1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

লিবিয়ায় অপহৃত হয়েছেন আরো এক বাংলাদেশি

হেলাল উদ্দিনের পর লিবিয়ায় আরো এক বাংলাদেশিকে একই দিনে একই জায়গা থেকে আইএস জঙ্গিরা অপহরণ ও জিম্মি করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে৷ তাঁর নাম মো: আনোয়ার হোসেন৷ তিনি নোয়াখালীর বাসিন্দা৷

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আনোয়ার হোসেনের অপহরণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে৷

মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, শুক্রবার হেলাল উদ্দিনের সঙ্গে একই ঘটনায় অপহৃত হন আনোয়ার হোসেন৷ কিন্তু নামের মিল থাকায় প্রথমে তাঁকে সুদানি নাগরিক বলে ভুল করেছিল স্থানীয় কর্তৃপক্ষ৷ পরবর্তীতে তাঁকে বাংলাদেশি নাগরিক বলে নিশ্চিত করা হয়৷

সোমবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, শুক্রবার লিবিয়ার সিরতে শহরের দক্ষিণে আল-ঘানি তেলক্ষেত্রে হামলা চালিয়ে ১১ জন প্রহরীকে হত্যা করে আইএস জঙ্গিরা৷ এরপর স্থানীয় সরকারি বাহিনী পাল্টা আক্রমণ চালিয়ে তাদের হটিয়ে দেয়৷ তখন যে নয়জন বিদেশি নাগরিককে আইএস অপহরণ এবং জিম্মি করে তাঁদের মধ্যে বাংলাদেশের নাগরিক হেলাল উদ্দিনও রয়েছেন৷ আর মঙ্গলবার আনোয়ার হোসেনের অপহরণের খবর জানা গেল৷

বিবৃতিতে বলা হয়, ত্রিপোলিতে বাংলাদেশি দূতাবাস অপহৃত বাংলাদেশিদের অবস্থান জানার চেষ্টা করছে৷ তাঁকে কোথায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং তিনি কী অবস্থায় আছেন সে খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করছে দূতাবাস৷ লিবিয়ার জাতীয় তেল কোম্পানি এবং ভিওএস নামে যে তেলক্ষেত্র থেকে অপহরণ করা হয়েছে তার কর্মকর্তাদের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছেন দূতাবাসের কর্মকর্তারা৷ বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে ত্রিপোলি দূতাবাসের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে৷

মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করা হলে জানানো হয়, এ বিষয়ে নতুন কোনো তথ্য নেই৷ এখনো বাংলাদেশি নাগরিকদের অবস্থান জানা যায়নি৷ একজন কর্মকর্তা জানান, ‘‘অপহৃত দুই বাংলাদেশিকে উদ্ধারে বাংলাদেশের পক্ষে আলাদা কোনো উদ্যোগ নেয়ার সুযোগ নেই৷ লিবিয়া সরকার এবং অন্যান্য দেশ যে উদ্যোগ নেবে সেই উদ্যোগের সঙ্গেই কাজ করবে বাংলাদেশ৷''

তবে মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘দুই বাংলাদেশি নাগরিককে উদ্ধারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে বাংলাদেশকে আশ্বস্ত করেছে লিবিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷ ঘটনার পরপরই পার্শ্ববর্তী আরেকটি তেলক্ষেত্রে কর্মরত আরো ২১ জন বাংলাদেশিকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে৷''

অপহৃত একজন হেলাল উদ্দিনের বাড়ি জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ গজারিয়া গ্রামে৷ মাদারগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ড. কামরুজ্জামান ডয়চে ভেলেকে জানান, অপহরণের খবর পাওয়ার পর সোমবারই হেলাল উদ্দিনের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে৷ প্রশাসন এবং পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতিনিধিরা তাঁর গ্রামের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন৷ তাদের বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করে সরকারকে জানানো হয়েছে৷

জানা গেছে, দক্ষিণ গজারিয়া গ্রামের মৃত আমাজ উদ্দীনের পুত্র হেলাল উদ্দীন ৬ বছর আগে লিবিয়া যান৷ আটমাস আগে তিনি দুই মাসের ছুটিতে বাড়িতে এসেছিলেন৷ গ্রামের বাড়িতে তাঁর স্ত্রী, দুই ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে৷

হেলালের স্ত্রী আলেয়া বেগম ডয়চে ভেলেকে টেলিফোনে জানান, অপহরণের খবরে তাঁদের পুরো পরিবার শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে৷ আত্মীয়-স্বজন, এলাকা এবং প্রশাসনের লোকজন ছুটে আসছেন৷ কিন্তু কেউই তাঁর স্বামীকে উদ্ধারের আশ্বাস দিতে পারছেন না৷ কেউ জানাতেও পারছেন না যে তাঁর স্বামী কোথায় কী অবস্থায় আছেন৷ তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাঁর স্বামীকে উদ্ধারের ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান৷

হেলাল উদ্দিনের মেয়ে হেলেনা আক্তার ডয়চে ভেলেকে জানান, পুলিশ ও প্রশাসনের লোকজন সোমবার বিকেলে তাদের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের খোঁজ খবর নিয়েছেন৷ পরিবারের বিস্তারিত তথ্যও নিয়েছেন৷ তাঁরা বলেছেন এই তথ্য তাঁরা ঢাকায় পাঠাবেন৷ কিন্তু তাঁরা তাঁর বাবাকে উদ্ধারের কোনো আশ্বাস বা তিনি কোথায় কীভাবে আছেন তা জানাতে পারেননি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন