1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

শনির বলয়ে ‘নতুন চাঁদের জন্ম'

সৌরজগতের দ্বিতীয় বৃহত্তম গ্রহ শনির বলয়ে এবার নতুন এক বরফপিণ্ডের গড়ে ওঠা দেখতে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা, যা নতুন একটি চাঁদের ‘জন্মমুহূর্ত' বলে তাঁরা মনে করছেন৷ সম্প্রতি মহাকাশ সংস্থা নাসা জানিয়েছে এ তথ্য৷

নাসার মহাকাশযান ক্যাসিনির পাঠানো সাদা-কালো ছবি বিশ্লেষণ করে তাঁরা দেখতে পেয়েছেন, শনির একেবারে বাইরের বলয়ে ধীরে ধীরে জমাট বাঁধছে খুদে সেই পিণ্ড৷

প্রাথমিকভাবে গবেষকরা এর নাম দিয়েছেন ‘পেগি'৷ তাঁদের ধারণা সত্যি হলে, পেগি হতে যাচ্ছে রহস্যঘেরা শনি গ্রহের ৬৩তম উপগ্রহ বা চাঁদ৷ক্যাসিনি গত মঙ্গলবার যে ছবি পাঠিয়েছে, সে অনুযায়ী, পেগির ব্যাস আধা মাইলের বেশি হবে না৷ সময়ের সাথে সাথে এর আকৃতি বদলাতে পারে, ভেঙে টুকরোও হয়ে যেতে পারে৷

USA Weltraum Saturn Mond Enceladus mit Wasser

শনির একেবারে বাইরের বলয়ে ধীরে ধীরে জমাট বাঁধছে খুদে পিণ্ড

পেগির গড়ে ওঠার এই প্রক্রিয়া থেকেই শনির অন্যান্য চাঁদের উৎপত্তির ইতিহাস বুঝতে চাইছেন গবেষকরা৷ ধারণা পেতে চাইছেন পৃথিবী এবং সৌরজগতের অন্য গ্রহগুলোর সৃষ্টি সম্পর্কেও৷

এ বিষয়ে বিজ্ঞান সাময়িকী ইকারুসে প্রকাশিত নিবন্ধের মূল লেখক ও লন্ডনের কুইন মেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কার্ল মারে বলেন, ‘‘এর আগে এ রকম কিছু আমরা আর দেখিনি৷ আমরা যা দেখছি, তা হয়তো একটি চাঁদের জন্ম, যখন সেটি সবেমাত্র শনির বলয় ছেড়ে নিজের বলয় তৈরি করে নিতে শুরু করেছে৷''

নাসার জেট প্রোপালশন ল্যাবরোটরির গবেষক লিন্ডা স্পিকার জানান, ২০১৬ সাল নাগাদ কাসিনি শনির বলয়ের কাছাকাছি পৌঁছাবে৷ তখন হয়ত আরো ভালোভাবে পেগির ওপর নজর বোলানোর সুযোগ মিলবে৷

গত আট বছর ধরে শনিকে ঘিরে অনুসন্ধান চালিয়ে আসছে ক্যাসিনি৷ এই গ্রহকে ঘিরে ৭৪ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত বলয়ের কারণে সবসময়ই জ্যোর্তিবিদদের বাড়তি মনোযোগ পেয়েছে শনি৷

জেকে/ডিজি (রয়টার্স, নাসা)

নির্বাচিত প্রতিবেদন