1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

লিবিয়ায় বিমান হামলা নিয়ে জোর বিতর্ক

লিবিয়ায় বিমান হামলার পক্ষে বিপক্ষে কথা বলছে বেশ কিছু দেশ৷ প্রেসিডেন্ট ওবামা জানিয়েছেন, কোনো অবস্থাতেই সেনা পাঠানো হবে না লিবিয়াতে৷ তুরস্ক জানিয়েছে আরেকটি ‘ইরাক’ আমরা দেখতে চাই না৷

default

লিবিয়া থেকে পালাচ্ছে বাংলাদেশি শ্রমিকরা (ফাইল ফটো)

বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তেলের জন্যই এই হামলা চালানো হচ্ছে৷ বিমান হামলার বিপক্ষে রয়েছে চীনও৷

লিবিয়ায় সেনা পাঠানো প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট ওবামা এক ভাষণে বলেন, ‘‘আমি গতকালকেই বলেছি, আমরা কোনো অবস্থাতেই লিবিয়ায় সেনা পাঠাবো না৷ আবারো বলছি, কোনো সেনা আমরা পাঠাবো না৷ কম্যান্ডার-ইন-চিফ হিসেবে আমি বলছি, যেসব সেনা লিবিয়ায় কাজ করছে তাদের ওপর আমার পূর্ণ আস্থা রয়েছে৷ তারা আত্মসম্মানের সঙ্গে তাদের কাজ সম্পন্ন করবেন৷''

অর্থাৎ লিবিয়ায় কোনো মার্কিন সেনা দেখা যাবে না৷ লিবিয়ায় বিমান হামলার সমালোচনা করছে বেশ কিছু দেশ৷ তুরস্ক জানিয়েছে, লিবিয়ায় এই বিমান হামলার কারণে সাধারণ মানুষ মারা যেতে পারে৷ তুরস্কের পত্রিকা ‘ইয়েনি সাফাক' বেশ স্পষ্ট করেই জানিয়েছে, ‘কোনো অবস্থাতেই আমরা আরেকটি ইরাক দেখতে চাচ্ছি না৷'

Flash-Galerie Libyen Flakfeuer in Tripolis

ত্রিপোলিতে আক্রমণ

বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রী বয়কো বরিসভ বলেন, ‘‘তেলের জন্যই লিবিয়ায় হামলা চালানো হচ্ছে৷ আমরা কোনো অবস্থাতেই এই ধরণের কাজকে সমর্থন করি না, করবো না৷ লিবিয়ায় হামলার পেছনের মূল উদ্দেশ্য পরিস্কার করে জানানো হয়নি৷ আমি বিশ্বাস করি পেট্রোল, এবং কার দখলে থাকবে এই তেলক্ষেত্রগুলো – এই প্রশ্নের উত্তর জানতেই বিমান হামলা চালানো হচ্ছে লিবিয়ায়৷''

তবে ন্যাটো লিবিয়ায় কোনো হামলা চালাবে না৷ গত সপ্তাহের শেষে ব্রাসেলসে ন্যাটো সদস্য দেশগুলো কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি৷ তুরস্ক, ইতালি, জার্মানি এবং ফ্রান্স ন্যাটো হামলার বিরোধিতা করে৷ তুরস্ক থাকে সবচেয়ে সোচ্চার৷ ফরাসি কূটনীতিকরাও এর বিরোধিতা করেন৷ তাঁরা বলেন, আরব বিশ্বে ন্যাটো বাহিনীর হামলার যথেষ্ঠ বদনাম রয়েছে৷ আজ এ বিষয়ে আবারো সদস্যদেশগুলো মিলিত হবে বলে জানা গেছে৷

চীনও এই বিমান হামলার বিরুদ্ধে৷ আজ চীনের বেশ কিছু পত্রিকায় লেখা হয়, আন্তর্জাতিক আইন অমান্য করে এই বিমান হামলা চালানো হচ্ছে৷ মধ্যপ্রাচ্যকে আবারো ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে৷ তবে গত সপ্তাহে যখন নিরাপত্তা পরিষদে এই হামলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় চীন তখন ‘ভেটো' দেয়নি৷ হামলার বিপক্ষে যদি একটি ভেটো পড়তো তাহলে কি এই হামলা চালানো সম্ভব হতো? এই প্রশ্ন এখন অনেকের মনে৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

সংশ্লিষ্ট বিষয়