1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শরিয়তি আদালতের ফতোয়া মানতে বাধ্য করা অবৈধ

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট সম্প্রতি এক জনস্বার্থ মামলার রায়ে বলেছেন শরিয়তি আদালতের ফতোয়া বা নির্দেশ মানা বাধ্যতামূলক নয়৷ এই রায় নিয়ে ভারতের শরিয়তি আদালতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে বিতর্ক শুরু হয়েছে৷

default

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

একাংশ বলছে মুসলিম সমাজের মধ্যে পারিবারিক বিবাদ মেটাতে এটা মূলত একটা সালিশি ব্যবস্থা৷ ফতোয়া হলো সালিশির বিধান৷

ভারতে শরিয়তি আদালতের জারি করা ফতোয়ার কোনো আইনি বৈধতা নেই৷ তাই ঐ ফতোয়া বা নির্দেশ কাউকে মানতে বাধ্য করা যাবে না, যদিনা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি নিজে থেকে স্বেচ্ছায় তা মেনে নিচ্ছে৷ ফতোয়া জারি করে কাউকে শাস্তি দেয়া যাবে না৷

সম্প্রতি ভারতের শীর্ষ আদালতের এক ডিভিশন বেঞ্চ শরিয়তি আদালতের সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে এক জনস্বার্থ মামলায় এই রায় দেন৷ দিল্লির এক আইনজীবীর অভিযোগ, শরিয়তি আদালতগুলি নিকাহ, তালাক থেকে নিয়ে মুসলিম মহিলাদের পোশাক পরিচ্ছদ নিয়ে ফতোয়ার পর ফতোয়া জারি করে চলেছে৷ শরিয়তি আদালতগুলি কার্যত ভারতের বিচার ব্যবস্থার সমান্তরাল হয়ে মুসলিম সমাজে কাজ করছে৷

Muslimische Wählerinnen in Indien 10.04.2014

শরিয়তি আদালতের ফতোয়া মানতে বাধ্য করা অবৈধ

সুপ্রিম কোর্টের রায়ে বলা হয়, ফতোয়া দেয়াটা অবৈধ নাও হতে পারে৷ কারণ কাজি, মুফতি বা মৌলবিদের জারি করা ফতোয়া তাঁদের ব্যক্তিগত মত বা বিধান হতে পারে, কিন্তু সেই মত বা বিধান অন্যের ওপর জোর করে চাপিয়ে দেয়াটা বেআইনি৷ অনেক সময় এই ফতোয়া মানবাধিকারের সীমা ছাড়িয়ে অমানুষিক শারীরিক বা মানসিক নিষ্ঠুরতার পর্যায়ে চলে যায়৷ যেমন, জনস্বার্থ মামলায় উল্লেখিত একটি ঘটনার প্রসঙ্গ তুলে ধরা হয়৷ ২০০৫ সালে উত্তর প্রদেশের মজ:ফরনগরে এক বিবাহিতা মহিলাকে ধর্ষণ করে তাঁর শ্বশুর৷ মহিলা মুসলিম পঞ্চায়েতে অভিযোগ করলে পঞ্চায়েত বিধান দেয় মহিলার সঙ্গে শ্বশুরের যৌন সংসর্গ হওয়ায় ঐ শ্বশুরই হবে তাঁর স্বামী এবং তাঁর আসল স্বামীকে দেখতে হবে নিজের ছেলে হিসেবে৷

দেওবাঁধের দার-উল-উলুম ২০১০ সালে ফতোয়া জারি করে বিমা পলিসি অ-ইসলামিক৷ এতে সুদ এ ফাটকাবাজি মিশে আছে৷ ২০০৭ সালে ফতোয়া দেন, মুসলিম মেয়েরা টাইট জিনস পরতে পারবেন না৷ যেসব দম্পতি জন্ম নিরোধক ব্যবহার করতে চান, তাঁদেরকে প্রথমে হাকিম বা উনানির পরামর্শ নিতে হবে৷

সুপ্রিম কোর্টের এই বিতর্কিত রায় সম্পর্কে শরিয়তি আদালতের বিভিন্ন শীর্ষ প্রতিষ্ঠানগুলি কী বলছে? এদের মধ্যে দেখা দিয়েছে মতভেদ৷

দার-উল-কাজা, দার-উল-ইফতা এবং নিজাম-ই-কাজার মতো শরিয়তি প্রতিষ্ঠান আছে ভারতে৷ দারুল-ইফতা ফতোয়া জারি করে কোরান বা হাদিসের ব্যাখ্যা অনুসারে৷ কাজাও কার্যত তাই৷ বিচার নয় বিধান৷ দার-উল-কাজা এবং নিজাম-ই-কাজা যা শরিয়তি আদালত বলে পরিচিত৷

এই রায় সমর্থন করে মুসলিম পার্সোনাল ল-বোর্ডের কৌঁসুলি সওয়াল করেন, ফতোয়া মানতে কাউকে বাধ্য করা হয়না৷ আপত্তি থাকলে ঐ ব্যক্তি আদালতে যেতে পারেন৷ এটা বৈধ আদালতের সমান্তরাল বিচার ব্যবস্থা নয়৷ বাদি ও বিবাদিপক্ষ যদি স্বেচ্ছায় ঘরোয়া সমস্যা সমাধানের জন্য শরিয়তি আদালতের দ্বারস্থ হন, তাহলে ঐ আদালত সমস্যার ফয়সালা করতে তাদের মত বা বিধান দিয়ে থাকে৷ তা মানা বা না মানার জন্য জোর করা হয় না৷ এরফলে সাংবিধানিক আদালতের সময় এবং ঝামেলা লাঘব হয়৷

উত্তর প্রদেশের দেওবাঁধের দার-উল-উলুম রেক্টর মৌলানা মুফতি আবুল কাশিম নোমানি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় আমরা খারিজ করছি না আবার স্বাগত জানাচ্ছি না৷ তবে সিদ্ধান্ত নিতে সময় লাগবে৷ হিন্দ ইমাম অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মৌলানা মহম্মদ সাজিদ রসিদ মনে করেন, ধর্মীয় আচার আনুষ্ঠান বা রীতি নীতি পালন সাংবিধানিক আদালতের এক্তিয়ারে পড়ে না৷ কাজেই এইসব বিষয় নিয়ে আদালতে যাওয়া উচিত নয়৷ কেউ ইসলাম ধর্ম মানলে তাঁকে ধর্মের সবকিছুই মানতে বে৷ অর্থাৎ শরিয়ত না মানলে সে মুসলিম হতে পারেন না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়