1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

লিবিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে আজ লন্ডনে সম্মেলন

লিবিয়ায় যৌথ বাহিনীর অভিযানে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল, বললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ এদিকে গাদ্দাফি বাহিনীর প্রতিরোধের মুখে এখনো সির্ট শহরের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি বিদ্রোহীরা৷

default

বারাক ওবামা

সবশেষ পরিস্থিতি

সোমবার গাদ্দাফির জন্মভূমি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায় বিদ্রোহীরা৷ কিন্তু গাদ্দাফি বাহিনীর প্রবল প্রতিরোধের মুখে সেটা সম্ভব হয়নি৷ আজদাবিয়া, ব্রেগা, রাস লানুফ এসব শহর যেমন খুব সহজেই নিয়ন্ত্রণে নিতে পেরেছে বিদ্রোহীরা সির্টের ক্ষেত্রে সেটা সম্ভব হয়নি৷ এদিকে লিবিয়ার সাবেক বিচারমন্ত্রীর নেতৃত্বে বিদ্রোহীরা যে জাতীয় পরিষদ গঠন করেছে তাকে স্বীকৃতি দিয়েছে কাতার৷ এর আগে ফ্রান্স ঐ পরিষদকে স্বীকৃতি দিয়েছিল৷

ওবামা

লিবিয়ায় অভিযানের ব্যাপারে মার্কিন জনগণকে বিস্তারিত জানাতে আজ একটি ভাষণ দেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ সেখানে তিনি বলেন অভিযানের কারণে লিবিয়ায় নির্বিচারে মানুষ হত্যা বন্ধ করা গেছে৷ তবে তাঁর কথাবার্তায় বোঝা গেছে যে, সামরিক অভিযানের চেয়ে দেশটিতে অন্য কোনোভাবে পরিবর্তন আনার পক্ষে তিনি৷ কারণ গাদ্দাফিকে সামরিক উপায়ে সরাতে গেলে ইরাকের মতো পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে বলে তিনি সতর্কতা উচ্চারণ করেছেন৷ তাই একটা বিষয় তিনি আবারও পরিস্কার করেছেন যে, অভিযানে মার্কিন অংশগ্রহণ সীমিত থাকবে৷

ইউরোপীয় নেতাদের সঙ্গে ওবামার কথা

ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে ওবামা কথা বলেছেন ডেভিড ক্যামেরন, নিকোলা সার্কোজি ও আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে৷ তাঁরা প্রত্যেকেই একমত হয়েছেন যে, গাদ্দাফি ক্ষমতায় থাকার বৈধতা হারিয়েছেন৷ এবং এখন তাঁর চলে যাওয়া উচিত৷ এদিকে ক্যামেরন আর সার্কোজি যৌথ এক বিবৃতিতে গাদ্দাফির সমর্থকদের তার পক্ষ ত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন৷ এতে খানিকটা কাজও হয়েছে বলে মনে হচ্ছে৷ কারণ আল জাজিরা টেলিভিশনে দেখা গেছে লিবিয়ার সেনাবাহিনীর ১০ কর্মকর্তার একটি দল বলছে যে, তাঁরা গাদ্দাফি পক্ষ ছেড়ে সরকার বিরোধী আন্দোলনে যোগ দিচ্ছেন৷

লন্ডন সম্মেলন

লিবিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা করতে আজ লন্ডনে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে৷ সেখানে ইউরোপ, অ্যামেরিকা সহ জাতিসংঘ, আফ্রিকান ইউনিয়ন ও আরব লিগের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: আরাফাতুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন