1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

শিক্ষা ওয়েবসাইট তৈরি করছেন মুসা ইব্রাহীম

মাউন্ট এভারেস্ট চূড়ো জয় করে ইতিমধ্যেই সারাদেশে আলোড়ন তুলেছেন মুসা ইব্রাহীম৷ বাংলাদেশের প্রথম এভারেস্ট জয়ী তিনি৷ তাই এই জয় বাংলাদেশের জন্য এক বড় অর্জন৷ মুসা এবার নজর দিচ্ছেন শিক্ষা খাতে৷

default

মাউন্ট এভারেস্ট চূড়োয় মুসা ইব্রাহিম

এভারেস্ট জয়ের বিপত্তি!

অবশ্য ২৩ মে এভারেস্ট জয়ের পর বেশ খানিকটা কঠিন সময় পার করতে হয়েছে মুসাকে৷ কেউ কেউ প্রমাণ করতে চাইছিলেন, তিনি আসলে এভারেস্ট জয় করেননি৷ আশার কথা হচ্ছে, নানাবিধ বৈজ্ঞানিক বিচার বিশ্লেষণ আর তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে এখন আর কারো মনে মুসার জয় নিয়ে সন্দেহ নেই৷

নতুন মিশন

মুসা এখন ব্যস্ত নিত্য নতুন পরিকল্পনা নিয়ে৷ সাত মহাদেশের সাতটি সবচেয়ে উঁচু পর্বত জয়ের লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি৷ আরো চাইছেন, কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটার জলপথ সাঁতরে পাড়ি দিতে৷ এভারেস্ট জয়ী মুসা এই বিষয়ে জানান, আগামী জানুয়ারি মাসে বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পার হবো বলে আশা করছি৷

শিক্ষা ওয়েবসাইট

মুসা অবশ্য এভারেস্ট জয়ের পরপরই বলেছিলেন, বাংলাদেশের শিক্ষাখাত নিয়ে কিছু করতে চান তিনি৷ কিন্তু এখন কি ভুলে গেলেন সেকথা? একথা মনে করিয়ে দিতেই মুসার মন্তব্য, ‘‘এটা নিয়ে প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ করছি৷ দেশের বিভিন্ন জায়গায় শিক্ষার সুবিধা পৌঁছে দিতে একটি অনলাইন কাঠামো তৈরি করছি আমরা৷ আশা রাখছি আগামী ফেব্রুয়ারি-মার্চ নাগাদ এটির পরীক্ষামূলক সংস্করণ চালু করতে পারবো৷''

খানএকাডেমি ডটঅর্গ

মুসা'র এই ওয়েবসাইটের ধরণ হবে অনেকটাই খানএকাডেমি ডটঅর্গ এর মতো৷ অনেকেই হয়তো, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন তরুণ সালমান খান'এর এই ওয়েবসাইটটি সম্পর্কে অবহিত৷ গণিত ও বিজ্ঞানের বিভিন্ন সমস্যার সহজ সমাধান দিয়ে ওয়েবসাইটটি সাজিয়েছেন সালমান৷ তার এই কাজের প্রশংসা করেছেন খোদ বিল গেটস৷ এমনকি তাকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতিও দিয়েছে গুগল৷

মাল্টিমিডিয়া

মুসা ইব্রাহীমের ওয়েবসাইটটিও হবে খান একাডেমির আদলে৷ তবে, সেটির লক্ষ্য শুধুই বাংলাদেশ৷ তাই এর বিষয়বস্তু থাকবে স্থানীয় ভাষায় এবং স্থানীয় মানুষের উপযোগী৷ থাকবে কমগতি সম্পন্ন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য বিশেষ সংস্করণ৷ সঙ্গে অডিও, ভিডিও বিষয়বস্তু যাকে এককথায় বলে মাল্টিমিডিয়া ওয়েবসাইট৷

নাম এখনো পাওয়া যায়নি

এখনো অবশ্য নিজের এই ওয়েবসাইটের নাম চূড়ান্ত করেননি মুসা৷ তিনি চাইছেন একটি প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোর ভিতর এই কাজটি করতে৷ জোরেশোরে চলছে সেকাজ৷ আগামী বছরের শুরুতেই নাকি দেখা মিলবে নতুন এই শিক্ষা ওয়েবসাইটের৷ শিশু কিশোরদের শিক্ষাভীতি কাটানোই হবে যার মূললক্ষ্য৷ এই বিষয়ে সাংবাদিক মুসা'র মন্তব্য, এই ওয়েবসাইটের ব্যপ্তিটা সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে চাই আমরা৷

উল্লেখ্য, বর্তমানে বাংলাদেশ সরকার এবং বিভিন্ন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে তথ্য প্রযুক্তি সেবা পৌঁছে দিতে চেষ্টা করছে৷ এজন্য স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে গড়ে তোলা হচ্ছে কম্পিউটার ল্যাব৷ প্রত্যন্ত পল্লিতে চালু হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তি কেন্দ্র৷ এতসব ল্যাব আর কেন্দ্রের সঙ্গে মুসার ওয়েবসাইটটি জুড়ে দিলে বেশ ভালোই সাড়া পাওয়া যাবে৷ তাছাড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষাভীতিও অনেকটা কাটাবে এই ওয়েবসাইট৷ এখন শুধু অপেক্ষার পালা৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক