1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

শরীরের মধ্যে যন্ত্র পাঠিয়ে চিকিৎসা

হলিউডের একটি ছবিতে এক বিজ্ঞানী ভুল করে তার সন্তানদের ক্ষুদ্র করে তুলে অন্যের শরীরের মধ্যে ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন৷ আজ মানুষ না হলেও ক্ষুদ্র মিনি-মেশিন শরীরে প্রবেশ করানো সম্ভব হয়ে উঠেছে৷ চিকিৎসাশাস্ত্রের জন্য এটা সুখবর বৈকি৷

মানুষের শরীরের মধ্যে ওষুধ পরিবহণ করতে হলে তার আধারকে অত্যন্ত ছোট হতে হবে৷ তাছাড়া সেটিকে স্বাধীনভাবে শরীরের মধ্যে চলাফেরা করতে হবে, যাতে সেটি টিউমারের মতো কোনো নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে৷

জার্মানির স্টুটগার্ট শহরে মাক্স-প্লাংক ইনস্টিটিউটে এক আন্তর্জাতিক গবেষক দল সেই অসাধ্য সাধন করেছেন৷ তাঁরা অতি ক্ষুদ্র ও মোবাইল আধার সৃষ্টি করেছেন, যা মানুষের শরীরের তরলে – এমনকি নির্দিষ্ট কোষের মধ্যেও প্রয়োগ করা সম্ভব৷ অধ্যাপক পেয়ার ফিশার বলেন, ‘‘এর বিশেষত্ব হলো, এগুলি অত্যন্ত ক্ষুদ্র কাঠামো৷ কখনো সেগুলি মাত্র কয়েক'শ পরমাণুর সমান৷ এতই ছোট, যে সেগুলি শরীরের টিস্যুর মধ্যে চালান করে ভালো করে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব৷''

এই ‘ক্ষুদ্র সাঁতারু' নৌকার মতো বৈঠা দিয়ে ধীরে ধীরে শরীরের তরলের মধ্যে এগিয়ে চলে৷ তবে শরীরের তরল পদার্থের বিশেষত্ব রয়েছে৷ অবস্থান পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তাদের ঘনত্ব বদলে যায়৷ গতি যত বেশি হয়, তরল তত পাতলা ও তার রেজিস্টেন্স তত কম হয়৷ ‘ক্ষুদ্র সাঁতারু'-র আধার যদি দ্রুত খুলে যায় এবং ধীরে বন্ধ হয়, তখন সে তরলের মধ্যে এগিয়ে চলে৷

আরও ছোট হওয়ায় ব্যবহারিক দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে ন্যানো-স্ক্রু৷ এর আয়তন একটি চুলের তুলনায় কয়েক হাজার গুণ কম৷ এমন স্ক্রু তৈরি করতে গবেষকদের নতুন পথে অগ্রসর হতে হয়েছে৷ ঘুরতে থাকা একটি প্লেটের মধ্যে ন্যানো স্ক্রু গজিয়ে ওঠে৷

একমাত্র মাইক্রোস্কোপের নীচেই তাদের নড়াচড়া দেখা যায়৷ এমন ন্যানো-প্রপেলার এক চৌম্বক ক্ষেত্রের মধ্যে সত্যি এগিয়ে যায়৷ সেটিকে চালাতে বিজ্ঞানীরা কয়েকটি জায়গায় ধাতুও ব্যবহার করেছেন৷ মাক্স-প্লাংক ইনস্টিটিউটের ডেবোরা ওয়াকার বলেন, ‘‘স্ক্রুটি আসলে কাচ দিয়ে তৈরি৷ কাঠামোর মধ্যে নিকেলের ছোট্ট একটি অংশ বসিয়েছি৷ সেটি আবার চৌম্বক গুণসম্পন্ন৷ তার উপর চৌম্বক ক্ষেত্রে স্ক্রু-টিকে ঘোরানো হয়, যাতে সেটি যে কোনো স্ক্রুর মতো ঘুরে-ঘুরে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে৷''

এই স্ক্রু এত ছোট যে, নীতিগতভাবে সেটিকে মানুষের কোষের মধ্যেও প্রয়োগ করা সম্ভব৷ তবে এখনো সেটিকে কোষের মধ্যে প্রতিস্থাপনের প্রক্রিয়া আবিষ্কার হয়নি৷ তবে টিস্যু বা তন্তুর মধ্যে তার প্রয়োগের সম্ভাবনা অনেক বেশি৷ যেমন চোখের মধ্যে৷ অধ্যাপক পেয়ার ফিশার বলেন, ‘‘চোখের ভিট্রেয়াস বডি-র মধ্য দিয়ে রেটিনা পর্যন্ত পৌঁছাতে ন্যানো প্রপেলার ব্যবহার একটা প্রয়োগ হতে পারে৷ সেই ন্যানো প্রপেলার সঙ্গে ওষুধ বা এজেন্ট নিয়ে এসে যথাস্থানে প্রয়োগ করতে পারে৷ আর ভালো ব্যাপার হলো, কাজের শেষে ন্যানো প্রপেলার আবার একই পথ দিয়ে স্ক্রু-র মতো ফিরে যেতে পারে৷''

শরীরের মধ্যে মিনি-মেশিনের চলাফেরা আর কল্পবিজ্ঞান নেই৷ কমপক্ষে গবেষণাগারে তা বাস্তব হয়ে উঠেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়