1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সাক্ষাৎকার

‘শতকরা ২০ ভাগ গর্ভপাত প্রাকৃতিক নিয়মেই হয়’

যারা বেশি বেশি গর্ভপাত করায় তাদের ভবিষ্যতে অনেক রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে৷ তাদের শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে৷ ভবিষ্যতে আর সন্তান নাও হতে পারে৷ জরায়ুতে সংক্রমণ হতে পারে৷ সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন অধ্যাপক ডা. নাসিমা বেগম৷

এছাড়া গর্ভপাত করালে পিরিয়ড নিয়মিত না হওয়াসহ অনেক রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে বলে জানান তিনি৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে আলাপকালে কথাগুলো বলছিলেন অধ্যাপক ডা. নাসিমা বেগম৷ তিনি স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের স্ত্রী রোগ ও প্রসূতি বিভাগের সাবেক প্রধান এবং বর্তমানে ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের স্ত্রী রোগ ও প্রসূতি বিভাগের চেয়ারম্যান৷

ডয়চে ভেলে: গর্ভপাত কী এবং এটা কেন হয়?

অধ্যাপক ডা. নাসিমা বেগম: মেয়েরা যখন অন্তঃসত্ত্বা বা গর্ভবতী হয় তখন একশ' জনের মধ্যে ২০ জনের গর্ভপাত হয়ে যায়৷ এটা একটা স্বাভাবিক নিয়ম, প্রাকৃতিক নিয়ম৷ গাছের যেমন ২০ ভাগ ফল পরিপুষ্ট হয় না, তেমনি ২০ ভাগ ভ্রুণ পরিপুষ্ট হয় না৷ এগুলোর প্রধান কারণ হচ্ছে জিনগত, ক্রোমোজমাল অ্যাবনর্মালিটি, মেয়েদের বা ছেলেদের ডিম্বানু বা শুক্রানুর ভেতরে যে ফলটা হয়, সেখানে যদি কোনো ‘ডিফেক্ট' থাকে, তখন এমনটা হতে পারে৷ এটাকেই মেইন কারণ হিসেবে ধরা হয়৷ এছাড়াও অনেক কারণ আছে৷ জরায়ুতে যদি কোনো ডিফেক্ট থাকে বা মহিলাদের ডায়াবেটিস, কিডনিতে, থাইরয়েডে সমস্যা বা ভাইরাল জ্বর হয়, এমনকি মানসিক কারণেও গর্ভপাত হতে পারে৷ অনেক সময় দেখা যায়, গর্ভপাতের কোনো কারণই খুঁজে পাওয়া যায় না৷ এটা প্রাকৃতিক নিয়ম অনুসারেই হয়ে থাকে৷

অডিও শুনুন 07:49

‘যাদের বেশি বেশি গর্ভপাত হয়, তাদের তো সমাজিক সমস্যা আছেই’

গর্ভপাতের লক্ষণ কী?

বিশেষ করে তিন মাস বা কারো কারো ক্ষেত্রে ৬ মাসের মধ্যে তলপেটে ব্যথা ও রক্তপাত শুরু হয়৷ আস্তে আস্তে এই ব্যথা বাড়তে থাকে৷ এতে জরায়ুর মুখ খুলে যায় এবং পুরো বা আংশিকভাবে চাকার মতো বা মাংস দলা বের হয়ে আসে ও ব্লিডিং হতে থাকে৷ এগুলোই সাধারণত গর্ভপাতের লক্ষণ৷

গর্ভপাতের শারীরিক ও মানসিক ঝুঁকি কী কী?

গর্ভপাতের শারীরিক ও মানসিক ঝুঁকি অনেকখানি আছে৷ একটা মেয়ে যদি সন্তান চায় এবং তার যদি গর্ভপাত হয়ে যায়, তাহলে সে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে৷ গর্ভপাতের কারণে রক্ত বের হতে হতে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়৷ কারো যদি বেশি রক্তপাত হয় তাহলে সে শকে চলে যেতে পারে বা মৃত্যুর মুখেও পতিত হতে পারে৷ গর্ভপাতের ফলে সে যদি আনহাইজেনিক অবস্থায় থাকে দীর্ঘদিন, এভাবে থাকলে সেপটিক অ্যাবরশন বা পরবর্তীতে তার অনেক ধরনের জটিলতা দেখা দিতে পারে৷

গর্ভপাত কতদিনের মধ্যে হয়?

সাধারণতো তিন মাসের মধ্যে হয়৷ ৮০ ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় তিন মাসের মধ্যে গর্ভপাত হয়ে গেছে৷ এছাড়া বাকিদের ছ’মাস বা ২৮ সপ্তাহের মধ্যে হতে দেখা যায়৷ তবে বেশিরভাগই প্রথম তিন মাসের মধ্যে হয়ে থাকে৷

গর্ভপাত কী হত্যার শামিল?

