1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

লারা ক্রফট কোন কল্পলোকের বাসিন্দা?

পুরুষদের সৃষ্ট ভিডিও গেমের নায়িকারা যে একটু বাড়াবাড়ি রকম ‘সেক্সি’, অর্থাৎ যৌন আবেদনময়ী হয়ে থাকেন, সেটা মহিলা গ্রাহকদের ভালো নাও লাগতে পারে৷ মহিলা গেম ডিজাইনাররা সেই অভাবটাই পূর্ণ করতে চাইছেন৷

ভিডিও দেখুন 04:35

‘‘বাড়াবাড়ি রকম যৌবনবতী’’

অসহায় নারী, সাহসী পুরুষেরা যাদের উদ্ধার করে থাকেন৷ নয়তো বাড়াবাড়ি রকম যৌবনবতী৷ এ সবই হল চলতি কম্পিউটার গেমগুলোতে মহিলাদের ছবি৷ মহিলাদের জন্য এ সব চরিত্র সৃষ্টি করা হয়নি৷ অথচ তারাও গেমস খেলে থাকেন৷

কর্নেলিয়া গেপার্ট ও তাঁর সতীর্থরা সেটাই বদলাতে চান৷ বার্লিনের ‘ইও-মাই-গেমস' কোম্পানিতে তাই ‘স্বাভাবিক' সব মহিলা চরিত্র সৃষ্টি করা হয়: সাদামাটা পোশাকের সাধারণ চেহারার মহিলা৷ গেম ডিজাইনার কর্নেলিয়া গেপার্ট বলেন, ‘‘আমাদের কোম্পানিতে অনেক মহিলা কাজ করেন, যারা মহিলা সংক্রান্ত প্রচলিত ধ্যানধারণায় ইন্ধন যোগাতে চান না৷ আমরা মহিলাদের ভালো ফিগার দেখাতে চাই না৷ আমরা সাধারণ মানুষজন দেখাতে চাই৷''

‘ব্রেভ লিটল বিস্টিজ' এ ধরনের একটি নতুন গেম৷ মাসখানেক যাবৎ গেমটি অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে৷ মহিলারাই বেশির ভাগ এই গেমটি খেলে থাকেন৷

মহিলা গেমার কিন্তু মহিলা গেম ডিজাইনার?

কম্পিউটার গেম খেলেন, এমন মহিলাদের সংখ্যা বিপুল৷ জার্মানিতে আড়াই কোটি গেমার-দের মধ্যে অর্ধেকই মহিলা৷ মহিলারা বিশেষ করে সোশ্যাল গেমসের ভক্ত, ফেসবুকের মতো সোশ্যাল মিডিয়ার ভেতরে খেলা৷

‘গেমস মেকআপ'-এর মতো ওয়েব পোর্টাল শুধুমাত্র মহিলা গেমার এবং ডিজাইনারদের জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে৷ তাদের একটি লক্ষ্য হল: মহিলা ডিজাইনার সংগ্রহ করা, কেননা ডিজাইনারদের মাত্র ২০ শতাংশ মহিলা৷ অথচ চাহিদা বিপুল৷

বার্লিনের ‘গেমস অ্যাকাডেমি'-তে মহিলা প্রশিক্ষণার্থীদের সংখ্যা বাড়ছে৷ তবুও ২০১২ সালের ব্যাচের মাত্র ২০ শতাংশ মহিলা৷ প্রশিক্ষক-অধ্যাপকরা ভেবে পান না, আরো বেশি মহিলারা গেম ডিজাইনে আগ্রহী নন কেন৷ প্রকল্প পরিচালক পাট্রিক লেয়ারমান বলেন, ‘‘এখানে যাবতীয় পুরনো কাসুন্দি ঘাঁটা যায়৷ গেমস ব্যাপারটা পুরুষদের এক্তিয়ারে কেন? তবে সেটা বদলাতে চলেছে, কেননা সমাজেও মনোভাবের পরিবর্তন ঘটেছে৷ আজ ক্রমেই আরো বেশি মহিলা গেমস খেলছেন৷ এই প্রজন্মের মহিলারা সদ্য আবিষ্কার করছেন যে, গেম ডিজাইন তাদের পক্ষেও একটি ইন্টারেস্টিং পেশা; পেশাটা শুধু কম্পিউটার পাগলদের জন্য নয়, আগে যে রকম ছিল৷''

চরিত্রগুলো আরো গভীর হচ্ছে'

লেয়ারমানের ছাত্রছাত্রীরা ‘ট্রুলি ইওর্স' নামের যে সর্বাধুনিক গেমটি বানিয়েছেন, তার ডিজাইনে মহিলাদের হাতের ছোঁয়া ও কল্পনাশক্তির স্পষ্ট প্রতিফলন দেখা যায়৷

গেমস অ্যাকাডেমি'-র ছাত্রী মিরিয়াম ইয়ুড-এর মন্তব্য হল, ‘‘কিছুদিন হল এমন সব গেম বেরচ্ছে, যেগুলোতে চরিত্রগুলো আরো গভীর হচ্ছে – কিন্তু তা এখনও যথেষ্ট নয় বলে আমাদের ধারণা৷ কাজেই আমরা এমন একটি গেম তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যেখানে যা ঘটছে, গেমার তা ঠিকমতো অনুভব করতে পারবে৷''

মহিলাদের জন্য গেম তৈরি করতে হলে মহিলা ডিজাইনার লাগবে, সোশ্যাল গেমসের বাজারে নেতৃস্থানীয় ‘ভোগা' কোম্পানি সেটা অনেক আগেই বুঝেছে৷ ন্যান্সি ভুটকে বিশ্বব্যাপী সফল ‘‘ডায়ামন্ড ড্যাশ'' গেমটি ডিজাইন করেছেন৷ ন্যান্সি বলেন, ‘‘যদি ভাবা যায় যে, সারা বিশ্বে দশ লাখ মানুষ রোজ আমার গেমটা খেলে, তাহলে সেটা একটা দারুণ ব্যাপার৷''

বার্লিনের সংস্থাটির মোট ২৮০ জন কর্মীর এক-তৃতীয়াংশ মহিলা৷ ভোগা-র শার্লটে ফোয়রবেক এই শিল্পে হাতে-গোনা-যায়, এমন কয়েকজন মহিলা-প্রোগ্রামারদের মধ্যে পড়েন৷ তিনি নিজেকে তাঁর পুরুষ সহকর্মীদের সম্পূর্ণ বিপরীত বলে মনে করেন, ‘‘ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে সার্বিক যোগাযোগগুলো দেখাটা গুরুত্বপূর্ণ৷ আমি শুধু আমার কাজের প্রযুক্তিগত দিক, আমার কোডটা ঠিকমতো শেষ করার উপর জোর দিই না – আমার কাজের সার্বিক আঙ্গিকটা যাতে অর্থপূর্ণ এবং মঙ্গলজনক হয়, সেটাই দেখার চেষ্টা করি৷''

তা বলে মারপিট থাকবে না?

ভোগা-র ডিজিটাল জগত একটা মিষ্টি ব্যাপার, সেখানে মারামারি নেই৷ ‘‘ইও-মাই-গেমস''-এর কর্নেলিয়া গেপার্ট সেটাও বাদ দিতে রাজি নন: ‘‘আমি নিজে একজন গেমার এবং আমি যুদ্ধ বা মারামারির গেম খেলতে ভালোবাসি৷ জাম্প অ্যান্ড রানস খেলি৷ আবার ফার্মভিলও খেলি৷''

‘ব্রেভ লিটল বিস্টিজ'-এ গেমাররা ছোট ছোট বামন-দৈত্যদের খাইয়ে-পরিয়ে বড় করতে পারে, আবার তাদের দিয়ে যুদ্ধও করাতে পারে৷ এই সংমিশ্রণ দিয়ে কর্নেলিয়া স্ত্রী বা পুরুষ গেমার, সকলেরই মন জয় করতে চান৷ কর্নেলিয়া বলেন, ‘‘যারা বামন পালন করে আর যারা যুদ্ধ করায়, তাদের পরিসংখ্যান বলে, প্রতিপালকদের ক্ষেত্রে মহিলারাই ভালো করেন; যোদ্ধাদের ক্ষেত্রে পুরুষরা – কিন্তু উভয় পক্ষই খেলে খুব মজা পায়৷''

সংখ্যায় খুব বেশি না হলেও, মহিলারা গেমস শিল্পে একটা বড় সংযোজন৷ তাদের কল্যাণে ভবিষ্যতে কম্পিউটার গেমগুলিতে অনেক কিছু বদলাবে৷

প্রিয় পাঠক, আপনি কি কম্পিউটার গেম খেলেন? আপনার কাছে এটি কি সময়ের অপচয় নাকি বিনোদনের অংশ? ফেসবুকে মন্তব্য করুন #অন্বেষণ অথবা #Onneshon হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও