1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শরণার্থীদের পথ কঠিন করল স্লোভেনিয়া, ক্রোয়েশিয়া

অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ ইউরোপের উত্তরের দেশগুলোতে পৌঁছাতে শরণার্থীরা বলকান অঞ্চলের দেশগুলো পার হয়৷ তবে এখন থেকে এই পথ কঠিন করে তুলেছে স্লোভেনিয়া আর ক্রোয়েশিয়া৷

রাষ্ট্র দু'টি বুধবার থেকে তাদের দেশে বিদেশিদের প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করেছে৷ ফলে যে বিদেশিরা স্লোভেনিয়ায় প্রবেশের শর্ত পূরণ করবে শুধু তাদেরই প্রবেশ করতে দেয়া হবে৷ আর যারা আশ্রয় পেতে আগ্রহী কিংবা অভিবাসী হতে আগ্রহী তাদের প্রবেশাধিকার দিতে মানবিক কারণ ও শেঙেনের নিয়মকানুন মানবে স্লোভেনিয়া৷ ক্রোয়েশিয়াও একই নীতি অনুসরণ করছে৷

স্লোভেনিয়ার এই সিদ্ধান্ত অনুপ্রাণিত করেছে সার্বিয়াকে৷ মেসিডোনিয়া ও বুলগেরিয়ার সঙ্গে তাদের যে সীমান্ত রয়েছে সেদিক দিয়ে বিদেশিদের প্রবেশের ক্ষেত্রে তারাও একই নীতি অনুসরণ করার ঘোষণা দিয়েছে৷

এদিকে, গ্রিস ও তুরস্কের মধ্যে মঙ্গলবার একটি চুক্তি সই হয়েছে৷ এর ফলে ইউরোপ যেসব অভিবাসীদের (যারা ইতিমধ্যে ইউরোপে পৌঁছে গেছে) না নেয়ার সিদ্ধান্ত নেবে তাদেরকে ফিরিয়ে নেবে তুরস্ক৷ বিনিময়ে তুরস্কের কয়েকটি শর্ত মেনে নিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন৷ যেমন তুরস্কে যে ২৭ লক্ষ সিরীয় শরণার্থী রয়েছে তাদের জন্য ইইউ আরও তিন বিলিয়ন ইউরো দেবে৷ এর আগেও তিন বিলিয়ন ইউরো দেয়ার অঙ্গীকার করেছিল ইইউ৷ এছাড়া ইইউ তুরস্কের নাগরিকদের ভিসা ছাড়াই তাদের অঞ্চলে প্রবেশের সুবিধা দেবে এবং সেটি জুন মাস থেকেই শুরু হবে৷

ভিডিও দেখুন 02:17

২০১৫ সাল থেকে এখন পর্যন্ত সোয়া লক্ষের বেশি শরণার্থী ইউরোপে প্রবেশ করেছে৷ এই সংখ্যা কমাতে একের পর এক পদক্ষেপ নিচ্ছে ইইউ৷ তুরস্কের সঙ্গে চুক্তি তারই একটি অংশ৷ ইইউ এই চুক্তিকে স্বাগত জানালেও জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার প্রধান চুক্তির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন৷ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালও এর সমালোচনা করেছে৷ ডয়চে ভেলের বারবারা ভেসেল মনে করছেন, ইউরোপের সবাই ক্রমেই যেন ‘দুর্গ ইউরোপ'-এর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন৷

জেডএইচ/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

বন্ধু, ইউরোপে শরণার্থী সংকটের ভবিষ্যত কী? মতামত জানান, নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়