1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শিক্ষকসমাজ ও মা-বাবার অপমানে দুই সন্তানের ধিক্কার

সিলেটের ঘটনার নিন্দা, প্রতিবাদ এখনো চলছে৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে এবার শিক্ষকদের ওপর হামলায় সরাসরি এবং পরোক্ষভাবে জড়িতদের ধিক্কার জানিয়েছেন অধ্যাপক ইয়াসমিন হক ও অধ্যাপক জাফর ইকবালের দুই সন্তান৷

সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগের উপচার্যপন্থি নেতা-কর্মীরা৷

জনপ্রিয় লেখক, শিক্ষক অধ্যাপক জাফর ইকবালের স্ত্রী অধ্যাপক ইয়াসমিন হকসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষক আহত হন৷ শিক্ষকদের ওপর শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিত্বকারী ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের এ আচরণে সারা দেশে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে৷ অধ্যাপক জাফর ইকবাল দুঃখ, হতাশা নিয়ে বলেছিলেন শিক্ষক হিসেবে এমন অবমাননাকর ঘটনার শিকার হবার পর তাঁর ‘গলায় দড়ি দিয়ে মরা উচিত৷'

অধ্যাপক জাফর ইকবালের ছাত্রছাত্রী এবং তাঁর গ্রন্থের প্রকাশকরাও তখন এ ঘটনার দ্রুত, সুষ্ঠু বিচার চেয়েছিলেন৷

সিলেট ছাত্রলীগ ঘটনার সঙ্গে তাদের কোনো নেতা-কর্মীর জড়িত থাকার কথা যথারীতি অস্বীকার করে৷ তবে প্রথমে কেন্দ্রীয় কমিটি এবং তারপর শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও শিক্ষকদের ওপর চড়াও হওয়ার সঙ্গে জড়িত চার ছাত্রলীগ নেতাকে বরখাস্ত করে৷

গত দুদিনে সিলেট শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটে যাওয়া ন্যাক্কারজনক ঘটনা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার তীব্রতা যেন কমে আসছিল৷ কিন্তু ফেসবুকের দুটি স্ট্যাটাস আবার আলোচনার কেন্দ্রে নিয়ে এসেছে ঘটনাটিকে৷ এবার মুখ খুলেছেন অধ্যাপক ইয়াসমিন হক ও অধ্যাপক জাফর ইকবালের মেয়ে ইয়েশিম ইকবাল এবং ছেলে নাবিল ইকবাল৷ নিজেদের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ঘটনায় জড়িত এবং দায়ীদের ধিক্কার জানিয়েছেন তাঁরা৷ তাঁদের প্রতিক্রিয়া নিয়ে খবর পরিবেশন করেছে বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যম

নিউইয়র্কে অধ্যায়নরত ইয়েশিম এবং নেদারল্যান্ডসের আমস্টারডামে অধ্যায়নরত নাবিল ইংরেজিতে লেখা খোলাচিঠিতে লিখেছেন, ‘‘আমরা, ড. ইয়াসমিন হকের সন্তানেরা ৩০ আগস্ট (২০১৫) শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তার জন্য ধিক্কার জানাচ্ছি৷''

স্ট্যাটাসে তাঁরা আরো লিখেছেন, ‘‘শিক্ষকের সন্তান হওয়ায় আমাদের শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে বড় হওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল৷ সেই সুবাদে সেখানে শিক্ষকরা যে শিক্ষাদানের দায়িত্বের বাইরেও ভালোবাসা আর আন্তরিক শ্রম ছাত্রছাত্রীদের জন্য দিতেন তা আমরা দেখেছি৷ সে কারণেই এখন আমরা ভীষণ হতবাক৷ কিছু ছাত্র এই ভালোবাসা ও আন্তরিকতার প্রতিদান দিলো শিক্ষকদের গায়ে হাত তুলে!''

আরেক অংশে অধ্যাপক ইয়াসমিন হক ও অধ্যাপক জাফর ইকবালের দুই সন্তান লিখেছেন, ‘‘আমরা যেখানে বড় হয়েছি সেখানেই ক্যাম্পাসের ছাত্রছাত্রীরা শিক্ষকদের উপর, আমাদের মায়ের উপর হামলা চালাতে পারে তা আমরা কিছুতেই মানতে পারছি না৷ আমরা শাবিপ্রবির শিক্ষকদের উপর এই আক্রমণের তীব্র নিন্দা জানাই৷''

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন