1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

শচীনের শততম শতক আর হল না

লসিথ মালিঙ্গার বলে কুমার সাঙ্গাকারার হাতে ক্যাচ তুলে বিদায় নিলেন লিটল মাস্টার৷ কিন্তু মাঠ ছাড়ার সময়েও করতালি পেলেন বিগ মাস্টার এবং বিজয়ী বীরের মতো৷

India, Sachin, Tendulkar, Cricket, World, Cup, final, match, India, Sri Lanka, Mumbai, মাঠ, ফিরছেন, হতাশ, শচীন, ক্রিকেট, তেন্ডুলকর, ভারত, শ্রীলঙ্কা

মাঠ থেকে ফিরছেন হতাশ শচীন

অথচ শ্রীলঙ্কার ছয় উইকেটে ২৭৪ রানের টোটাল ধাওয়া করার জন্য আজ তেন্ডুলকরের ব্যাটের খুবই প্রয়োজন ছিল৷ এই প্রতিবেদন লেখার সময় গাম্ভির এবং কোহলি উইকেটে৷ শুনছি ফ্যানরা বলছেন, ওরা গোটা বিশেক ওভার পার করে দিক, আরও গোটা ষাটেক রান যোগ করুক৷ তারপর যুবরাজ এবং ধোনি ইত্যাদিরা ফিনিশ করবেন৷ সেহবাগ এবং শচীন এ'ভাবে অকালে বিদায় নেওয়ার পর তাদের এই আশাবাদিতা আদর্শ বটে - কিন্তু কতোটা বাস্তবসম্মত? এবং এই দীন-হীন প্রতিবেদকই বা কুডাক ডাকার কে?

আমি শুধু মালিঙ্গার ঐ গুলতি ছোঁড়া ডেলিভারি দেখলেই ডরাই৷ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনালে শচীনের ইনিংস মাত্র ১৪ বলের মাথায় খতম করে দেওয়ার ক্ষমতা হয়তো শুধু এই মালিঙ্গারই ছিল৷ এর আগে সেহবাগের উইকেট নিতে দেখা গেল তাঁকে৷ অপরূপ একটি বল৷ আর শচীনের বিয়োগে আমরা যার কৃতিত্বের কথাটা আপাতত উল্লেখ করতেই ভুলে যাচ্ছি, তিনি হলেন শ্রীলঙ্কার মাহেলা জয়াবর্ধনে, যিনি ১০৩ নট আউট করে হয়তো শ্রীলঙ্কার সম্ভাব্য জয়ের ভিত্তি গড়ে দিয়ে গেলেন৷

তবে এ' দুঃখ ভারতের ক্রীড়ামোদীরা আগেও পেয়েছেন৷ জোহানেসবার্গে ২০০৩ সালের ফাইনালেও অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শচীন মাত্র চার রানে আউট হয়েছিলেন৷ ভারত হেরেছিল ১২৫ রানে৷ তার পরেও তো সূর্য উঠেছে, শচীনের ব্যাট আবার ঝলসেছে৷ তবে ২০১৫-য় অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপে শচীনের বয়স হবে ৪২৷ কাজেই লিটল মাস্টারের এবারকার বিদায়টা বেশ বড় হয়েই তাঁর ফ্যানদের বুকে বাজবে৷

প্রতিবেদক: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

ইন্টারনেট লিংক