1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

শিশুদের কীভাবে শাকসবজি খেতে উৎসাহিত করা যায়

বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থার মতে দিনে অন্তত পাঁচবার শাকসবজি ও ফলমূল খাওয়া উচিত৷ উদ্ভিজ্জ খাদ্যে অল্প পরিমাণে ক্যালোরি থাকে৷ অন্য দিকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ পদার্থ, ফাইবার ইত্যাদি থাকে৷ এসব আমাদের শরীরের জন্য জরুরি৷

default

শিশুকে শাকসবজি খাওয়াতে মা-বাবাকে অনবরত চেষ্টা করে যেতে হবে৷ তবে জোরাজুরি করা কখনই ঠিক হবে না৷

লন্ডন ইউনিভার্সিটি কলেজের একটি সমীক্ষার ফলাফলে জানা গিয়েছে, পাঁচবারই যথেষ্ট নয়, দিনে অন্তত সাতবার শাকসবজি ও ফলমূল খাওয়া প্রয়োজন৷ গবেষকরা জানিয়েছেন উদ্ভিদজাত উপাদান উচ্চরক্তচাপ, হার্টের অসুখ, স্ট্রোক ইত্যাদির ঝুঁকি কমায়৷ এর ফলে মৃত্যুর ঝুঁকিও অনেক কমে যায়৷

তবে প্রশ্ন জাগে সাতবার ফল ও সবজি খাওয়া বাস্তবসম্মত? অনেকে তো কাজের চাপে দুপুরের খাওয়ার সময়ই পায় না৷ জার্মান পুষ্টি সোসাইটির আনচে ডাল বলেন, এখানে কতবার এ সব খাওয়া উচিত সেটা বিবেচ্য বিষয় নয়, আসল কথা হলো এর পরিমাণ৷

যত বেশি ততই ভালো

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী, দৈনিক ৪০০ গ্রাম তরিতরকারি ও ২৫০ গ্রাম ফলমূল খাওয়া উচিত৷ শাকসবজি ফলের চেয়েও স্বাস্থ্যকর, কেননা এতে চিনির পরিমাণ কম থাকে৷

এক্ষেত্রে বৈচিত্র্যেরও প্রয়োজন রয়েছে৷ অর্থাৎ খাদ্যতালিকায় নানারকমের সবজি ও ফল থাকা উচিত৷ এজন্য সারা দিনব্যাপী ৪০০ গ্রাম তরিতরকারি ছোট ছোট পরিমাণে ভাগ করে খাওয়া প্রয়োজন৷ কেউ দুপুরে শাকসবজির সাথে সালাদ খেলে দুই ভাগ খাওয়া হয়ে যায়৷ যত বেশি ততই ভালো৷ যে কোনো সময়ে৷

বাচ্চারা তরিতরকারি ও ফলমূল খেতে চায় না৷ ‘‘চার থেকে ছয় বছর বয়সি বাচ্চাদের ২০০ গ্রাম সবজি ও ২০০ গ্রাম ফল খাওয়া প্রয়োজন'', বলেন ডাল৷ কিন্তু মা-বাবার পক্ষে বাচ্চাদের এইসব ভিটামিনসমৃদ্ধ খাদ্য খাওয়ানো সহজ নয়৷ শাকসবজি স্বাস্থ্যকর ও মৃত্যুর ঝুঁকি কমায়, এ সব তথ্য চার বছর বয়সিকে বোঝানো সহজ নয়৷ সে তো ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ও চকলেটই খেতে চাইবে৷

‘‘শাকসবজিতে ততটা শক্তি নেই৷ বাচ্চারা শক্তিসমৃদ্ধ খাবার পছন্দ করতে শেখে, যা তাদের বেড়ে ওঠার জন্য জরুরি৷ এছাড়া কিছু তরিতরকারিতে এক ধরনের তিতা স্বাদ থাকে৷ আমাদের প্রথমে এই স্বাদ পছন্দ করতে শিখতে হবে'', বলেন সিলভি ইসানশো৷ ছয়টি ইউরোপীয় দেশের উদ্যোগে গঠিত ১১টি গবেষণা ইন্সটিটিউটের একটি প্রজেক্ট হাবেঈট-এর সমন্বায়ক তিনি৷ এই প্রকল্পের গবেষকরা পরীক্ষা করে জানতে চেয়েছেন কীভাবে ছয় মাস থেকে ছয় বছর বয়সি বাচ্চাদের শাকসবজি খাওয়ানো শেখানো যায়৷ তাঁদের ফলাফলে জানা গেছে, এটা সম্ভব৷

অক্লান্ত চেষ্টা

মা-বাবার অনবরত চেষ্টা করে যেতে হবে৷ বলা যায় নাছোরবান্দার মতো৷ শিশুকে বার বার তরকারি খেতে দিতে হবে৷ কাজটা করতে হবে অটল ধৈর্য নিয়ে৷ বাচ্চা হয়ত প্রথম দিকে তা খেতে চাইবে না৷ এমনকি আগে যা খেতে পছন্দ করতো, তাও প্রত্যাখ্যান করতে পারে৷ ‘‘মা-বাবাকে অপেক্ষা করতে হবে এবং চেষ্টা করে যেতে হবে৷ তবে জোরাজুরি করা কখনই ঠিক হবে না৷'' এমনটাই মনে করেন সিলভি ইসানশো৷

সব রকমের তরিকারি যে খেতে হবে এমন কোনো কথা নেই৷ মানুষের রুচি ও গন্ধের অনুভূতিতে পার্থক্য থাকতেই পারে৷ ‘‘কোনো বাচ্চা নির্দিষ্ট কোনো সবজি পছন্দ না করলে তাকে অন্য কোনো তরকারি দেওয়া যেতে পারে৷'' মনে করেন হাবেঈট-এর গবেষকরা৷ চেষ্টা করতে হবে শিশুকে নতুন নতুন আচেনা শাকসবজি খাওয়াতে৷ একই খাবার খেতে খেতে একঘেয়েও লাগতে পারে৷ স্থানীয় সুপার মার্কেটে নতুন ধরনের শাকসবজি না পাওয়া গেলে রান্নাবান্নায় বৈচিত্র্য আনা যেতে পারে৷ পরিবেশন করা যেতে পারে ভর্তা বা বেক করে৷ সস, পনির বা অন্য কিছুর সাথে মিলিয়েও বাচ্চাকে খেতে দেওয়া যায়৷

অনেক সময় প্রয়োজন

তবে এ জন্য অনেক সময় প্রয়োজন৷ মা-বাবা দু'জনেই পেশাজীবী হলে রান্নাবান্নায় মন দেওয়ার মতো সময় পাওয়া যায় না৷ তার ওপর আর্থিক দিকটাও বিবেচ্য বিষয়৷ আর্থিক অনটন থাকলে স্বাস্থ্যসম্মত জীবনযাপন করা সহজ নয়৷

ফরাসি ও মার্কিন গবেষকরা ২০০৪ সালে এক গবেষণায় জানতে পেরেছেন, তৈলাক্ত ও শর্করাযুক্ত অস্বাস্থ্যকর খাবার স্বাস্থ্যকর খাবারের চেয়ে সস্তা৷ অতিরিক্ত ১০০ গ্রাম ফল ও সবজি কিনতে হলে প্রতিদিন ১৮ থেকে ২৯ ইউরো-সেন্ট খরচ বেশি পড়বে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন