1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

শিশু ধর্ষককে রাজক্ষমার বিল প্রত্যাহার করলো তুরস্ক

তুরস্কের ক্ষমতাসীন দল বিতর্কিত এক বিবাহ বিল প্রত্যাহার করেছে, যেটি জাতিসংঘের বিবেচনায় শিশু ধর্ষণের আইনি বৈধতা দেয়ার সমতুল্য ছিল৷ মুসলিম অধ্যুষিত দেশটিতে বিয়ের বয়স ১৮ হলেও ইসলামী বিধিতে অনেক মেয়ের অল্প বয়সেই বিয়ে হয়৷

তুরস্কের ক্ষমতাসীন ‘একে পার্টি' অপ্রাপ্ত বয়স্কদের বিয়ে সংক্রান্ত একটি বিল আরো আলোচনার জন্য আপাতত সরিয়ে রেখেছে৷ দেশটির প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলডিরিম মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়েছেন৷ বিরোধী দল এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলো মনে করে, এই বিল কার্যত শিশুদের যৌন সম্পর্কের পর অভিযুক্তকে শাস্তি থেকে রেহাই পাওয়ার সুযোগ করে দেবে৷ কার্যত ব্যাপক সমালোচনার মুখে তুরস্ক সরকার বিলটিকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে৷

প্রস্তাবিত আইনটি আজ সংসদে চূড়ান্ত ভোটাভুটির জন্য তোলার কথা৷ এতে অপ্রাপ্ত বয়স্কের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক গড়ার পর তাকে বিয়ে করলে ধর্ষককে রাজক্ষমার বিধান রাখার প্রস্তাব করা হয়েছিল৷ একাধিক মানবাধিকার সংস্থা এবং জাতিসংঘ এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছিল, এই আইন কার্যত শিশুদের যৌন নিগ্রহকারীদের রাজক্ষমার পাশাপাশি ভবিষ্যতে নিগ্রহকারীরা যাতে আরো অপকর্মের সুযোগ পায় সেই সম্ভাবনা তৈরি করবে৷ জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এবং তুরস্কে জাতিসংঘের আরো চারটি সংস্থা এক যৌথ বিবৃতিতে জানায়, ‘‘শিশুদের প্রতি যে কোনো ধরনের যৌন সহিংসতাই অপরাধ এবং সেই অপরাধের শাস্তি হওয়া উচিত৷'' 

তবে আপাতত বিলটি প্রত্যাহার হলেও তা পুরোপুরি বাতিল করা হয়নি৷ তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, সরকার এখন সব দলের সমন্বয়ে তৈরি একটি কমিশনকে প্রস্তাবিত বিলটি পুর্নমূল্যায়নের সুযোগ দেবে৷ বিরোধী দলগুলোর অনেক সদস্যই ইতোমধ্যে বিলটির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন৷ তুরস্কের অধিকাংশ সাধারণ মানুষও এর বিরুদ্ধে রয়েছে৷ চলতি সপ্তাহে একটি অনলাইন পিটিশনে স্বাক্ষর করেছেন আট লাখের বেশি মানুষ, সেখানে প্রস্তাবিত বিলটি বাতিল করতে তুর্কি সংসদের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে৷

এআই/এসিবি (এপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন