1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

র‌্যাবের গুলি লিমনকে হারাতে পারেনি

র‌্যাবের গুলিতে ঝালকাঠির লিমন হোসেন পঙ্গু হলেও শেষ পর্যন্ত তাকে হারাতে পারেনি৷ সে এবার এইচএসসিতে জিপিএ ৪ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে৷ লিমন ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছে, সে উচ্চশিক্ষা চালিয়ে যেতে চায়৷ এজন্য প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চায় সে৷

২০১১ সালে তার পরীক্ষা দেয়ার কথা থাকলেও র‌্যাবের গুলিতে পঙ্গু হওয়ার কারণে সে তখন পরীক্ষা দিতে পারেনি৷ চলতি বছরে সে পরীক্ষা দেয়৷

২০১১ সালের ২৩ মার্চ ঝালকাঠির রাজাপুরের সাতুরিয়া গ্রামে র‌্যাবের গুলিতে আহত হন কিশোর লিমন হোসেন৷ লিমন গরু চড়াতে বাইরে বের হয়েছিল৷ আর র‌্যাব সদস্যরা তাকে সন্ত্রাসী ধরার নামে গুলি করে৷ গুলিতে লিমন পা হারিয়ে চিরদিনের জন্য পঙ্গু হয়ে যায়৷ শুধু তাই নয় লিমনের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইন এবং সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে র‌্যাব দুটি মামলাও করে৷ এই ঘটনায় সারা দেশে নিন্দা এবং প্রতিবাদের ঝড় ওঠে৷ এরপর দীর্ঘ দিনের চিকিৎসায় লিমন এখন একটি কৃত্রিম পা নিয়ে বেঁচে আছে৷

কিন্তু লিমন থেমে থাকেনি৷ চলতি বছরেই সে কাঁঠালিয়া পিজিএস বহুমুখী কলেজ থেকে পঙ্গুত্ব নিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা দেয়৷ শনিবার প্রকাশিত ফলাফলে লিমন জিপিএ ৪ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে৷ এই ফলাফলে লিমন বেজায় খুশি৷ সে যেন মুহূর্তের মধ্যে তার পঙ্গুত্বের বেদনা ভুলে যায়৷ কিন্তু পরক্ষণেই ডয়চে ভেলেকে জানায়, সে উচ্চশিক্ষা নিতে চায়৷ এজন্য ভর্তি হতে চায় ভাল একটি প্রতিষ্ঠানে৷ কিন্তু তার সে আশা কি পূরণ হবে? কে তাকে সহায়তা করবে৷ তাই সে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তার উচ্চশিক্ষার জন্য সহায়তা চেয়েছে৷ তার ভাবতেই কষ্ট হয় সবাই যখন স্বাভাবিক পা নিয়ে ক্লাসে যাবে, তাকে তখন ক্লাসে যেতে হবে কৃত্রিম পা নিয়ে৷

লিমন জানায় তার পঙ্গুত্বের ঘটনায় তার পরিবারেও বিপর্যয় নেমে এসেছে৷ এখনো সে তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে রাজাপুরের গ্রামের বাড়িতে থাকতে পারেনা৷ বৃদ্ধ বাবা-মাকে নিয়ে সে পাশের উপজেলা কাউখালিতে একটি ভাড়া বাসায় থাকে৷ র‌্যাবের সোর্সরা তাদের এখনো হুমকি দেয়৷ একারণেই গ্রামের বাড়িতে থাকতে পারেনা৷ আর এই সুযোগে তাদের অল্প কিছু ফসলের জমি দখল করে নিয়েছে সন্ত্রাসীরা৷

সরকার ইতিমধ্যেই লিমনের বিরুদ্ধে দায়ের করা দুটি মামলা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ লিমন জানায় এর মধ্যে একটি মামলা প্রত্যাহার হলেও আরেকটি মামলা এখনো প্রত্যাহার হয়নি৷ আর যে র‌্যাব সদস্যরা লিমনকে পঙ্গু করেছে তাদের শাস্তি বা বিচারের কোনো উদ্যোগ এখনো নেয়া হয়নি, যা লিমনকে কষ্ট দেয়৷

লিমনের মা হেনোয়ারা বেগম জানান, তাঁ ছেলে আর কখনো স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাবেনা৷ তবুও যদি সরকার লিমনের পড়াশুনায় সহায়তা করে তাহলে সে হয়তো পঙ্গুত্ব নিয়েও জীবন যুদ্ধ চালিয়ে যেতে পারবে৷ সরকার যেন এই সহায়তাটুকু করে, লিমনের মায়ের এই একটিই আবেদন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়