1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

শরীর চর্চ্চা এবং ভালো খাবার ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

স্বাস্থ্যকর খাবার, কম অ্যালকোহল পান ও বেশি শরীর চর্চ্চা করে যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও ব্রিটেনের মানুষ প্রতি বছরে সাধারন ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারেন৷ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এই কথা জানিয়েছেন৷

default

স্বাস্থ্যকর খাবার

জীবনযাপনের ধরণ মানুষের ক্যান্সারে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি কমিয়ে দিতে পারে৷ অ্যামেরিকান ইন্সটিটিউট ফর ক্যান্সার রিসার্চ, এআইসিআর এবং ওয়ার্ল্ড ক্যান্সার রিসার্চ ফাণ্ড, ডাব্লিউসিআরএফ বলছে, খুব সাধারণ জীবনযাত্রার মাধ্যমেই ব্রিটেন এবং যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় শতকরা ৪০ ভাগ ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করা সম্ভব৷ একই সঙ্গে মলাশয়, পাকস্থলী ও প্রসটেট ক্যান্সারও কমানো সম্ভব৷

ডাব্লিউসিআরএফ-এর চিকিৎসা এবং বিজ্ঞান বিষয়ক উপদেষ্টা মার্টিন ওয়াইজম্যান এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘‘এটা একটা দুঃখের বিষয় যে, শুধুমাত্র ওজন কমিয়ে, স্বাস্থ্যপ্রদ খাবার খেয়ে, শরীর চর্চ্চা এবং জীবনযাপনের ধরণের মধ্যে দিয়ে যেসব ক্যান্সার প্রতিরোধ করা সম্ভব, এমনকি ২০১১ সালেও মানুষ সেই ধরণের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারাচ্ছে৷''

Symbolbild Ernährung Diät Taille mit Maßband

সাধারণ জীবনযাত্রা মানুষকে সুস্থ রাখতে পারে

সংস্থাটি বলছে, চীনে শতকরা ২৭ ভাগ ক্যান্সারই প্রতিরোধযোগ্য৷ যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় শতকরা ৩৫ ভাগ এবং ব্রিটেনে প্রায় শতকরা ৩৭ ভাগ ক্যান্সার প্রতিরোধযোগ্য৷ ডাব্লিউসিআরএফ বলছে, জীবনযাপনের ধরণই ব্রাজিলে ৬১ হাজার এবং ব্রিটেনে ৭৯ হাজার মানুষের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে৷ সংস্থাটির এই গবেষণায় সহায়তা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা৷ এই ধরণের ক্যান্সার ছাড়াও, হৃদরোগ সমস্যা এবং বহুমূত্রের মত রোগগুলো শুধুমাত্র নিয়মিত শরীরচর্চ্চার মাধ্যমে প্রতিরোধ করা সম্ভব বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে৷

বিশ্বে যেসব রোগে আক্রান্ত হয়ে মানুষ সবচেয়ে বেশি প্রাণ হারাচ্ছে তার মধ্যে ক্যান্সার অন্যতম৷ প্রতি বছর প্রায় ১২.৭ মিলিয়ন মানুষ জানতে পারছে যে তাদের ক্যান্সার হয়েছে এবং প্রায় ৭.৬ মিলিয়ন মানুষ বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারাচ্ছে৷ এখন পর্যন্ত প্রায় ২শ ধরণের ক্যান্সারের কথা জানা গেছে৷

ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সার বা আইএআরসি বলছে, ২০৩০ সাল পর্যন্ত ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে বছরে ১৩.২ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারাবে৷ ২০০৮ সালে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে যতো মানুষ প্রাণ হারিয়েছিল এই সংখ্যা তার দ্বিগুন৷ এবং দরিদ্র দেশগুলোতেই প্রাণ হারিয়েছে বেশি মানুষ৷

প্রতিবেদন:ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা:আব্দুল্লাহ আল-ফারূক