1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মিয়ানমার

রোহিঙ্গা মুসলিমরা মিয়ানমারের জনগোষ্ঠী নয়, তারা বাঙালি: সেনাপ্রধান

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের সংখ্যা গণমাধ্যম বাড়িয়ে বলছে বলে মন্তব্য করেছেন মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং লাইং৷ আবারও বলেছেন, রোহিঙ্গা মুসলিমরা মিয়ানমারের জনগোষ্ঠী নয়, তারা বাঙালি৷

মিয়ানমারে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত স্কট মার্সিয়েলের সঙ্গে বৃহস্পতিবার এক বৈঠক করেন মিয়ানমারের সেনাপ্রধান৷ সেখানে তিনি বলেছেন, পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাড়িয়ে বলছে গণমাধ্যমগুলো৷ ঐ বৈঠকে মার্কিন রাষ্ট্রদূত রাখাইনে ত্রাণ সংস্থাগুলোর প্রবেশের অনুমতি চাইলে সেনাপ্রধান বলেন, ‘‘রাখাইনে যেসব রোহিঙ্গারা আছেন তাদের সরকার থেকে খাদ্য ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস সরবরাহ করা হচ্ছে, যা চাহিদার তুলনায় বেশি৷ আর মাছ ধরার জন্য জলাশয় তো রয়েছেই৷''

এরপর সেই আলোচনা নিয়ে নিজের ফেসবুক পাতায় একটি পোস্ট দেন মিন৷ যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠকে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান বলেছেন, ‘‘তারা কোনোভাবেই মিয়ানমারের জনগোষ্ঠী নয়৷ নথিপত্র প্রমাণ করে, তারা কখনো রোহিঙ্গা নামেও পরিচিত ছিল না৷ ঔপনিবেশিক আমল থেকেই তারা বাঙালি ছিল৷'' তিনি আরও বলেছেন, ‘‘বাঙালিদের সঙ্গে ভাষা-সংস্কৃতির মিল থাকায় হয়ত তারা সেখানে নিরাপদ বোধ করছে৷''

তবে ইতিহাসবিদরা বলছেন, ব্রিটিশ ঔপনিবেশের সময় মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের সংখ্যা বেড়েছে৷ কিন্তু এর আগে থেকেই তারা সেখানে বসবাস করে আসছিলো৷

জাতিসংঘের মানবাধিকার দপ্তর যা বলছে:

মিয়ানমারের নিরাপত্তাবাহিনী রোহিঙ্গাদের সাথে নৃশংস আচরণ করে ৫ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গাকে রাখাইন ছাড়তে বাধ্য করেছে এবং তাদের ঘর-বাড়ি, ফসলি জমি সব পুড়িয়ে দিয়েছে, যাতে তাদের আর ফেরার সম্ভাবনা না থাকে৷ এমনটাই মনে করছে জাতিসংঘের মানবাধিকার দপ্তর৷

সংস্থার এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান জ্যোতি সাংঘেরা বুধবার রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা বন্ধের জন্য মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন৷ রোহিঙ্গারা বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে ফিরলে তাদের আটক হওয়ার আশংকার কথা জানিয়েছেন তিনি৷ 

জেনিভায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘‘গ্রামগুলো যদি পুরোপুরি ধ্বংস করা হয়ে থাকে এবং তাদের জীবন ও জীবিকার সম্ভাবনা একেবারে নষ্ট করা হয়ে থাকে, তাহলে ফিরে যাওয়ার পর তাদের বন্দি করা বা ক্যাম্পে আটকানো হতে পারে৷''

জাতিসংঘের রাজনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রধান জেফরি ফেল্টম্যান শুক্রবার মিয়ানমার সফর করতে পারেন বলে জানিয়েছে তাঁর অফিস৷

সেনাবাহিনীর নিপীড়নের জের ধরে আগস্ট মাসের শেষ থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে ৫ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা৷ এদের মধ্যে ৬৫ জন রোহিঙ্গার সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে জাতিসংঘের মানবাধিকার দপ্তরের তৈরি করা এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘‘২৫শে আগস্ট মিয়ানমারে পুলিশের ঘাঁটিতে বিদ্রোহীদের হামলার আগে থেকেই হত্যা, নির্যাতন ও শিশুদের ধর্ষণ করার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের তাড়ানোর অভিযান শুরু হয়৷''

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার যাইদ বিন রাআদ আল-হুসেইন এক বিবৃতিতে বলেন, ‘‘মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের সব সম্পদ ধ্বংস করেছে, উত্তর রাখাইনের প্রায় সব গ্রাম জ্বালিয়ে দিয়েছে৷ এতেই বোঝা যায় রোহিঙ্গাদের কেবল তাড়ানোই তাদের মূল উদ্দেশ্য নয়, তারা তাদের বাড়িতে ফিরে যাওয়ার সব পথ বন্ধ করে দিয়েছে৷'' 

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায়ই সশস্ত্র রাখাইন বৌদ্ধদের সঙ্গে নিয়ে নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ি, জমি, সংরক্ষিত খাবার, শস্য ও প্রাণিসম্পদ নষ্ট করতো এবং এখনও চালিয়ে যাচ্ছে৷ এর ফলে যে ক্ষতি হয়েছে তাতে রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে রোহিঙ্গাদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরা ‘প্রায় অসম্ভব' হয়ে পড়েছে৷

‘পরিকল্পিত, সমন্বিত ও যথাযথ পদ্ধতি' অনুসরণ করে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গাদের উচ্ছেদে এই অভিযান চালিয়েছে৷ পুলিশের ঘাঁটিতে বিদ্রোহীদের হামলার মাসখানেক আগেই ৪০ বছরের কম বয়সি রোহিঙ্গাদের গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে তা শুরু হয়েছিল বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গারা৷

রাখাইনে সহিংসতা অব্যাহত আছে

আন্তর্জাতিক মহলের নিন্দা ও চাপ অব্যাহত থাকলেও রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা থামেনি৷ সোমবারই বাংলাদেশে নতুন করে ১১ হাজার রোহিঙ্গা প্রবেশের কথা তুলে ধরে জ্যোতি সাংঘেরা বলেছেন, ‘‘এতে স্পষ্ট যে, সেখানে এখনো উচ্ছেদ, বাস্তুহারা, পালাতে বাধ্য করা ও সহিংসতার ঘটনা ঘটছে৷ এছাড়া তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এখনো তাদের দেখলেই খুব কাছ থেকে গুলি ছোড়া হচ্ছে৷ আর তখনই তারা আতঙ্কে পালাতে বাধ্য হচ্ছে৷''

জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদনে রাখাইনের রাথেডং এলাকার ১২ বছরের একটি মেয়ের বক্তব্যে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্মমতার চিত্র উঠে এসেছে৷ মেয়েটি বলেছে, ‘‘ভয়াবহ আতঙ্কের এক পরিস্থিতির মধ্যে ছিলাম আমি৷ আমার চোখের সামনে ওরা আমার বোনকে গুলি করেছে৷ ওর বয়স মাত্র ৭ বছর৷ সে কাঁদতে কাঁদতে আমাকে পালিয়ে যেতে বলেছে৷ আমি তাকে বাঁচাতে পারিনি৷ কেননা সেখানে চিকিৎসার কোন ব্যবস্থা ছিল না৷ প্রচুর রক্তক্ষরণে সেখানেই সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে৷ আমি নিজেই তাঁকে দাফন করেছি৷'' এই মেয়েটি এখনো জানে না তার মা ও চার ভাইয়ের খবর৷ তার বাবাকে একমাস আগেই সেনাবাহিনী ধরে নিয়ে গিয়ে কারাবন্দি করেছে৷

এপিবি/জেডএইচ (এপি, এএফপি, রয়টার্স) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন