1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

‘লজ্জা থাকতে হলে বিবেকের প্রয়োজন হয়'

‘সব শ্রেণির সংখ্যালঘুরা হচ্ছে শিকারির শিকার', ‘অযথা নির্যাতন করা ইসলাম সাপোর্ট করে না' – আমাদের ‘আলাপ' পাতায় ‘সংখ্যালঘু নির্যাতন' সম্পর্কে লেখাগুলো পড়ে ফেসবুকে এ রকম নানা মন্তব্য করেছেন ডয়চে ভেলের পাঠক বন্ধুরা৷

‘সংখ্যালঘু নির্যাতন' নিয়ে লেখা প্রতিবেদনগুলো পড়ে ডিডাব্লিউ-র পাঠক আবু মাহদি আবদুল একটা পাল্টা প্রশ্ন রেখেছেন আমাদের কাছে৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘আপনারা যারা তথাকথিত শিক্ষিত, তাদের প্রতি আমার একটা সবিনয় অনুরোধ যে, যদি নৈতিকতা দিয়ে কোনো কিছুর মোকাবেলা করার মতো যোগ্যতা আপনার না থেকে, তবে নিরব থাকুন৷ কিন্তু অনৈতিক মিথ্যাচার করে নিজেকে আর ছোট করবেন না৷ এমন অনৈতিক কাজ যদি আপনি করে থাকেন, তাহলে নিজের যোগ্যতা এবং নৈতিকতাকে নিজের আদালতেই দাড় করিয়ে বিচার করে দেখুন৷ আপনি সত্যিকারের মানুষ হয়ে থাকলে আত্মহত্যা করার ইচ্ছে করবে৷''

বন্ধু মিজানুর রহমান বলেছেন, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের লোকজনই নাকি হিন্দুদের ঘর বাড়ি দখল করে যাচ্ছে৷ তবে ‘সব সরকারের আমলেই আক্রান্ত হচ্ছে সংখ্যালঘুরা' – বর্তমান সরকারের আমলে সংখ্যালঘুদের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত ডয়চে ভেলেকে ঠিক এ কথাগুলোই বলেন৷

‘সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধ না হলে তা হবে নিঃসন্দেহে দেশের জন্য লজ্জাকর' – এ প্রতিবেদনটি সম্পর্কে শিমুল পাল বলেন, ‘‘লজ্জা থাকতে হলে বিবেকের প্রয়োজন হয়৷'' আর ‘‘বিবেক অর্জন করতে পারলেই মানুষ মানুষ হয়'' – এই মন্তব্য বিপুল সরকারের৷

অন্যদিকে বন্ধু মো. ইব্রাহিম মনে করেন, ‘‘সংখ্যালঘু নির্যাতন শব্দটা মিডিয়ার সৃষ্টি''৷ আর সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধ না হওয়ার কারণ হিসেবে প্রসুন পালের ধারণা ‘‘সব শ্রেণির সংখ্যালঘুরা হচ্ছে শিকারির শিকার, তাই বন্ধ হচ্ছে না নির্যাতন৷''

‘‘কোনো কিছুর উপর অযথা নির্যাতন করা ইসলাম সাপোর্ট করে না'' – এই মন্তব্য আশরাফুল ইসলাম কাউসারের৷

‘‘মিডিয়া একটা অসাম্প্রদায়িক দেশকে সাম্প্রদায়িক প্রচারের অপচেষ্টা চালাচ্ছে'' – এই মন্তব্য পাঠক সাইদুর রহমানের৷

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ‘মাইনোরিটি রাইটস গ্রুপ ইন্টারন্যাশনাল' প্রতি বছর যেসব দেশে সংখ্যালঘুরা সবচেয়ে বেশি হুমকির মুখে আছে, তার একটা তালিকা প্রকাশ করে৷ এ বিষয়ে ডয়চে ভেলের ‘যে দেশগুলোতে সংখ্যালঘুরা সবচেয়ে বেশি হুমকির মুখে' ছবিঘরে বাংলাদেশও রয়েছে৷

ছবিঘরে বাংলাদেশের নাম দেখে অনেকেই জানতে চেয়েছেন যে, এ তালিকায় বাংলাদেশের নাম কেন? আপনারা হয়ত লক্ষ্য করেননি যে লিস্টটি একটি ‘আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থার' তৈরি৷

লিস্ট-এ ভারতের নাম না থাকায় পাঠক টিটো খুবই আশ্চর্য৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘ইন্ডিয়াতে প্রতি বছর ৩৬,০০০ দাঙ্গা হয় এবং তার ৯৬ শতাংশ হামলার শিকার হন মুসলিম সম্প্রদায়৷ এই বিষয়টা কি ডয়চে ভেলের জরিপের বাইরে ছিল?''

শিবলী সরকারেও প্রায় একই প্রশ্ন, ‘‘ভারত কৈ গেল?''

আপনাদের জানাই, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ‘মাইনোরিটি রাইটস গ্রুপ ইন্টারন্যাশনাল'-এর হিসেবে ভারতও লিস্টে রয়েছে, তবে ৫৪ নম্বরে৷ বাংলাদেশ যেখানে আছে ৪১ নম্বরে৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়