1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

শিক্ষিত ও বিত্তবানরাই বেশি সিজারিয়ান করান

প্রসূতি মায়ের কষ্ট, কিছু ক্ষেত্রে সন্তানের স্বাস্থ্য ঝুঁকি আর প্রায় নিশ্চিতভাবেই বেশি খরচের ধাক্কা – এত কিছুর পরও কেন সিজারিয়ান পদ্ধতিতে সন্তান প্রসবের প্রবণতা বাড়ছে? মায়েরাই দিয়েছেন এ সব প্রশ্নের উত্তর৷

‘‘আমার কোনো জটিলতা ছিল না বলে ডাক্তারও নিশ্চিত করেছিলেন৷ তারপরও আমার ডাক্তার কেন যেন চাইছিলেন না৷ বারবারই সিজার করতে উৎসাহিত করছিলেন তিনি৷ তাঁর উৎসাহ দেখেই মনে হচ্ছিল, নরমাল করতে গেলে আবার যদি কোনো জটিলতা হয়৷ তাই আর ‘রিস্ক' নেইনি৷'' বলছিলেন ঢাকার বেসরকারি একটি টেলিভিশনে কর্মরত এক নারী কর্মী ইপ্সিতা (ছদ্মনাম)৷

‘‘মা-খালাদের কাছে শুনেছি সিজার করে সন্তান প্রসব করলে সেই বাচ্চা খুব নাজুক হয়৷ সারাক্ষণ বেশি বেশি যত্নে রাখতে হয়৷ কিন্তু নর্মাল ডেলিভারি হলে বাচ্চার নিজের অনেক প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়৷'' যোগ করেন ইপ্সিতা৷

শুধু কী এ কারণেই নর্মাল ডেলিভারি চেয়েছিলেন, নাকি অন্য কোনো কারণও ছিল? জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আমি যেহেতু চাকুরিজীবী, তাই স্বাভাবিকভাবেই চেয়েছিলাম যত কম সময়ে সম্ভব নিজে ফিট হতে৷ যেন চার মাসের ছুটি শেষে সময়মতো কাজে যোগ দিতে পারি৷ নর্মাল ডেলিভারি হলে যত তাড়াতাড়ি প্রসবের রেশ কাটিয়ে ওঠা যায়, সিজারে গেলে তো সেটা সম্ভব নয়৷'' এটিও একটি বড় কারণ ছিল নর্মাল ডেলিভারি চাওয়ার৷

অস্ত্রোপচারের পরে কি কোনো জটিলতা হয়েছিল বা এখনও হয়? এ প্রশ্নের জবাবে ইপ্সিতা বললেন, ‘‘প্রথম প্রথম তো সোজা হয়ে দাঁড়াতেই অনেক কষ্ট হতো৷ মেরুদণ্ড আর তলপেটে ভীষণ ব্যথা অনুভব করতাম৷ ধীরে ধীরে ব্যথা কমে গেলেও নিজেকে আগের মতো ভাবতে অনেক দিন সময় লেগে গেছে আমার৷ আর তাছাড়া কাজ করতে গিয়ে হঠাৎ হঠাৎ পেটে টান লাগতো বলে অবচেতন মনেই এত সাবধান থাকতাম যে নিজেকে আর স্বাভাবিক ভাবতে পারতাম না৷''

বেসরকারি একটি ব্যাংকে কমর্রত সমাপ্তি ইসলাম৷ সমাপ্তির ক্ষেত্রে অবশ্য শুরু থেকেই ডাক্তার বলেছিলেন নর্মাল ডেলিভারির সম্ভাবনা খুব কম৷ সিজারের জন্য তৈরি থাকতে৷ প্রথম সন্তান ডেলিভারির সময় আরিফার বয়স ছিল ৩৫৷ কাজেই তিনিও ভেবেছিলেন, ‘‘এই বয়সে কোনোভাবেই নর্মাল ডেলিভারি সম্ভব নয়৷''

গর্ভধারণের পুরো সময়টা তেমন একটা শারীরিক সমস্যা না থাকলেও সিজার করে ডেলিভারিটা আরিফার জন্য অলিখিত সিদ্ধান্ত ছিল৷ তার কোনো নড়চড়ও হয়নি৷

অন্যদিকে, একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ শিক্ষক সাদিয়া নূর৷ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানোর কারণে সরকারি ছুটির বাইরেও বেশ কিছু ছুটি পেয়েছিলেন তিনি৷ গর্ভধারণের প্রথম দিকে শারীরিকভাবে খানিকটা দুর্বল থাকায় খুব প্রয়োজন না হলে বিশ্ববিদ্যালয়ে যাননি তিনি৷ পরের দিকে দুর্বলতা কাটিয়ে উঠেছিলেন৷ ‘‘চাইলে নর্মাল ডেলিভারির জন্য অপেক্ষা করতে পারেন'', বলেছিলেন তার ডাক্তার৷ কিন্তু তাঁর বেলাতেও ৩৫ বছর বয়সে প্রথম সন্তানের জন্ম বলে তিনি নিজেই কোনো ‘রিস্ক' নিতে চাননি৷ নিজেদের পারিবারিক ডাক্তারও তেমনটাই পরামর্শ দিয়েছেলন৷ ফলে অবশ্যম্ভাবী হয়ে ওঠে সিজার করা৷

নিশিতা আফরিন নিজেই একজন ডাক্তার৷ দ্বিতীয় সন্তানের সময় তাঁর কিছুটা জটিলতা থাকলেও প্রথম সন্তানের বেলায় তিনি একেবারে ঠিক ছিলেন৷ নর্মাল ডেলিভারির দিকেই এগোচ্ছিলেন৷ ‘লেবার পেইন'-ও শুরু হয়েছিল তাঁর৷ তারপরও ডাক্তার আগ্রহ দেখানোয় নিশিতা আর ‘না' করেননি৷ ভেবেছিলন, প্রথমবার যদি কোনো ঝামেলা হয়৷

ছোট ছোট এই ঘটনাগুলো আমাদের আশেপাশের পরিচিতজনদেরই৷ এ ধরনের কয়েকটি উদাহরণে এই সময়ের মায়েদের সন্তান প্রসবের ধারা সম্পর্কে একটা পরিষ্কার ধারণা মেলে৷ ইদানীং কর্মজীবী নারীদের সংখ্যা বাড়ায় সন্তান নিতে খানিকটা দেরি করছেন অনেকেই৷ ফলে প্রথম সন্তানের বেলায় অনেক ক্ষেত্রেই ডাক্তাররা এই ‘বেশি বয়সের' দোহাই সহজেই সামনে নিয়ে আসেন৷ কোনো কোনো ক্ষেত্রে তো ডাক্তারের অতি উৎসাহও নজরে আসে৷ আজকাল এই প্রবণতা বেড়েছে বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে৷ তবে এটিও ঠিক যে, কোনো কোনো ক্ষেত্রে ডাক্তার সাহস দেন না বলে রোগীও সাহস করাকে ‘রিস্ক' নেয়া মনে করেন৷ তিনি নিজেই সার্জারি করানোয় বেশি আগ্রহ দেখান৷

এক্ষেত্রে বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালগুলো বেশি এগিয়ে বলে মত দিয়েছেন সবাই৷ 

বাংলাদেশ ডেমোগ্রাফিক অ্যান্ড হেলথ সার্ভে (বিডিএইচএস) ২০১৪ এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশে গত তিন বছরে ২৩ শতাংশ ডেলিভারি হয়েছে সিজারের মাধ্যমে৷ বতর্মানে বাংলাদেশে শতকরা ৩৭ ভাগ ডেলিভারি হয়ে থাকে হাসপাতালগুলোতে৷ যার ২২ ভাগই হয় বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে৷

ওই প্রতিবেদন বলছে, ২০০৪ সালে দেশে সিজারের মাধ্যমে সন্তান হতো ৪ ভাগ, ২০০৭ সালে ৯ ভাগ, ২০১১-তে তা বেড়ে দাঁড়ায় ১৭ ভাগে আর সবশেষ ২০১৭ সালে এসে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে শতকরা ৩৫ দশমিক ৫ ভাগে৷

বিডিএইচএস-এরই আরেক তথ্য অনুযায়ী, দেশে হাসপাতাল বা ক্লিনিকে প্রতি ১০টির মধ্যে ছ'টি শিশুরই জন্ম হচ্ছে সিজারিয়ান পদ্ধতিতে৷ এক্ষেত্রে ৮০ শতাংশ অস্ত্রোপচার হচ্ছে প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে৷ আর সমাজের শিক্ষিত ও সচ্ছল পরিবারের শিশুদেরই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে জন্ম হচ্ছে এই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে৷

এ প্রসঙ্গে আপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়