1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

লংগদুতে আদিবাসীদের বাড়িঘরে আগুন 

রাঙামাটির লংগদু উপজেলায় যুবলীগের এক নেতার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে আদিবাসীদের চারটি গ্রামের সব বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের খবর পাওয়া গেছে৷ আতঙ্কে তারা এখন ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাচ্ছেন৷ উপজেলা সদরে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে৷

default

ফাইল ছবি

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার ৭নং ইউনিয়ন শাখার যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম নয়ন (৩৫)-এর লাশ উদ্ধার করা হয়৷ লাশটি উদ্ধার করা হয় খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার চার মাইল এলাকা থেকে৷ স্থানীয় পুলিশ জানায়, দুর্বৃত্তরা তাঁকে হত্যার পর লাশ ফেলে রেখে যায়৷ এরপর থেকেই লংগদু উপজেলা সদরে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়৷

শুক্রবার সকাল ৮ টার দিকে লাশ নিয়ে আসা হলে পরিস্থিতি খারাপ হতে শুরু করে৷ লাশ নিয়ে প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়৷ সকাল ১০টার দিকে লংগদু সদরের তিন টিলা এলাকায় মিছিল পৌঁছালে কোনও উসকানি ছাড়াই জনসংহতি সমিতির অফিসসহ এলাকার বাড়িঘর ও দোকানগুলোতে আগুন দেয়া হয়৷ চালানো হয় লুটপাট৷

জনসংহতি সমিতির জেলা শাখার তথ্য ও প্রচার সম্পাদক মঙ্গল কুমার চাকমা এক বিবৃতিতে বলেন, ‘‘আগুনে প্রায় দুশ’ ঘরবাড়ি ও দোকানপাট সম্পূর্ণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷’’ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের সবাইকে গ্রেফতারেরও দাবি জানান তিনি৷ 

অডিও শুনুন 00:48

‘চারটি পাড়ার প্রায় সব বাড়ি ঘর পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে’

লংগদু উপজেলার আটারকছড়ার ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা সংবাদ মাধ্যমকে জানান, বিক্ষোভ মিছিলের সময় প্রশাসনের আশ্বাস পেয়ে তাঁরা ঘর-বাড়িতে ছিলেন৷ তারপরও তাঁদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়ায় তাঁরা সহায় সম্বলহীন হয়ে পড়েছেন৷ এ সময় আগুনে পুড়ে গুনমালা চাকমা নামে এক বৃদ্ধ নারী মারা গেছেন বলে জানান তিনি৷

জনসংহতিসমিতির লংগদু উপজেলার সাধারণ সম্পাদক মনি শংকর চাকমা ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা তিনশ’রও বেশি হবে৷ চারটি পাড়ার প্রায় সব বাড়ি ঘর পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে৷’’ 

তিনি দাবি করেন, গুণমালা চাকমা নিহত হওয়া ছাড়াও আরো দু’জন নিখোঁজ রয়েছেন৷

লংগদু থানার ওসি মো. মোমিনুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘সকাল ১০টা থেকে বিকেল তিনটা পর্যন্ত এই হামলা ও আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটে৷ ভাড়াটে মোটর সাইকেল চালকরা পাশের গ্রাম থেকে এসে এই হামলা এবং ভাংচুর চালায়৷’’

অডিও শুনুন 01:33

‘ভাড়াটে মোটর সাইকেল চালকরা পাশের গ্রাম থেকে এসে এই হামলা এবং ভাংচুর চালায়’

তিনি বলেন, ‘‘নিহত নুরুল ইসলাম যুবলীগ নেতা হলেও তিনি পেশায় একজন ভাড়াটে মোটর সাইকেল চালক৷ তার সহকর্মীরাই নাশকতা চালিয়েছে৷’’ তবে ওসি এক নারীর মৃত্যুর খবর সত্য নয় বলে দাবি করেছেন৷ 

এদিকে ওই এলাকার আদিবাসীরা ভয়ে অন্যত্র চলে গেছেন৷তাঁরা আবারও হামলার আশঙ্কা করছেন৷ স্থানীয় সাংবাদিক জিয়াউল হক জিয়া জানান, ‘‘এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করায় লোকজন রাস্তাঘাটে তেমন নেই৷ পরিস্থিতি থমথমে৷ অতিরিক্ত পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে৷’’

ওসি আদিবাসীদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘‘তাঁদের ঘর-বাড়ি সব পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে৷ থাকবে কোথায়? তাই তাঁরা পাশের গ্রামে আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে চলে গেছেন৷’’ 

এ বিষয়ে কিছু বলার থাকলে লিখুন মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়