1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গারা আসছেই, সংকট বাড়ছেই

জাতিসংঘ বলছে ১০ হাজার, তবে কক্সবাজারে কর্মরত অভিবাসন সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সংস্থা আইএমও বলছে, এ পর্যন্ত অন্তত ২১ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছেন মিয়ানমার থেকে৷ এসে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছে৷

কক্সবজারের সাংবাদিক আব্দুল আজিজ ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘গত নভেম্বর থেকে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি অন্তত ২০০ নৌকা ফিরিয়ে দিয়েছে৷ ঐ সব নৌকায় করে মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করেছিল৷ এ পর্যন্ত আড়াই হাজারের মতো রোহিঙ্গাকে বিজিবি ফেরত পাঠিয়েছে৷ তবে বাংলাদেশে প্রতিদিনই মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের নির্যাতিত রোহিঙ্গা মুসলামানরা প্রবেশ করছে৷ জাতিসংঘ ১০ হাজারের কথা বললেও আইএমও কর্মকর্তারা বলছেন, এ পর্যন্ত ২১ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে৷''

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমও আইএমও কর্মকর্তা সংযুক্তা সাহানিকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, কক্সবাজারে নতুন করে আরো রোহিঙ্গা এসেছে৷ তবে ডয়চে ভেলের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার যোগাযোগ করা হলে, তিনি এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজি হননি৷

অডিও শুনুন 03:53

‘এ পর্যন্ত ২১ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে’

এদিকে সোমবার কক্সবাজারের টেকনাফে নাফ নদীর মিয়ানমার জলসীমায় রোহিঙ্গা বোঝাই একটি নৌকা ডুবে যাওয়ার পর এ পর্যন্ত তিনজনকে উদ্ধার করা হয়েছে৷ ঐ নৌকায় ৩৫ জন রোহিঙ্গা ছিল বলে জানা গেছে৷ বাকি ৩২ জন এখনো নিখোঁজ৷ টেকনাফের স্থানীয় জেলেরা জানিয়েছেন, ‘‘নিখোঁজ ৩২ জনের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কম৷ সোমবার বাংলাদেশের জেলেরা এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছেন৷ তবে লাশটি রোহিঙ্গা নারীর কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷ আব্দুল আজিজ জানান, নৌকাডুবির খবর পেয়ে বিজিবিও পরে অনুসন্ধান চালিয়েছে৷ তবে তারা কাউকে উদ্ধার করতে পারেনি৷

মিয়ানমার থেকে নতুন করে আসা রোহিঙ্গারা কক্সবজারের লেদা, নয়াপাড়া ও কুতুপালং এলাকায় আশ্রয় নিয়েছে৷ তারা আগে আসা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কষ্ট করে থাকছে৷ ঠিকমতো খাবার পাচ্ছে না৷ কেউ কেউ আশেপাশের বস্তিতে অবস্থান করছে৷ কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা শরাণার্থী আমির হোসেন ১৯৯২ সালে নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশে আসেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এখন যারা আসছেন, তাদের মধ্যে অনেকেই গুলিবিদ্ধ৷ আমরা যে-যার মতো আশ্রয় দিচ্ছি৷ তবে ভয়ে থাকি৷ যদি কোনো সমস্যা হয়৷ আমার বাসায় গুলিবিদ্ধ একজনকে আশ্রয় দিয়েছি৷ কিন্তু তার চিকিৎসা করাতে পারছি না৷''

তিনি জানান, ‘‘এখানে যারা আসছেন তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন৷ কেউ না খেয়ে, কেউ আধ-পেট খেয়ে আছেন৷ যারা মিয়ানমার থেকে এসেছেন তারা নিজেরাও নির্যাতনের শিকার৷ নির্যাতরে চিহ্ন রয়েছে তাদের শরীরে৷''

অডিও শুনুন 02:21

"আমার বাসায় গুলিবিদ্ধ একজনকে আশ্রয় দিয়েছি৷ কিন্তু তার চিকিৎসা করাতে পারছিনা''

তিনি আরো জানান, ‘‘গতকাল (সোমবার) নাফ নদীতে যে নৌকাডুবি হয়েছে তাতে ১৬ জন রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধারের কথা শুনেছি৷ তবে নিশ্চিত কোনো খবর নেই৷''

এদিকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী সোমবার সংসদে বলেছেন, ‘‘আগামী ১০ থেকে ১২ ডিসেম্বর ঢাকায় ‘গ্লোবাল ফোরাম অন মাইগ্রেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট' সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে৷ সেখানে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা হবে৷ আশা করি, এই সম্মেলন সমস্যা সমাধানে সাহায্য করবে৷''

অং সান সুচি প্রসঙ্গে সংসদকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘‘তিনি (সু চি) সংকট সমাধানের চেষ্টা করছেন৷ তার সরকারের মধ্যে অনেক সমস্যা আছে৷ সম্পূর্ণ জিনিসটা অত্যন্ত সংবেদনশীল পর্যায়ে রয়েছে৷ তবে যা বলতে পারি, তা হলো, আপনারা দেখেছেন, আন্তর্জাতিক সংস্থা, জাতিসংঘ, অন্যান্য মানবাধিকার সংস্থা আমাদের পক্ষে আছে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘লাওসে এশিয়ান রিজিওনাল ফোরামে গিয়ে আমি এ বিষয়ে সুচির সঙ্গে কথা বলেছি৷ এর আগে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হিসেবে ফরেন সেক্রেটারিকে পাঠানো হয়েছিল৷ আমাদের সঙ্গে সুচি যে কথাবার্তা বলেছেন, তা আশাব্যঞ্জক৷ আমাদের কর্তব্য হলো, বিভিন্ন লেভেলে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা৷ আমরা এই প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি৷ মানবিক কারণে যা করা দরকার, তা করছি৷ মিয়ানমার থেকে যারা চলে আসছে, তাদের খাদ্য ও চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া হচ্ছে৷''

বর্তমানে কক্সবাজারের তিনটি রিফিউজি ক্যাম্পে নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ৩৩ হাজার৷ তবে অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্যা তিন লাখেরও বেশি হবে বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে৷ এর সঙ্গে এবার আরো ২১ হাজার মিয়ানমারের নাগরিক রোহিঙ্গা যুক্ত হলো৷

এ ব্যাপারে আপনার কি কিছু বলার আছে? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও