মতো ‘স্পেস-স্যুট' পরে কিভাবে মাহাকাশ যান থেকে মই বেয়ে চাঁদের মাটিতে নেমে এসেছিলেন নীল৷ চাঁদের গায়ে কিভাবে রেখেছিলেন মানবজাতির প্রথম পদচিহ্ন৷ বলেছিলেন, ‘‘মানুষের জন্য এটা মাত্র একটা পা ফেলা, কিন্তু, সম্পূর্ণ মানব সভ্যতার জন্য এ এক অভূতপূর্ব পদক্ষেপ৷''

সত্যি, সে যেন এক অবিশ্বাস্য ব্যাপার৷ মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বড় অভিযান৷ ‘অ্যাপেলো ১১' নামের সেই অভিযানে আর্মস্ট্রং-এর সঙ্গে অংশ নেন মাইকেল কলিন্স ও এডউইন অলড্রিন৷ পৃথিবী থেকে প্রায় ২ লক্ষ ৪০ হাজার মাইল দূরে, পৃথিবীরই কক্ষপথ ধরে প্রদক্ষিণ করা চাঁদের মাটিতে ১৩৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় মানুষের রেখে যাওয়া প্রথম চিহ্ন৷ এতে চাঁদ নিয়ে বাঙালীর স্বপ্ন-পর্বের ব্যাঘাত হয়েছিল কিনা - সে কথা হলফ করে বলা না গেলেও, ‘অ্যাপেলো' মিশনের সাফল্যের মধ্য দিয়ে মার্কিন প্রযুক্তির অন্তর্নিহিত শ্রেষ্ঠত্ব যে প্রদর্শিত হয়েছিল - তা বলাই বাহুল্য৷

BdT: Der erste Mann auf dem Mond, Neil Armstrong, wird 75 Jahre

৮০তম জন্মদিনে নীল আর্মস্ট্রং

এরপর অবশ্য ৪০ বছর পার হয়ে গেছে৷ অথচ বিজ্ঞানীদের মতে, নীল আর্মস্ট্রং-এর সেই প্রথম পদচিহ্ন নাকি কয়েক হাজার বছর পরেও দৃশ্যমান থাকবে৷ অর্থাৎ আজ যদি এই ৮০ বছরের বৃদ্ধ আরো একবার চাঁদে যেতে পারতেন, তাহলে হয়ত খুব সহজেই তিনি খুঁজে পেতেন ৪০ বছর আগেকার সেই মুহূর্তটিকে৷ উল্কাপাতের কারণে সৃষ্ট চন্দ্রিমার বিখ্যাত কলঙ্কের মতো দেখতে পেতেন নিজেরই পায়ের ছাপকে৷

এদিকে, চন্দ্র-অভিযানের পর থেকে বিজ্ঞানের সংজ্ঞাটাই যেন বদলে গেছে৷ এসেছে রঙিন টেলিভিশন, মোবাইল টেলিফোন, ইন্টারনেট, জিপিএস৷ ছাড়া হয়েছে স্যাটেলাইট৷ তাই আজ, মহাশূন্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে অসংখ্য কৃত্রিম চাঁদ৷ কিন্তু তারপরেও, চাঁদ নিয়ে রোম্যান্টিকতা যেন এতোটুকু কমেনি৷ অবশ্য বাঙালীর কল্পনায় চাঁদ-মামার পাশাপাশি উজ্জ্বল হয়ে আছেন নীল আর্মস্ট্রং-ও৷

প্রতিবেদন: দেবারতি গুহ

সম্পাদনা: ফাহমিদা সুলতানা

ইন্টারনেট লিংক