প্রশ্নটা ভিন্ন৷ যেটা অটোমেটিক হয়ে যাচ্ছে, সেটা তো আর হত্যার শামিল বলা যাবে না৷ অ্যাবনরমাল শিশুগুলোই সাধারণত ঝড়ে যায়৷  আমরা ডাক্তাররা কোনো মহিলার শারীরিক কারণ, স্বাস্থ্যগত কারণ, এছাড়া এমন কোনো কারণ আছে যেখানে মেডিক্যাল ইনডিকেশন আছে, সেখানে মেডিক্যাল টার্মিনেশন অব প্রেগনেন্সিও আছে৷ এখানে আগে মাকে বাঁচানোর চেষ্টা করি৷ মায়ের স্বাস্থ্যগত সমস্যা, কিডনির সমস্যা বা লিভারের সমস্যার কারণে এমন পরিস্থিতির তৈরি হয় যেখানে, সেখানে আমরা মেডিক্যাল টার্মিনেশন করতে পারি৷ কিন্তু যেখানে অবৈধভাবে গর্ভাপাত করায়, সেখানে অনৈতিকতার প্রশ্ন আছে৷

চিকিৎসা বিজ্ঞানে গর্ভপাতকে কতটা সমর্থন করা হয়?

চিকিৎসা বিজ্ঞান গর্ভপাতকে সেভাবে সমর্থন না করলেও মেডিক্যাল টার্মিনেশনে এটা করতে হয়৷ এটাকে আমরা সমর্থন করি৷ যার অনেকগুলো ইন্ডিকেশন আছে৷ সামাজিক কারণও রয়েছে৷ ধরুন, ধর্ষণ বা খারাপ কোনো দুর্ঘটনা অথবা ফ্যামিলি প্ল্যানিংয়ের কোনো ফেইলর মেথডেও মেডিক্যাল টার্মিনেশন বা গর্ভপাত এখন অনেক দেশেও সরকারই করার অনুমতি দিয়েছে৷ আমাদের দেশেও আমরা মেডিসিনের মাধ্যমে গর্ভপাত করে থাকি৷ অথবা সার্জিক্যাল এমআরের মাধ্যমেও করা যেতে পারে৷ যেখানে পরিবারপরিকল্পনা পদ্ধতি ব্যর্থ হয় অথবা আনপ্ল্যান্ড প্রেগনেন্সি বা ধর্ষণের ঘটনা ঘটে, সেখানে তো এটার মূল্য কিছুটা থাকেই৷

গর্ভপাত কীভাবে এড়ানো যায়?

গর্ভপাত এড়াতে হলে প্রথম থেকেই স্বাস্থ্যগত চেকআপ করতে হবে৷ কোনো অসংগতি বা সমস্যা বা রোগ থাকলে তার চিকিৎসা করাতে হবে৷ সঠিকভাবে পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ করলে গর্ভপাত এড়ানো সম্ভব হবে৷ স্বামী বা স্ত্রী শুধু নয়, সমাজের সবার সচেতনতা তৈরি হলে এটা এড়ানো সম্ভব৷

গর্ভপাত হওয়া একজন নারী  কী কী ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হন?

যাদের বেশি বেশি গর্ভপাত হয়, তাদের তো সমাজিক সমস্যা আছেই৷ যাদের সন্তান নেই, তাদের তো সমাজে খারাপ অবস্থার মধ্যে থাকতে হয়৷ আর যারা বেশি বেশি গর্ভপাত করায়, তাদের ভবিষ্যতে অনেক রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে৷ তাদের শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে, ভবিষ্যতে আর সন্তান না-ও হতে পারে৷ যৌন প্রদাহ, জরায়ুতে সংক্রমণ হতে পারে৷ পিরিয়ড নিয়মিত না হওয়াসহ অনেক রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে৷ এগুলোকে আমরা সব সময় নিরুৎসাহিত করি৷

গর্ভপাতকে কী উৎসাহিত বা নিরুৎসাহিত করা উচিত?

যারা অবৈধভাবে গর্ভপাত করান বা আনহাইজেনিকভাবে গর্ভপাত করান, তাদের বা আনসেফ গর্ভপাতকে অবশ্যই নিরুৎসাহিত করা উচিত৷ তবে একটা পার্ট রয়ে গেছে মেডিক্যাল টার্মিনেশন৷ এটা ডক্টরদের কাছে থেকে যাবে৷ এটার প্রয়োজন থাকলে আমরা ডক্টররা সব সময় নেব৷ যারা অনৈতিকভাবে বা অবৈধভাবে এটা করাচ্ছে, সেটা আমরা সব সময় নিরুৎসাহিত করব৷ সেটা সামাজিক অবক্ষয়, শারীরিক বা মানসিক সব দিক থেকেই ক্ষতিকর৷

যারা সন্তান নিতে চান, গর্ভপাত এড়াতে তাদের প্রতি আপনার পরামর্শ কী?

আমার পরামর্শ হলো – তারা সম্পূর্ণভাবে সুস্থ আছেন কিনা তা দেখার জন্য তাদের শারীরিক চেকআপ দরকার৷ যেমন ইউরিনারি ইনফেকশনের চিকিৎসা নিয়ে নেয়াই ভালো৷ ডায়াবেটিস বা অন্য কোনো রোগ থাকলে সেটা আগে থেকেই সারিয়ে নেয়া ভালো৷ এটার জন্য তাকে আগে থেকেই সচেতন হতে হবে৷ আমরা কিছু ওষুধ দেই, যেমন ফলিক অ্যাসিড, যাতে গর্ভপাত না হয় সেজন্য৷ এই ফলিক অ্যাডিস বা ওষুধটা অনেক কার্যকরী৷ যে সমস্ত কারণে গর্ভপাত হতে পারে, সে জন্য আমরা তাদের পরামর্শ দিতে পারি৷ এর জন্য শারীরিক সুস্থতা ও মানসিক প্রস্তুতি নিয়েই তাদের এগুনো উচিত৷

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়