1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘লোলা’তে চমক দেখালো ‘দ্য হোয়াইট রিবন’

অস্কার থেকে খালি হাতে ফিরতে হয়েছিলো, কিন্তু জার্মানি থেকে দুহাত ভরে দেশে ফিরছেন অস্ট্রিয়ার পরিচালক মিশায়েল হানেকে৷ শুক্রবার জার্মান ফিল্ম এ্যাওয়ার্ডে একটি নয়, দুটি নয়, দশ-দশটি পুরস্কার জিতে নিল তাঁর ছবি ‘দ্য হোয়াই রিবন’৷

default

সাদা কালো ছবি দ্য হোয়াইট রিবন

জার্মানির চলচ্চিত্র পুরস্কারকে জার্মান ভাষায় ডাকা হয় লোলা৷ এবারের সেই লোলার প্রায় সবগুলো ক্যাটাগরিতেই জিতে নিলো সাদা কালো ছবি ‘ডাস ভাইস বান্ড' বা ‘দ্য হোয়াইট রিবন'৷ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার কিছুদিন আগের উত্তর জার্মানির একটি গ্রামের পটভূমিতে নির্মিত এই ছবি অস্কারেও মনোনয়ন পেয়েছিল৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত পুরস্কার জোটেনি৷ কান চলচ্চিত্র উৎসবেও পুরস্কার জুটেছিল এই ছবির কপালে৷ কিন্তু জার্মানিতে এসে যেন একেবারে জয় করে নিল৷ সেরা ছবি, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনেতা ও সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী সহ দশটি লোলা গেল এবার ‘দ্য হোয়াইট রিবন' এর ঝুঁলিতে৷

Haneke Deutscher Filmpreis

পুরস্কার হাতে অস্ট্রিয়ার পরিচালক মিশায়েল হানেকে

সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছেন এই ছবির প্রধান চরিত্র বুরগার্ট ক্লাউসনার যিনি একজন প্রোটেস্ট্যান্ট যাজকের নামভূমিকায় দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন৷ সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছেন তুর্কি বংশোদ্ভূত জার্মান সিবেল কেকিলি৷ তিনি অভিনয় করেন ‘এরেনমর্ড' বা ‘দ্য ব্রেভ' ছবিতে৷ এর আগেও সেরা অভিনেত্রী হিসেবে লোলা জিতেছিলেন সিবেল কেকিলি৷ তবে এবারের সবচেয়ে বড় চমক ছিলো সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী হিসেবে মাত্র ১৫ বছর বয়সী মারিয়া ভিক্টোরিয়া ড্রাগুসের লোলা বিজয়৷ ‘দ্য হোয়াইট রিবন' ছবিটিতে তাঁর সাবলীল উপস্থিতি এবার সকলেরই নজর কেড়ে নিয়েছে৷ উল্লেখ্য, এবারের লোলাতে মোট ১৩টি ক্যাটাগরিতে মনোনয়ন পায় ‘দ্য হোয়াইট রিবন' ছবিটি৷ এবারের ৬০ তম জার্মান ফিল্ম এ্যাওয়ার্ডে উপস্থিত ছিলেন স্বয়ং জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জার্মান তারকা বারবারা শ্যোনেবের্গ, যিনি এই মুহুর্তে অন্তঃসত্বা৷

প্রতিবেদক: রিয়াজুল ইসলাম, সম্পাদনা: সাগর সরওয়ার

সংশ্লিষ্ট বিষয়