1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

লিবিয়ায় বিদ্রোহীদের উপর পাল্টা আক্রমণ

গাদ্দাফি বাহিনী মিস্রাতার কাছে একটি নতুন রণাঙ্গণ খুলেছে, বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণ৷ শহরটির উপর মর্টার এবং কামান দিয়ে গোলাবর্ষণ করছে৷

default

‘এটা যুদ্ধ নয়, বিপ্লব,’ বলেছেন এক বিদ্রোহী নেতা

মিস্রাতা এবং জাউইয়া, পশ্চিমে তো এই দু'টি শহরই বিদ্রোহীদের দখলে৷ গাদ্দাফি অন্তত পশ্চিমাংশটাকে কণ্টকমুক্ত করার চেষ্টা করছেন৷ তবে কাজটা বিশেষ সহজ হবে না৷ মিস্রাতায় বিদ্রোহীরাও রকেট-চালিত গ্রেনেড এবং বিমান-বিধ্বংসী কামান নিয়ে আক্রমণের প্রত্যুত্তর দিচ্ছে৷ স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে এগারোটা নাগাদ মিস্রাতার উপর গোলাবর্ষণ শুরু হয়, কিন্তু তার কয়েক ঘণ্টা পরেই তা আবার প্রায় পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায় বলে খবর৷

এছাড়া পূর্ব রণাঙ্গণেও যুদ্ধ কিছু থেমে নেই৷ সেখানে বিদ্রোহীরা গাদ্দাফির নিজের শহর সির্তের দিকে এগোচ্ছিল৷ কিন্তু উপকুলেরই ছোট্ট শহর বিন জাওয়াদের কাছে তারা গাদ্দাফি সৈন্যদের বাধা পায়৷ গাদ্দাফির প্রতি বিশ্বস্ত সৈন্যরা এখানেও জঙ্গিজেট ব্যবহার করেছে৷ হতাহতের কোনো খবর না থাকলেও, বিন জাওয়াদ থেকে রাস লানুফে প্রত্যাবর্তনরত বিদ্রোহী যোদ্ধাদের কাছ থেকে শোনা গেছে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের কথা৷ বর্ণনা হিসেবে কেউ বলেছেন, ‘‘মৃত্যু''৷ কেউ বলেছেন, ‘‘ভিয়েতনাম''৷

Libyen Gipfelkonferenz der Arabischen Liga

গতবছরও সির্তে’তে আরব লীগের শীর্ষ সম্মেলন করিয়েছেন মুয়াম্মার গাদ্দাফি

বিন জাওয়াদ সির্তে থেকে শ'খানেক কিলোমিটার দূরে৷ বিদ্রোহীরা শনিবার বিন জাওয়াদ দখল করে, পরে আবার ছেড়েও দেয়৷ এবং তখনই গাদ্দাফির অনুগত সৈন্যরা সেখানে ঢুকে এই ‘এ্যামবুশ' বা ফাঁদ সৃষ্টির সুযোগ পায়৷ রাস লানুফে ডাক্তাররা দু'জন মৃত এবং ২২ জন আহতের কথা বলছেন৷ বিদ্রোহীরা তাদের ভারী মেশিনগান বসানো গাড়িগুলো নিয়ে রাস লানুফে ফিরে আবার নতুন করে তৈরী হচ্ছে৷

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তো একটি ব্রিটিশ মিশনের কথা শোনা যাচ্ছে৷ প্রতিরক্ষামন্ত্রী লায়াম ফক্স নিজেই বলেছেন, ব্রিটেনের একটি কূটনৈতিক প্রতিনিধিদল বেনগাজিতে রয়েছে৷ অপরদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নও একটি বিশেষজ্ঞ মিশন পাঠিয়েছে বলে ইইউ'এর পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিনিধি ক্যাথরিন এ্যাশটন নিজে জানিয়েছেন৷ তবে ইইউ মিশনটি শুধুমাত্র মানবিক সাহায্য এবং উদ্বাস্তুদের স্থানান্তরণের প্রশ্নটি বিবেচনা করবে৷

যুদ্ধে এখন কি ঘটতে চলেছে, তাই নিয়েই জল্পনা-কল্পনা৷ বিদ্রোহীদের তরফে নানা খবর ও গুজবের মধ্যে এ'ও শোনা যাচ্ছে, সির্তের গাদ্দাফদা উপজাতির সদস্যরা নাকি বিদ্রোহীদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করেছে৷ বিদ্রোহীরা তাদের ‘ডাক' পাওয়ার অপেক্ষা করছে৷ সির্তের ফর্জান উপজাতির সৈন্যরাও নাকি বিদ্রোহীদের পক্ষে৷ কাজেই আজ নয়তো কাল সির্তের পতন ঘটবেই৷ তবে এখন এক একটি উপজাতি তারা কোনদিকে যোগ দেবে, সেই সিদ্ধান্ত নেবে৷ এক হিসেবে লিবিয়া তার ইতিহাসে ফিরে গেছে, বলা চলে৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন