1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

‘লুম ব্যান্ড' পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর?

জার্মানিতে শিশু-কিশোরদের প্রিয় খেলার সামগ্রীর তালিকায় সম্প্রতি ‘লুম ব্যান্ড' একটা বড় অংশ দখল করে নিয়েছে৷ তবে এই ফিতা বা বন্ধনী ভবিষ্যতে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷

চুল বাঁধার জন্য যে রাবার ব্যান্ড রয়েছে, লুম ব্যান্ড দেখতে অনেকটা সেরকম৷ তবে এগুলো হরেক রংয়ের হয়ে থাকে৷ শিশু-কিশোররা এই ব্যান্ড বুনে ব্রেসলেট, নেকলেস সহ অনেক কিছু তৈরি করতে পারে৷ এই কাজ সহজ করার জন্য ক'বছর আগে বাজারে এসেছে ‘রেইনবো লুম' নামে বিশেষ এক ধরনের তাঁত৷

সমস্যা হচ্ছে, লুম ব্যান্ড তৈরি হয় প্লাস্টিকের মতো এক ধরনের উপাদান দিয়ে৷ ঠিক রাবার ব্যান্ড বা হেয়ার ব্যান্ডের মতো৷ এই উপাদান এতটাই তাপ প্রতিরোধী যে, পরবর্তীতে একে গলিয়ে অন্য কোনো কিছুতে পরিণত করা সম্ভব নয়৷ ফলে লুম ব্যান্ড নিয়ে যখন খেলা শেষ হবে, তখন সেগুলো যেখানে সেখানে ফেলা হতে পারে৷ সেখান থেকে তাদের অবস্থান হতে পারে সাগরে৷ আর সেখানেই আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের৷ কারণ প্লাস্টিক জাতীয় পণ্য সাগরের পানিতে মিশে সাগরের তলদেশের পরিবেশের যে ক্ষতি করতে পারে, লুম ব্যান্ডের পক্ষেও তেমনটা সম্ভব, বলে মনে করছেন তাঁরা৷

Lego Steine auf den britischen Stränden

চুল বাঁধার জন্য যে রাবার ব্যান্ড রয়েছে, লুম ব্যান্ড দেখতে অনেকটা সেরকম

ব্রিটেনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সংস্থা ‘ওয়েস্টকানেক্ট' সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে লুম ব্যান্ড ভবিষ্যতে ক্ষতির কারণ হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে৷

এর সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন ট্রেসি উইলিয়ামস৷ তিনি ইংল্যান্ডের নিউকোয়ে বিচ এলাকায় পরিষ্কার কর্মী হিসেবে অনেকদিন ধরে কাজ করছেন৷ সাগরে ভেসে আসা প্লাস্টিক সহ অন্যান্য বর্জ্য পরিষ্কার করাই তাঁর কাজ৷ তিনি বলেন, ‘‘অনেক লুম ব্যান্ডই এখন রাস্তাঘাটে পড়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে৷ পরে সেগুলো নর্দমায় পড়ে গিয়ে সেখান থেকে নদী এমনকি সাগরে চলে যাচ্ছে৷'' উইলিয়ামস বলেন, এখনই তিনি উপকূল এলাকায় প্রতিদিন গড়ে পাঁচটির মতো লুম ব্যান্ডের তৈরি নেকলেস কিংবা ব্রেসলেট পাচ্ছেন৷ ‘‘ভবিষ্যতে এটা বড় ইস্যুতে পরিণত হবে'', বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

পরিবেশবাদী সংগঠন গ্রিনপিসের কর্মী ইলসে স্মিটও লুম ব্যান্ডকে ভবিষ্যতের জন্য একটা বড় সমস্যা মনে করছেন৷ তবে সেটা যেন না হয় সেক্ষেত্রে মা-বাবাকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন