1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

লিবিয়ায় বিরোধীদের উপর বিমান এবং ট্যাংক হানা

লিবিয়ায় সরকার বিরোধীদের দখলকৃত শহরগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিতে মরিয়া গাদ্দাফিপন্থী সেনারা৷ চলছে ট্যাংক এবং বিমান হামলা৷ আন্তর্জাতিক সমাজ সেদেশে উড়াল নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি এখনো আলোচনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রেখেছে৷

default

ফাইল ফটো

সর্বশেষ পরিস্থিতি

লিবিয়ার জাউইয়া শহরে সরকার বিরোধীদের উপর ব্যাপক হামলা চালিয়েছে গাদ্দাফিপন্থী সেনারা৷ রাজধানী ত্রিপোলির মাত্র ৫০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত এই শহরটিকে কার্যত ছাইয়ে পরিনত করছে হামলাকারীরা৷ সরকারি এই হামলায় অনেক প্রাণহানির আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ বিশেষ করে নারী এবং শিশুরা হতাহতের তালিকায় রয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি৷ এছাড়া রাস লানুফ শহরে বিমান হামলা চালায় গাদ্দাফিপন্থীরা৷ এই প্রসঙ্গে সেদেশের মন্ত্রী পরিষদের উপদেষ্টা ইউসুফ সাকির বলেন, লিবিয়ার সেনা বাহিনী প্রথমবারের মতো বিভিন্ন শহর থেকে বিদ্রোহীদের সরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ সেনারা ইতিমধ্যে পশ্চিমের শহরগুলোতে অভিযান শুরু করেছে, পর্যায়ক্রমে তারা বেনগাজির দিকে অগ্রসর হবে৷

এদিকে, জাতিসংঘ জানিয়েছে, লিবিয়ায় সহিংসতায় ১ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে এবং দুই লাখের বেশি মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে৷

Flash-Galerie Libyen Unruhen Opposition

বিরোধীরাও সরকারি হামলার জবাব দিচ্ছে

আলোচনা প্রস্তাব নাকচ

সেদেশের সরকারিবিরোধী আন্দোলনকারীরা জানিয়েছে, ক্ষমতার পালাবদল বিষয়ক একটি আলোচনা প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছে তারা৷ বিদ্রোহীদের নেতা সাবেক বিচারমন্ত্রী মোস্তফা আবদেল জলিল বলেছেন, লিবিয়ার শীর্ষ নেতা নিজে কাউকে আলোচনার জন্য পাঠাননি৷ কিন্তু ত্রিপোলীর আইনজীবীরা মধ্যস্থতার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷ বলাবাহুল্য, মুয়াম্মার গাদ্দাফি আগেই জানিয়েছিলেন, তাঁর কোন আনুষ্ঠানিক পদ নেই, তাই পদত্যাগ অসম্ভব৷

আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া

পশ্চিমা শক্তিগুলো লিবিয়ায় উড়াল নিষেধাজ্ঞা জারির পথে অগ্রসর হচ্ছে৷ ব্রিটেন এবং ফ্রান্স এই বিষয়ে একটি খসড়া নীতিমালা তৈরি করেছে৷ মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন অর্গানাইজেশন অব দ্য ইসলামিক কনফারেন্সও উড়াল নিষেধাজ্ঞার পক্ষে মত দিয়েছে৷ এছাড়া লিবিয়ার প্রসঙ্গে টেলিফোনে আলোচনা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন৷ উভয় নেতা লিবিয়ায় সহিংসতা দমনে এবং গাদ্দাফিকে ক্ষমতা থেকে অপসারণের বিষয়ে একমত হয়েছেন৷ অবশ্য মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন জানিয়েছেন, লিবিয়ায় উড়াল নিষেধাজ্ঞা জারির বিষয়ে যেকোন সিদ্ধান্ত নেবে জাতিসংঘ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নয়৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সাগর সরওয়ার

নির্বাচিত প্রতিবেদন